লকডাউনে অনাহারে দিন কাটাচ্ছে বিরাটের পছন্দের ডাইপার ক্রিকেটারের পরিবার! সাহায্যের আবেদন !

গত বছর শেষের দিকে সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও ভাইরাল হয়। সেখানে দেখা যায় ডাইপার পড়ে ডান হাতে নিখুঁত ব্যাটিং করছেন এক খুদে।

গত বছর শেষের দিকে সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও ভাইরাল হয়। সেখানে দেখা যায় ডাইপার পড়ে ডান হাতে নিখুঁত ব্যাটিং করছেন এক খুদে।

  • Share this:

#বেহালা: মনে আছে বেহালার সেই খুদে বিষ্ময়কর ক্রিকেট প্রতিভার কথা। যার ব্যাটিং ভিডিও দেখে মুগ্ধ হয়েছিলেন ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি। প্রশংসা করেছিলেন মাইকেল ভন থেকে পিটারসন। কয়েক মাস আগে যার বাড়িতে ঘুরে গেছেন বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক স্টিভ ওয়া। যার সঙ্গে দেখা করেছেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ও। সেই ক্রিকেটের খুদে প্রতিভা শেখ শাহিদের পরিবার "বিরাট" আর্থিক সমস্যার সম্মুখীন। করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে দেশজুড়ে চলছে লকডাউন। বন্ধ স্কুল,কলেজ, অফিস, দোকানপাট কল-কারখানা। সমস্যায় পড়েছেন গরীব মানুষরা। যাদের দিন আনি দিন খাই রোজগার ছিল তারা দুমুঠো ভাত জোগাড় করতে দিশেহারা। সেই একই সমস্যায় জর্জরিত শেখ শাহিদের পরিবার। শাহিদের বাবা শেখ শামসের পেশায় সেলুন কর্মী। লকডাউনে দোকান বন্ধ। কোনও রোজগার নেই। ফলে প্রতিভাবান ছেলে ও পরিবারের খাবার জোগাড় করতে হিমশিম খাচ্ছেন তিনি। লোকের কাছে ধার করছেন। কিন্তু এভাবে বেশিদিন সংসার চালাতে পারবেন না শামসের। এখনও ডিজিটাল না হওয়ায় রেশন কার্ডটাও নেই শেখ শাহিদের পরিবারের কাছে। ফলে সরকারের দেওয়া জরুরি চাল-ডাল পাচ্ছেন না তারা। এই অবস্থায় সরকার কিংবা কোনও সহৃদয় ব্যক্তির কাছে আবেদন করছেন শেখ শাহিদের পরিবার। দু'বেলা ভাতের জোগাড় করতে পারলেই চলবে। বাড়িতে বসে একটি ভিডিওবার্তায় শামসের আবেদন করেছেন সাহায্যের জন্য। সরকার কাছে আবেদন দুবেলা খাবার পেলে এই সমস্যায় তারা বেঁচে থাকতে পারবেন।

 ছেলের জন্য প্রোটিনযুক্ত খাবার প্রয়োজন হয়। ফল খেতে ভালোবাসে সাড়ে তিন বছরে শেখ শাহিদ। কিন্তু সেসব কিছুই কিনতে পারছেন না শামসের। এমনি সময় ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা রোজগার হয় শাহিদের বাবার। আচমকা লকডাউনে ঘরে জরুরি খাদ্য জমা করতে পারেননি তিনি। এমনিতে বাইরে বেরোনো বন্ধ। তাই বিকল্প কাজের জোগাড় করতে পারছেন না বেহালা মুচিপাড়ার এই বাসিন্দা।

 গত বছর শেষের দিকে সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও ভাইরাল হয়। সেখানে দেখা যায় ডাইপার পড়ে ডান হাতে নিখুঁত ব্যাটিং করছেন এক খুদে। তখন শাহিদের বয়স ছিল মাত্র আড়াই বছর। তখন থেকেই ব্যাট হাতে সাবলীল ওই খুদে। নিখুঁত স্ট্রেট ড্রাইভ, কভার ড্রাইভ, শ্যাডো প্র্যাকটিস। পড়াশোনায় হাতেখড়ি না হওয়া ছেলেটার ব্যাট হাতে হাতেখড়ি হয়ে গেছে ওই দু-আড়াই বছর বয়সেই। এই ভিডিও দেখে মুগ্ধ বিশ্বের তাবড় তাবড় ক্রিকেটাররা। প্রথমে মাইকেল ভন, ব্র্যাড হগরা নাম না জানা এই ছেলেটির ভিডিও নিজেদের সোশ্যাল মিডিয়ার পেজে আপলোড করেন। ইংল্যান্ডের প্রাক্তন ক্রিকেটার কেভিন পিটারসেন ইনস্টাগ্রামে ভিডিওটি আপলোড করে বিরাটের উদ্দেশ্যে লেখেন,এই ক্রিকেটারকে কোহলি দলে নেবেন কিনা। খুদের ব্যাটিং ভিডিওটি দেখে মুগ্ধ বিরাট জানতে চান ছেলেটা কোথাকার। তারপরই খোঁজ পরে ছেলেটির সম্বন্ধে। অনেক খোঁজাখুঁজির পর জানা যায় ছেলেটি কলকাতার, তাও আবার প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় বাড়ির থেকে কিছুটা দূরত্বেই থাকেন শেখ শাহিদ।

সেই শাহিদের ক্রিকেটার হওয়ার অনিশ্চয়তার মুখে। এমনিতেই অনুশীলন বন্ধ বিবেকানন্দ পার্কে। বাড়িতেও ছেলেকে নিয়ে প্র্যাকটিস করাতে পারছেন না শেখ শামসের। দুবেলা ভাত জোগাড় করতেই রাতের ঘুম উড়ে গেছে। এখন দেখার যদি কেউ সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন।

ERON ROY BURMAN 

Published by:Piya Banerjee
First published: