করোনা ভাইরাস

corona virus btn
corona virus btn
Loading

লকডাউনের জের, মিলছে না খাবার, খিদের জ্বালায় হিংস্র হয়ে উঠছে অবলা প্রাণীরাও

লকডাউনের জের, মিলছে না খাবার, খিদের জ্বালায় হিংস্র হয়ে উঠছে অবলা প্রাণীরাও

ওরা মানে পথ কুকুরেরা! বড্ড অসহায়! রাস্তাঘাট শুনশান। ঘর বন্দী সাধারন জনতাও। সময়ে মিলছে না খাবার।

  • Share this:

#কলকাতা: আতঙ্কের অপর নাম করোনা। দেশে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে আতঙ্কের সংখ্যা। রাজ্যেও ছড়াচ্ছে মারণ করোনা। করোনামুক্ত করার একমাত্র উপায় মানুষে মানুষে মেলামেশা বন্ধ করা। অর্থাৎ লকডাউন মেনে চলতে হবে। আর এর জেরেই বন্ধ বাজার, দোকানপাট। একের পর এক দোকানের ঝাঁপ তালাবন্দী অবস্থায়! আর এই সময়ে বড্ড একা ওরা।

ওরা মানে পথ কুকুরেরা! বড্ড অসহায়! রাস্তাঘাট শুনশান। ঘর বন্দী সাধারন জনতাও। সময়ে মিলছে না খাবার। আগে দোকানদারেরাই নির্দিষ্ট সময়ে ওদের খাবার দিত। মাস খানেক পার হয়ে গিয়েছে লকডাউনের। প্রবল খাদ্য সংকটের মধ্যে অবলা জীবেরা। এর জেরেই ক্রমেই হিংস্র হয়ে উঠছে ওরা। সন্ধ্যে ঘনিয়ে এলেই শিলিগুড়ির বিভিন্ন অলিতে গলিতে কান পাতলেই শোনা যাচ্ছে কুকুরের ডাক! মানুষ দেখলেই তেড়ে যাচ্ছে। একটু খাবারের আশায়! এক করুণ অবস্থা! মেজাজ হারাচ্ছে পাড়ার টমি, জ্যাকি, কালুয়ারা! বাড়ছে ক্ষিপ্রতা! খিদের জ্বালায়!

কিছু সহৃদয় ব্যক্তি এগিয়ে এসেছেন। পথে নেমেছেন স্বয়ং রাজ্যের পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেবও। পাড়ার অনেকেই দায়িত্ব নিয়ে খাবার তুলে দিচ্ছে ঠিকই। বিভিন্ন বাজার থেকে দোকানের সামনে থাকা পথ কুকুরদের অবস্থা শোচনীয়। প্রথম দিন থেকেই এই অবলা জীবদের পাশে দাঁড়িয়েছে শিলিগুড়ির এনিম্যাল লাভার্স অ্যাসোসিয়েশনের সদস্যরা। দু'বেলাই পথ কুকুরদের কাছে পৌঁছে দিচ্ছে খাবার। তাতে আপাত শান্ত মনে হলেও ইচ্ছেমতো খাবার তো আর মিলছে না! তাই ক্রমেই হারাচ্ছে মেজাজ। আর ওদের ঘেউ ঘেউ আওয়াজে ঘুম ছুটেছে পাড়া পড়শীদের! তবে কেন এত ক্ষিপ্ত হয়ে উঠছে পথ কুকুরেরা? কী বলছেন পশু চিকিৎসক থেকে পশুপ্রেমীরা? পশু চিকিৎসক সুখদেব সরকার জানান, সময়মতো খাবার না পাওয়াতেই পথ কুকুরেরা ক্ষিপ্র হয়ে উঠছে। আবার পথ কুকুরের কামড়ে অতিষ্ঠ হয়ে উঠছে স্থানীয় বাসিন্দারা। অন্যদিকে পশুপ্রেমী সংগঠনের সদস্যা প্রিয়া রুদ্র জানান, খাদ্যের অভাব অবশ্যই একটা কারণ। সেইসঙ্গে লকডাউনের জেরে ফাঁকা রাস্তায় গাড়ি, বাইকও ছুটছে মাত্রাতিরিক্ত গতিতে। তার জেরেই হিংস্র হয়ে উঠছে অবলা প্রাণীরা।

Partha Pratim Sarkar

Published by: Elina Datta
First published: April 26, 2020, 11:44 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर