শিলিগুড়িকে স্বস্তি দিয়ে নামলো আক্রান্তের গ্রাফ! তবে পুলিশ মহলে আক্রান্ত আরও এক

শিলিগুড়িকে স্বস্তি দিয়ে নামলো আক্রান্তের গ্রাফ! তবে পুলিশ মহলে আক্রান্ত আরও এক
সোমবার থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত চার দিনে করোনা জয় করেছেন ১৫৫ জন

সোমবার থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত চার দিনে করোনা জয় করেছেন ১৫৫ জন

  • Share this:

#‌শিলিগুড়ি:‌ নামলো আক্রান্তের গ্রাফ! অনেকটাই স্বস্তিতে শহর! গত কয়েক দিনে আক্রান্তের গ্রাফ কিছুতেই নামছিল না। সংখ্যাটা কার্যত অপরিবর্তিত ছিল। সেই নিরিখে আজ রিপোর্ট স্বস্তিতে রাখল শিলিগুড়িকে। মোট আক্রান্তের দিক থেকে মালদাকে পেছনে ফেলে দিয়ে উত্তরবঙ্গে এখন একে দার্জিলিং! তবে পার্বত্য এলাকাকে পেছনে ফেলে দিয়েছে সমতল! বিশেষ করে পুরসভা এলাকা! মোট আক্রান্তের বড় অংশই পুরসভা এলাকার। গত কয়েকদিনে উদ্বেগ বাড়িয়েছে নকশালবাড়িও! বেঙডুবি সেনা ছাউনিতে বাড়ছে সংক্রমণ! বেশি সংখ্যায় সেনা জওয়ানেরা আক্রান্ত হয়েছেন। একইভাবে চিন্তা বাড়িয়েছে শিলিগুড়ি লাগোয়া ফুলবাড়ির সশস্ত্র পুলিশ ব্যাটেলিয়নও! দশম এবং দ্বাদশ ব্যাটলিয়নের বহু পুলিশ কর্মী আক্রান্ত। এবারে আক্রান্ত হলেন এক আইপিএস অফিসার! রাজ্য সশস্ত্র পুলিশের উত্তরবঙ্গের আই জি–ও আক্রান্ত! বৃহস্পতিবার তাঁর রিপোর্ট পজিটিভ এসছে। যা কয়েকগুণ উদ্বেগ বাড়িয়েছে প্রশাসনিক কর্তাদেরও!

শিলিগুড়িতেও আক্রান্ত হয়েছেন বহু পুলিশ কর্মী। অনেকেই সুস্থ হয়ে ফিরেছেন। আক্রান্তের তালিকায় এক এসিপি পদ মর্যাদার এক অফিসারও। যদিও তাঁর শারিরীক অবস্থার অনেকটাই উন্নতি হয়েছে বলে সূত্রের খবর। গত ২৪ ঘন্টায় শিলিগুড়ি পুরসভা এবং পাহাড় মিলিয়ে আক্রান্ত ৪৫ জন। এর মধ্যে পুর এলাকায় আক্রান্ত ২৭ জন। সংখ্যাটা যথেষ্টই স্বস্তির! মাটিগাড়ায় নতুন করে আক্রান্ত ১০ জন। নকশালবাড়িতে ৩ জন আক্রান্তের খোঁজ মিলেছে। কার্শিয়ং পুর এলাকায় আক্রান্ত ৪ জন! সুকনায় আক্রান্ত ১ জন। সবমিলিয়ে দিনের শেষে বৃহস্পতিবার আক্রান্তের সংখ্যা বলে দিচ্ছে ন্যূনতম স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললে গ্রাফ নিম্নমুখী হবে। এই কথাই তো বলে আসছেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকেরাও। সতর্কতা, সাবধানতা এবং সোশ্যাল ডিস্ট্যান্সিং মেনে চললে আক্রান্তের গ্রাফ আরও নামবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। এদিকে বৃহস্পতিবার সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৩২ জন। সোমবার থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত চার দিনে করোনা জয় করেছেন ১৫৫ জন। স্বাস্থ্যকর্তার দাবি, সুস্থতার হার ৯৭ থেকে ৯৮ শতাংশ!


Partha Sarkar

Published by:Uddalak Bhattacharya
First published: