• Home
  • »
  • News
  • »
  • coronavirus-latest-news
  • »
  • Work From Home: বাড়ি থেকে অফিসের কাজ করতে দিচ্ছে না বাচ্চা? ওদের ব্যস্ত রাখতে কাজে লাগান এই কৌশলগুলি...

Work From Home: বাড়ি থেকে অফিসের কাজ করতে দিচ্ছে না বাচ্চা? ওদের ব্যস্ত রাখতে কাজে লাগান এই কৌশলগুলি...

প্রতীকী ছবি।

প্রতীকী ছবি।

কিছু উপায় আছে যা আপনার এই সমস্যা কিছুটা হলেও নিরশন করবে।

  • Share this:

#কলকাতাঃ গত এক বছর ধরে করোনা-কাঁটা জীবনে অনেক পরিবর্তন এনেছে, যা হয় তো এর আগে আপনি একবারও ভাবেননি। বাড়িতে বসেই অফিসের কাজ সামলাতে হচ্ছে আপনাকে। বাড়িতে বসে কাজ করার কারণে অনেক ধরনের ঝুঁকি নিতে হচ্ছে আপনাকে। সময়ের দফারফা হয়ে যাচ্ছে। তার উপরে বাড়ির ছোটরা আলাদা ভাবে মনোযোগ কাড়ছে। এক বছর ধরে ওদেরও স্কুল, খেলাধুলা বা সামাজিক যোগাযোগ বন্ধ। ঘরের চার দেওয়ালে ওরাও আর নিজেদের সামলাতে পারছেনা। ফলে অফিসের কাজে নির্জন পরিবেশের জায়গায় বিশৃঙ্খলা, বাড়তি স্ট্রেস আপনাকে নাজেহাল করে তুলছে। আপনারা যখন কাজের দিকে মনোনিবেশ করার চেষ্টা করছেন তখন ঘরের কচিকাচারা ব্যতিব্যস্ত করে তুলছে আপনার জীবন। কিছু উপায় আছে যা আপনার এই সমস্যা কিছুটা হলেও নিরশন করবে।

খেলনা পরিষ্কার করা: পাঁচ বছরের উর্ধ্বে বাচ্চাদের খেলনা পরিষ্কার করার কাজ দিয়ে ব্যস্ত রাখা যেতে পারে। অভিভাবকরা বাড়িতে থাকা বাথটাব বা সিঙ্কে সাবান জল দিয়ে ভর্তি করতে পারেন, একটি তোয়ালে পাশে রেখে দিয়ে বাচ্চাদের বলুন তাদের খেলনাগুলি এক এক করে পরিষ্কার করতে। এই অভ্যাস তাদের কেবল ব্যস্ত রাখবে না, বরং তাদের পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার পাঠ ও শেখাবে। বাচ্চারা খুব আনন্দ সহকারে এই কাজ করবে, কারণ বেশিরভাগ বাচ্চারা জল নিয়ে খেলতে ভালবাসে। যদিও, এটা আপনাদের মাথায় রাখতে হবে যে কোনও প্রকার বৈদ্যুতিক খেলনা তারা যেন আবার জল দিয়ে না ধুয়ে ফেলে, তাহলে সেই সরঞ্জামটি নষ্ট হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে।

আর্ট অ্যান্ড ক্রাফট: সব বাচ্চারা স্কেচ অথবা রঙ করতে ভালবাসে। তাদেরকে রঙ-বেরঙের বই না দিয়ে, বরং তাদের বলুন নিজেদের মনের মতো কিছু আঁকতে। এই ভাবে তাদের শেখালে তাদের চিন্তাশক্তি ও সৃজনশীলতা বৃদ্ধি পাবে। একইসঙ্গে, তাদেরকে মাটি নিয়েও খেলতে দিন। যদিও এতে তাদের হাত, পা নোংরা হয়ে যাবে, কিন্তু এই সময় আপনারা নিজেদের গুরুত্বপূর্ণ কাজগুলি সেরে নিতে পারবেন।

ব্যায়াম/যোগাসন: এ ছাড়াও আপনারা বাচ্চাদের ব্যায়াম/যোগাসনের ভিডিও দেখানোর অভ্যাস করাতে পারেন এবং তাদেরও সেই ব্যায়ামগুলো করতে বলতে পারেন। কারণ আতিমারী কালে তা আপনার বাচ্চাদের নিরাপদ ও ফিট রাখতে সাহায্য করবে।

Published by:Shubhagata Dey
First published: