চিনে অনুমোদিত হল সিনোফার্মের করোনা ভ্যাকসিন

বৃহস্পতিবার জনসাধারণের ব্যবহারের জন্য ভ্যাকসিনটিকে অনুমোদন দেওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার জনসাধারণের ব্যবহারের জন্য ভ্যাকসিনটিকে অনুমোদন দেওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার জনসাধারণের ব্যবহারের জন্য ভ্যাকসিনটিকে অনুমোদন দেওয়া হয়।

  • Share this:

    #ইউহান: চিনে অনুমোদন পেল রাষ্ট্রীয় সংস্থা সিনোফার্মের অনুমোদিত প্রতিষ্ঠান বেইজিং বায়োলজিক্যাল প্রডাক্ট ইনস্টিটিউটের তৈরি করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন। বৃহস্পতিবার জনসাধারণের ব্যবহারের জন্য ভ্যাকসিনটিকে অনুমোদন দেওয়া হয়। এটিই চিনে অনুমোদন পাওয়া প্রথম করোনা ভ্যাকসিন। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স এই খবর জানিয়েছে।

    বৃহস্পতিবার চিনের ন্যাশনাল মেডিকেল প্রডাক্টস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন এই ভ্যাকসিনটির অনুমোদন দেয়। কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের অনুমোদনের ক্ষেত্রে অন্যান্য কয়েকটি দেশ থেকে পিছিয়ে থাকলেও চিন কয়েক মাস ধরে কিছু নাগরিকের ওপর তিনটি ভিন্ন ধরনের ভ্যাকসিন প্রয়োগ করে শেষ পর্যায়ের পরীক্ষা চালানো হচ্ছে। রয়টার্স জানিয়েছে, ভ্যাকসিনটির কার্যকারিতা সম্পর্কে এখনও বিস্তারিত তথ্য প্রকাশ করা হয়নি। তবে বেইজিং বায়োলজিক্যাল প্রোডাক্টস ইন্সটিটিউট থেকে বুধবার জানানো হয়, অন্তর্বর্তী তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, ভ্যাকসিনটি ৭৯.৩৪ শতাংশ কার্যকর।

    চিনে ইতিমধ্যে অন্তত পাঁচটি ভ্যাকসিন চূড়ান্ত পর্যায়ের ট্রায়ালে আছে। এগুলির উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান হলো সিনোভ্যাক, সিএনবিজি ইউনিটস, ক্যানসিনো বায়োলজিকস এবং চাইনিজ একাডেমি অব সায়েন্সেস। ইতিমধ্যে দেশটি দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার ও লাতিন আমেরিকার সবচেয়ে জনবহুল দেশ ইন্দোনেশিয়া ও ব্রাজিলসহ বেশ কয়েকটি দেশের সঙ্গে বড় ধরনের সরবরাহ করার চুক্তি করেছে।

    প্রসঙ্গত,২০১৯ সালের শেষদিকে চিনের ইউহান শহরে প্রথম টের পাওয়া যায় করোনা ভাইরাসের অস্তিত্ব। ২০২০ সালের শুরুর দিক থেকে তা ছড়িয়ে পড়ে গোটা বিশ্বে এবং ভাইরাস সংক্রমণের হার বাড়তে থাকে ক্রমে। সম্প্রতি, চিনের ইউহান শহরের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের তরফে, করোনা সংক্রমণ নিয়ে একটি সমীক্ষা করা হয়েছে। সমীক্ষার রিপোর্টে দেখা গিয়েছে, এই শহরে সরকারি হিসেব অনুযায়ী সংক্রমণের যে সংখ্যা, আসলে তা আরও ১০ গুণ বেশি।

    Published by:Simli Dasgupta
    First published: