corona virus btn
corona virus btn
Loading

করোনা-ভয়ে স্বেচ্ছায় নমুনা পরীক্ষার ফায়দা তুলছে ভুয়ো ল্যাব, রুখতে আরও কড়া নজরদারি

করোনা-ভয়ে স্বেচ্ছায় নমুনা পরীক্ষার ফায়দা তুলছে ভুয়ো ল্যাব, রুখতে আরও কড়া নজরদারি

স্বাস্থ্য দফতর পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছে, কোনও রোগীর শরীরে উপসর্গ থাকুক বা না থাকুক স্বেচ্ছায় অনুমোদনপ্রাপ্ত করোনা পরীক্ষাগারে গিয়েও কেউ স্বেচ্ছায় করোনার জন্য নির্দিষ্ট 'সোয়াব টেস্ট' করতে পারবেন না।

  • Share this:

 #কলকাতা :  করোনার ছোবল অব্যাহত।  নোভেল করোনা ভাইরাসের বিষ ছোবলে প্রতিদিনই আক্রান্তের সংখ্যা যেমন হু-হু করে বাড়ছে, মৃত্যুর ঘটনাও ঘটছে। আর এতেই যেমন রীতিমতো উদ্বিগ্ন স্বাস্থ্য দফতর ঠিক তেমন কলকাতা সহ রাজ্যের মানুষের কপালের চিন্তার ভাঁজও ক্রমশ চওড়া হচ্ছে।

শরীরে কোনও উপসর্গ না থাকলেও স্বেচ্ছায় করোনা পরীক্ষার প্রবণতা বাড়ছে আমজনতার মধ্যে। আর এই সুযোগে বেআইনি পরীক্ষাগারগুলি থেকে নমুনা পরীক্ষা করে অনেকেই নিশ্চিত হতে চাইছেন তাঁদের শরীরে করোনাভাইরাস বাসা বেঁধেছে কিনা। যা ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চ বা  আইসিএমআর- এর গাইডলাইনের বিপরীত। মোটা টাকার বিনিময়ে এ রকমই একটি করোনা পরীক্ষার জন্য বেআইনি পরীক্ষাগারের খোঁজ মেলে খাস কলকাতায়।

স্বাস্থ্য দফতরের নির্দেশে সম্প্রতি ফুলবাগানের সেই পরীক্ষাগার পুলিশের তরফে সিল করে দেওয়া হয়েছে। ত্রিবেণী ক্লিনিক নামে ওই পরীক্ষাগারের মালিককে গ্রেফতারও করা হয়। রাজ্যের স্বরাষ্ট্রসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় স্পষ্ট জানান,  'যে কেউ ইচ্ছে করলেই করোনা পরীক্ষা করাতে পারবেন না। আইসিএমআর এর প্রটোকল অনুযায়ী একজন  চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ীই  করোনা টেস্ট করা যায়।'

স্বাস্থ্য দফতরের এক কর্তা বলেন,  'এই মুহূর্তে আমাদের রাজ্যে মোট ১৫ টি করোনা  পরীক্ষা কেন্দ্র রয়েছে। এরমধ্যে  ৫টি  বেসরকারি এবং ১০ টি সরকারি। এই ১৫টি কেন্দ্র ছাড়া রাজ্যের কোথাও কোনও করোনা পরীক্ষা করা হলে তা একদিকে যেমন বেআইনি পাশাপাশি সেই সমস্ত পরীক্ষা কেন্দ্রগুলির বিরুদ্ধেও কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে পুলিশকে।

করোনা টেস্টের সংখ্যা আরও বাড়ানোর লক্ষ্যে  সরকারি হাসপাতালে দশটি এবং বেসরকারি হাসপাতালে দুটি নিয়ে মোট ১২টি নতুন পরীক্ষাগারের জন্য অনুমতি চাওয়া হয়েছে আইসিএমআর এর কাছে। আশা করি শীঘ্রই সেই অনুমোদন মিলবে'। নতুন ১২টি পরীক্ষাগারের মধ্যে জেলার বেশ কিছু চিকিৎসাকেন্দ্র পরিকাঠামো প্রস্তুত রয়েছে বলে দাবি করেন ওই স্বাস্থ্যকর্তা।

স্বাস্থ্য দফতর পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছে, কোনও রোগীর শরীরে উপসর্গ থাকুক বা না থাকুক স্বেচ্ছায় অনুমোদনপ্রাপ্ত করোনা পরীক্ষাগারে গিয়েও কেউ স্বেচ্ছায় করোনার জন্য নির্দিষ্ট 'সোয়াব টেস্ট' করতে পারবেন না। কেউ হাসপাতালে ভর্তি থাকুক বা না থাকুক।  যতক্ষণ না পর্যন্ত কোনও  চিকিৎসক  করোনা পরীক্ষার জন্য লিখিত পরামর্শ দিচ্ছেন  ততক্ষণ করোনা পরীক্ষা স্বীকৃত নয়। তবে যেভাবে করোনা থাবা বসাচ্ছে তাতে ভয়ই  লাগছে বলে শহরের এক নাগরিকের কথায়, 'ভাবছি ডাক্তারবাবুকে  অনুরোধ করব করোনা পরীক্ষার অনুমতি দেওয়ার জন্য'।

প্রসঙ্গত, স্বাস্থ্য দপ্তরের হিসেব অনুযায়ী গত ২৪ ঘন্টায় রাজ্যে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১৩০ জন। যার মধ্যে কলকাতারই  রয়েছেন ৬৩ জন রোগী। মৃত্যু হয়েছে নয় জনের যাদের মধ্যে আট  জনই কলকাতার। গত ১৭  মার্চ এ রাজ্যে প্রথম নোভেল করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের খোঁজ মেলে।

স্বাস্থ্য দফতর সূত্রের খবর, এখনও পর্যন্ত করোনায় আক্রান্তের মোট সংখ্যা ১৬৭৮ জন। করোনায়  আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে  ৮৮ জনের। করোনায় আক্রান্ত তবে 'অন্য' কারণে পশ্চিমবঙ্গে মৃত্যু হয়েছে 160 জন রোগীর। চিকিৎসা চলছে ১১৯৫ জনের। সুস্থ হয়েছেন ৩২৩ জন। শরীরে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি জানার জন্য এখনও পর্যন্ত পরীক্ষা করা হয়েছে ৩৫ হাজার ৭৬৭ জনের।

হোম  কোয়ারেন্টাইন এবং সরকারি কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন যথাক্রমে  9৯ হাজার ৫৭৬  ও  ৪ হাজার ৯৬৮ জন। দেশে  করোনার  ছোবলে  আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সংখ্যা ২ হাজার ছুঁইছুঁই। তবে যেভাবে গোটা দেশজুড়ে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনার প্রকোপ। কলকাতাতেও সরকারি হিসেব অনুযায়ী তথ্য যথেষ্ট উদ্বেগের। এই অবস্থায় লকডাউন চলাকালীনও  একটা বড় অংশের মানুষের লকডাউন উপেক্ষা করে রাস্তায় নামার বেপরোয়া ছবি চিন্তা বাড়াচ্ছে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের।

VENKATESWAR  LAHIRI

Published by: Bangla Editor
First published: May 9, 2020, 2:45 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर