corona virus btn
corona virus btn
Loading

থানাতেও দন্ডি! করোনা মোকাবিলায় সতর্কতা মালদহ পুলিশের

থানাতেও দন্ডি! করোনা মোকাবিলায় সতর্কতা মালদহ পুলিশের

একজনের থেকে অপরজনের দূরত্ব কমপক্ষে এক মিটার রাখার পরামর্শ দিচ্ছেন স্বাস্থ্য দফতরের কর্তারা। সেই দূরত্ব বজায় রাখতে জেলার সবজি, মুদি, ওষুধের দোকানে পুলিশ প্রশাসনের তরফে দন্ডি টেনে দেওয়া হয়েছে।

  • Share this:

#মালদহ: মুদির দোকান থেকে ওষুধ। দন্ডির মধ্যে দাঁড়িয়েই কেনাকাটা করতে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে। এবারে দন্ডি পড়ল থানাতেও। বৃহস্পতিবার থেকে মালদহ জেলার থানা গুলিতে অভিযোগকারীদের জন্য দন্ডি টানল পুলিশ। পুলিশের দাবি, “থানাতেও অভিযোগ জানাতে অনেকে আসনে। স্বাস্থ্য দফতরের নির্দেশ মতো দূরত্ব বজায় রাখতে দন্ডি টানা হয়েছে।” দন্ডিতে স্বস্তিতে থানার পুলিশ কর্তারাও।

লকডাউনে ভিড় এড়াতে মালদহের বাজার গুলিতে দন্ডি টেনে দিয়েছে পুলিশ প্রশান। দন্ডির মধ্যে থেকে দাঁড়িয়ে কিনতে হচ্ছে ওষুধ। স্বাস্থ্য দফতরের দাবি, করোনা মোকাবিলায় অন্যতম হাতিয়ার লকডাউন। তারপরেও জরুরি প্রয়োজনে মানুষ বের হলে বজায় রাখতে হবে দূরত্ব। একজনের থেকে অপরজনের দূরত্ব কমপক্ষে এক মিটার রাখার পরামর্শ দিচ্ছেন স্বাস্থ্য দফতরের কর্তারা। সেই দূরত্ব বজায় রাখতে জেলার সবজি, মুদি, ওষুধের দোকানে পুলিশ প্রশাসনের তরফে দন্ডি টেনে দেওয়া হয়েছে।

এবার সেই দন্ডি পড়ল মালদহের থানার গন্ডিতেও। মালদহের বৈষ্ণবনগর, পুকুরিয়া, বামনগোলা থানায় অভিযোগকারীদের জন্য দন্ডি টেনে দেওয়া হয়েছে। দন্ডির মধ্যে দাঁড়িয়ে থেকেই অভিযোগ জানাতে হবে সাধারণ মানুষকে। এক অভিযোগকারীর বক্তব্য, “থানার গন্ডি টপকাতেই অনেকে ভয় করেন। গন্ডি টপকে থানায় ঢুকেও দন্ডির মধ্যে দাঁড়িয়ে অভিযোগ করতে হচ্ছে।”

তবে পুলিশের উদ্যোগে খুশি অভিযোগকারীরাও। তাঁদের একাংশ বলেন, “নানান কাজে থানা গুলিতে ভিড় জমে থাকে। বিভিন্ন ধরনের মানুষ থানাতে হাজির হন। এক্ষেত্রে থানাতেও সচেতনতা বজায় রাথা অত্যন্ত প্রয়োজন।” তবে দন্ডিতে স্বস্তিতে থানার পুলিশ কর্তারা। এক পুলিশ কর্তা বলেন, “রাস্তায় নেমে ডিউটি করার পাশাপাশি থানাতেও বসেও করোনা নিয়ে ভয়ে ভয়ে থাকতে হয়। কারন থানাতেও প্রচন্ড ভিড় হয়। দন্ডির ফলে দূরত্ব বজায় থাকবে।

First published: March 26, 2020, 2:09 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर