উর্ধ্বমুখী সংক্রমণ, বর্ধমানে বাড়ল নমুনা সংগ্রহ কেন্দ্রের সংখ্যা

জুলাই মাসে বর্ধমানে সংক্রমণ ব্যাপক আকার নিয়েছে। শুধু বর্ধমান শহরে আক্রান্তের সংখ্যা ১২৫ জন ছাড়িয়ে গিয়েছে।

জুলাই মাসে বর্ধমানে সংক্রমণ ব্যাপক আকার নিয়েছে। শুধু বর্ধমান শহরে আক্রান্তের সংখ্যা ১২৫ জন ছাড়িয়ে গিয়েছে।

  • Share this:

#বর্ধমান: করোনার সংক্রমণ ব্যাপক আকার ধারণ করায় এবার বর্ধমান শহরের প্রাণকেন্দ্র কার্জন গেটের কাছে নমুনা সংগ্রহ করা শুরু করল স্বাস্থ্য দফতর। বর্ধমান শহরে এখন চারটে ফ্লু-ক্লিনিক চলছে। সেখান থেকেই করোনার উপসর্গ থাকা রোগীদের এই নমুনা সংগ্রহ কেন্দ্রে পাঠানো হচ্ছে। বর্ধমানের সংস্কৃতি মঞ্চ লাগোয়া এলাকায় এই শিবির খোলা হয়েছে। নমুনা পরীক্ষার জন্য বাসিন্দাদের আর হাসপাতালে যেতে হচ্ছে না। সংক্রমণ না কমা পর্যন্ত এই কেন্দ্রে লালারসের নমুনা সংগ্রহ চলবে বলে জানিয়েছে জেলা প্রশাসন।

জুলাই মাসে বর্ধমানে সংক্রমণ ব্যাপক আকার নিয়েছে। শুধু বর্ধমান শহরে আক্রান্তের সংখ্যা ১২৫  জন ছাড়িয়ে গিয়েছে। জেলায় এখনও পর্যন্ত ১৬ জনের  মৃত্যু হয়েছে, তার মধ্যে ন'জনই বর্ধমান শহরের বাসিন্দা। শহরের বিভিন্ন এলাকা থেকে প্রতিদিন সংক্রমনের খবর আসছে। তাই নমুনা সংগ্রহ কেন্দ্র বাড়ানো হল বলে জানিয়েছে জেলা প্রশাসন।

তবে বাসিন্দারা চাইলেই এই কেন্দ্রের এসে লালারসের নমুনা জমা দিতে পারবেন না। জেলা স্বাস্থ্য দফতর জানিয়েছে, বর্ধমান শহরে এখন চারটি ফ্লু ক্লিনিক চলছে। জ্বর-সহ করোনা উপসর্গ থাকলে রোগীদের ফ্লু-ক্লিনিকে যেতে হচ্ছে। সেখানে চিকিৎসকরা শরীরে করোনার উপসর্গ রয়েছে মনে করলে তাদের নমুনা সংগ্রহ কেন্দ্রে পাঠাচ্ছেন। ফ্লু ক্লিনিক থেকে গাড়ি করে নমুনা সংগ্রহ কেন্দ্রে আক্রান্তদের নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। সেখানে লালারসের নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে। সেই নমুনা বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হচ্ছে।

এতদিন বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, বর্ধমান শহর লাগোয়া বামচাঁদাইপুরে করোনা হাসপাতাল ও কৃষি ভবনে জেলা কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছিল। কিন্তু অনেকেই করোনা সংক্রমণের আশঙ্কায় ওইসব জায়গায় যেতে চাইছিলেন না। জেলা স্বাস্থ্য দফতরের আধিকারিকরা জানিয়েছেন, আলাদা করে শহরের মধ্যস্থলে নমুনা সংগ্রহ কেন্দ্র চালু হওয়ায় এখন বাসিন্দারা অতি সহজেই সেখানে লালারসের নমুনা জমা দিতে পারবেন। এর ফলে করোনা আক্রান্তদের চিহ্নিত করার কাজে অনেকটাই সুবিধা হবে।

Saradindu Ghosh

Published by:Shubhagata Dey
First published: