'ধন্যবাদ মণীশ, তোমার কাছে আমরা কৃতজ্ঞ', কেন এই সাফাই কর্মী ভারতে প্রথম করোনা টিকাটি পেলেন?

'ধন্যবাদ মণীশ, তোমার কাছে আমরা কৃতজ্ঞ', কেন এই সাফাই কর্মী ভারতে প্রথম করোনা টিকাটি পেলেন?
কেন এই সাফাই কর্মী ভারতে প্রথম টিকাটি পেলেন?

কেন মণীশই ভারতে প্রথম করোনা টিকাটি পেলেন? তার সবচেয়ে বড় কারণ মণীশ নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কোভিড জোনগুলিতে গিয়ে কাজ করেছেন৷ তাও আবার কোনও প্রকার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের প্রশিক্ষণ ছাড়াই৷ ফ্রন্টলাইন যোদ্ধার প্রকৃত উদাহরণ মণীশ৷

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: শনিবার থেকে দেশ জুড়ে শুরু হয়েছে করোনা টিকাকরণের মহাযজ্ঞ৷ সারা বিশ্বের মধ্যে এটাই সবচেয়ে বড় টিকাদান কর্মসূচি৷ দেশের প্রথম করোনা টিকা পেয়ে এক রকম ইতিহাসে নাম লিখিয়ে ফেললেন দিল্লির অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিক্যাল সায়েন্স-এর (এমস) সাফাই কর্মী মণীশ কুমার৷

    কিন্তু কেন মণীশই ভারতে প্রথম করোনা টিকাটি পেলেন? তার সবচেয়ে বড় কারণ মণীশ নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কোভিড জোনগুলিতে গিয়ে কাজ করেছেন৷ তাও আবার কোনও প্রকার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের প্রশিক্ষণ ছাড়াই৷ ফ্রন্টলাইন যোদ্ধার প্রকৃত উদাহরণ মণীশ৷

    এমসে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষ বর্ধনের উপস্থিতিতে মণীশকে টিকা দেওয়া হয়৷ টিকা নেন এমসের ডিরেক্টর রণদীপ গুলেরিয়াও৷ তিনি নিউজ এইটটিন-কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলছেন, "মণীশকে ধন্যবাদ৷ আমরা ওর কাছে কৃতজ্ঞ৷ আমরা অবদান জীবনে ভুলব না৷ ও কে? আর ও কোথায় আছে, এসব কোনও ব্যাপারই নয় এই ক্ষেত্রে৷ এমন অনেকেই আছেন যাঁরা কোভিড যুদ্ধের অংশ হয়েছিলেন, এবং যাঁরা অগোচরে থাকা নায়ক। তাঁরা নেপথ্যে থেকে অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন। তাঁরা সত্যিই কোনও রকম ট্রেনিং বা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের বিষয়ে প্রশিক্ষণ ছাড়াই কোভিড অঞ্চলগুলিতে পৌঁছে গেছেন। তাঁরা যেভাবে নিজেদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করেছেন, তার স্বীকৃতি দেওয়া প্রয়োজন৷ এভাবেই আমরা স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রতি আমাদের শ্রদ্ধা নিবেদন করলাম৷"


    কোভিড আবহে ফাইজার টিকা নিয়ে সম্প্রতি ২৩ জন নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে নরওয়েতে৷ এই প্রসঙ্গে গুলেরিয়া বলছেন, "মৃতদের সকলেই প্রবীণ৷ আমাদের দেখতে হবে মৃত্যুর কারণ টিকাই, নাকি অন্য কিছু৷ কারণ এবং প্রতিক্রিয়ার সম্পর্কটা দেখাতে হবে৷ আমার মনে হয় না, আমাদের কাছে যথেষ্ট পরিসংখ্যান আছে এটাকে জুড়ে দেওয়ার জন্য৷ কিন্তু বিষয়টা দেখতে হবে৷

    ভারতে প্রথম দিনে ১.৬৫ লক্ষ মানুষ টিকা পেয়েছেন৷ দেশের মোট ৩০০৬ কেন্দ্রে টিকাকরণের কাজ হচ্ছে। প্রত্যেক কেন্দ্রে ১০০ জনকে করোনার টিকা দেওয়া হচ্ছে৷ প্রথম পর্যায়ে সারা দেশের ৩ কোটি মানুষকে টিকা দেওয়া হবে৷ অবশ্যই তাঁরা স্বাস্থ্যকর্মী ও ফ্রন্টলাইন কর্মী৷ দ্বিতীয় দফায় ৩০ কোটি মানুষকে টিকা দেওয়া হবে৷ ধীরে ধীরে দেশের সব মানুষকেই টিকা দেওয়া হবে৷

    Published by:Subhapam Saha
    First published:

    লেটেস্ট খবর