• Home
  • »
  • News
  • »
  • coronavirus-latest-news
  • »
  • EXCLUSIVE: করোনার প্রকোপ, কলকাতায় থার্মাল স্ক্যানারের সামনে মিলার-ডুপ্লেসি-ডি'ককরা

EXCLUSIVE: করোনার প্রকোপ, কলকাতায় থার্মাল স্ক্যানারের সামনে মিলার-ডুপ্লেসি-ডি'ককরা

সোমবারটা শহরে কাটিয়ে মঙ্গলবার সকালের উড়ানে দুবাই হয়ে কেপটাউন ফেরার কথা ডেভিড মিলারদের।

সোমবারটা শহরে কাটিয়ে মঙ্গলবার সকালের উড়ানে দুবাই হয়ে কেপটাউন ফেরার কথা ডেভিড মিলারদের।

সোমবারটা শহরে কাটিয়ে মঙ্গলবার সকালের উড়ানে দুবাই হয়ে কেপটাউন ফেরার কথা ডেভিড মিলারদের।

  • Share this:

#কলকাতা: দিল্লি থেকে সরাসরি কেপটাউন বা জোহানেসবার্গের উড়ান অমিল। তাই করোনার বিশ্বব্যাপী তাণ্ডবের মধ্যে দেশে ফেরার জন্য তুলনায় নিরাপদ কলকাতাকেই বেছে নিয়েছিলেন ডুপ্লেসি, ডি'কক, ডেভিড মিলাররা।

সিরিজ বাতিল হওয়ার পরেও  তাই দেশে ফেরার টানেই সোমবার সকালেই কলকাতায় চলে আসা প্রোটিয়াসের। বিমানবন্দর থেকে সরাসরি নিউটাউনের পাঁচতারা হোটেল। মিলারদের অপেক্ষায় সেখানে সিএবি কর্তাদের সঙ্গে তিন সদস্যের মেডিকেল বোর্ড। হোটেলে ঢোকার আগেই প্রোটিয়াদের দাঁড়াতে হল নন-কনট্যাক্ট থার্মাল স্ক্যানারের সামনে। থার্মাল স্ক্যানারের সামনে উতরে যেতেই ডুপ্লেসিদের অপেক্ষায় তিন সদস্যের মেডিকেল বোর্ড।

সিএবি সভাপতি অভিষেক ডালমিয়া বলছিলেন, ‘‘সিরিজ বাতিল হলেও দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটারদের নজরে রাখার জন্য শহরের একটি বেসরকারী হাসপাতাল থেকে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের নিয়ে মেডিকেল বোর্ড তৈরি করা হয়েছে। মিলারদের সঙ্গে এক হোটেলেই সারাক্ষণ থাকবেন চিকিৎসক বোর্ড।’’

মিলারদের জন্য তৈরি মেডিকেল বোর্ডের অন্যতম সদস্য ডঃ সপ্তর্ষি বসু বলছিলেন,‘‘থার্মাল স্ক্যানারে পরীক্ষা ছাড়াও ক্রিকেটারদের সামান্য জ্বর-সর্দি-কাশির দিকেও নজর রাখা হবে।’’

তিন ম্যাচের সিরিজে ১২ মার্চ ধরমশালা, ১৫ মার্চ লখনউ ও ১৮ মার্চ কলকাতায় খেলা ছিল মিলার, ডি'ককদের। করোনার প্রভাবে তিন ম্যাচের সিরিজ বাতিলের খাতায়। পিছিয়ে গিয়েছে অনিশ্চিতের খাতায় থাকা আইপিএলও। দেশে ফেরার জন্য ছটফট করছেন ক্রিকেটাররা। কিন্তু উপায় নেই। চাইলেই এখনই কেপটাউন বা জোহানেসবার্গে ফিরতে পারছেন না দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেটাররা। সোমবারটা শহরে কাটিয়ে মঙ্গলবার সকালের উড়ানে দুবাই হয়ে কেপটাউন ফেরার কথা ডেভিড মিলারদের।

প্রোটিয়াদের হোটেল ছাড়ার ক্ষেত্রেও কড়াকড়ি রয়েছে। প্রয়োজন ছাড়া হোটেল ছেডে় বেরোতে পারবেন না নুঙ্গিরা। হোটেল ছেড়ে বেরোতে হলে স্থানীয় ক্রিকেট প্রশাসক সংস্থা সিএবি-র কর্তাব্যক্তিদের অনুমতি নিতে হবে ক্রিকেটারদের। সতর্কীকরণ ব্যবস্থা হিসেবে নিউটাউনের হোটেলে ক্রিকেটারদের সঙ্গেই থাকার ব্যবস্থা করা হয়েছে লোকাল ম্যানেজার মঈন মকসুদ ও তপন চাকির। সাধারণত কলকাতায় এলে দক্ষিণ কলকাতায় আলিপুর চিড়িয়াখানা সংলগ্ন হোটেলে থাকার ব্যবস্থা করা হয় বিদেশি দলগুলোর। এবার করোনা সতর্কতায় সেক্ষেত্রেও ব্যতিক্রম।

PARADIP GHOSH

Published by:Siddhartha Sarkar
First published: