corona virus btn
corona virus btn
Loading

লকডাউন নিশ্চিত করতে পাড়ায় পাড়ায় টহলদারি, শহরবাসীর গতিবিধি রুখতে দিনভর সক্রিয় পুলিশ

লকডাউন নিশ্চিত করতে পাড়ায় পাড়ায় টহলদারি, শহরবাসীর গতিবিধি রুখতে দিনভর সক্রিয় পুলিশ

করোনার সংক্রমণ রুখতে বুধবার থেকে সাত দিনের লকডাউন শুরু হয়েছে বর্ধমানের ৩৫ ওয়ার্ডেই। তার ওপর আজ বৃহস্পতিবার ছিল রাজ্যজুড়ে লকডাউন।

  • Share this:

#বর্ধমান: লকডাউন নিশ্চিত করতে দিনভর সক্রিয় পুলিশ। ফলে শুনশান রইল  গোটা শহর। করোনার সংক্রমণ রুখতে বুধবার থেকে সাত দিনের লকডাউন শুরু হয়েছে বর্ধমানের ৩৫ ওয়ার্ডেই। তার ওপর আজ বৃহস্পতিবার ছিল রাজ্যজুড়ে লকডাউন। সেই লকডাউন কার্যকর করতে সকাল থেকেই সক্রিয়তা দেখাল পুলিশ। তার জেরেই এদিন জনমানবহীন শহরের রাজপথ থেকে অলিগলি।

গতবার লকডাউনের প্রথমদিকে অতি সক্রিয়তা দেখিয়েছিল পুলিশ। লাঠি উঁচিয়ে অতি তৎপরতা দেখানোয় বিতর্কের মুখে পড়তে হয়েছিল। পড়ে অবশ্য আর লাঠি হাতে দেখা যায়নি পুলিশকে। ফলে লকডাউনকে সেভাবে আমল দেয়নি অনেকেই। তার পরিণতিতে বাজারে দোকানে ব্যাপক ভিড় লক্ষ্য করা গিয়েছিল। সামাজিক দূরত্ব বজায় থাকেনি। মাস্ক বা ফেস  কভারে মুখ ঢাকেনি অনেকেই।

কিন্তু এবারের লকডাউনে সক্রিয় পুলিশ। এলাকায় এলাকায় রাস্তায় বেরনো বাসিন্দাদের ধরে ধরে জিজ্ঞাসাবাদ চলে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে। লকডাউন ভেঙে বাড়ি থেকে বের হওয়ার কারণ জানতে চাওয়া হয়। সন্তোষজনক উত্তর দিতে না পারলে তৎক্ষণাৎ তাকে বাড়ি ফেরান হয়। আর এসব দেখেই রাস্তায় বের হওয়া থেকে বিরত থাকছেন অনেকেই। ।

শহরের মূল রাস্তা জিটি রোড। তার দু-পাশের সমস্ত দোকানপাট বন্ধ ছিল। ওষুধের দোকান ছাড়া অন্য কোনও দোকানে খুলতে দেওয়া হয়নি। তবে মাঝারি রাস্তা বা পাড়ার দোকান খোলা ছিল সকাল থেকেই। সেই খবর পেয়েই মোটর সাইকেলে এলাকায় এলাকায় অভিযান চালায় পুলিশ। সতর্ক করে দিয়ে বিক্রেতাদের ঝাঁপ বন্ধ করতে বাধ্য করা হয়। সামনে পুলিশ দেখে অনেকেই দোকান বন্ধ করতে বাধ্য হন। সারাদিন আর দোকান খোলার সাহস দেখাননি তারা।

এদিন সকাল থেকেই বর্ধমানের হৃদপিণ্ড কার্জন গেট,  বীরহাটা, পার্কাস রোড, গোলাপবাগ, নবাবহাট, পুলিশ লাইন মোড়, বিবেকানন্দ কলেজ মোড়, তেলিপুকুর, উল্লাস বাস স্ট্যান্ড সহ অনেক এলাকাতেই রাস্তায় পুলিশ মোতায়েন ছিল। পথচলতি মানুষ দেখলেই তাদের দাঁড় করিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে পুলিশ। বাড়ি থেকে বের হওয়ার কারণ জানতে চাওয়া হয়েছে। জেলা পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, শুধুমাত্র চিকিৎসা বা খুব জরুরি প্রয়োজন ছাড়া যারা রাস্তায় বেরিয়েছেন তাঁদের বাড়ি পাঠানো হয়েছে। একইভাবে এলাকায় এলাকায় টহল দিয়েছে পুলিশ ভ্যান। ছোট রাস্তাগুলিতে অভিযান চালিয়েছে পুলিশের মোটর সাইকেল বাহিনী। তার জেরেই  যথাযথ লকডাউন নিশ্চিত করা সম্ভব হয়েছে।

Saradindu Ghosh

Published by: Shubhagata Dey
First published: July 23, 2020, 4:53 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर