করোনা ভাইরাস

?>
corona virus btn
corona virus btn
Loading

করোনা আক্রান্ত রাজ্যের মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী, খোঁজ নিলেন মমতা

করোনা আক্রান্ত রাজ্যের মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী, খোঁজ নিলেন মমতা

শাসকদল তৃণমূলের একাধিক নেতা, বিধায়ক, মন্ত্রী ইতিমধ্যে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন।

  • Share this:

‌ফের করোনার থাবা রাজ্যের শাসকদলে। ফের মমতার মন্ত্রিসভার এক সদস্য করোনায় আক্রান্ত। করোনা আক্রান্ত রাজ্যের পরিবহণ ও সেচমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। গতকাল থেকেই জ্বরে আক্রান্ত ছিলেন মন্ত্রী। তারপর বৃহস্পতিবার কোভিড টেস্ট হয় তাঁর। সেখানেই ধরা পড়ে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। এরপর শুভেন্দু অধিকারীর শারীরিক অবস্থার খোঁজ নেন মুখ্যমন্ত্রী। শিশির অধিকারীকে ফোন করে খোঁজ নেন মমতা। শোনা যাচ্ছে, আপাতত হোম আইসোলেশনে রয়েছেন শুভেন্দু। তবে তাঁর শরীরে তেমন কোনও উপসর্গ নেই। মৃদু উপসর্গ নিয়ে বাড়িতেই থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। শুক্রবার ফের একবার চিকিৎসকদের পরামর্শ তিনি নেবেন বলে শোনা যাচ্ছে। পরিবার সূত্রে খবর, তাঁর শারীরিক অবস্থার বিশেষ অবনতি না হওয়ায় তিনি বাড়িতে থেকেই চিকিৎসা করানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

এদিকে শুভেন্দু অধিকারীর বৃদ্ধা মা, বাবাকে নিয়ে চিন্তায় রয়েছে পরিবার। কয়েকদিন আগেই শুভেন্দু অধিকারীর মায়ের অস্ত্রোপচার হয়। তিনিও এখনও সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে ওঠেননি। আপাতত ঝুঁকি এড়াতে তাঁকে কলকাতার এক বেসরকারি হাসাপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে পরিবারের আর কারও করোনা ধরা পড়েনি এখনও।

শাসকদল তৃণমূলের একাধিক নেতা, বিধায়ক, মন্ত্রী ইতিমধ্যে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। সুজিত বসু, স্বপন দেবনাথের শরীরেও হানা দিয়েছিল করোনা ভাইরাস। তবে তাঁরা সবাই করোনা জয় করে বাড়ি ফিরেছেন। আবার কাজেও যোগ দিয়েছেন। করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন বেশ কয়েকজন বিধায়ক, নেতাও। শুভেন্দু সেই তালিকায় নতুন করে নাম লেখালেন। পরিবারের তরফে আবেদন করা হয়েছে, যাঁরা শেষ কয়েকদিনে শুভেন্দু অধিকারীর সংস্পর্শে এসেছেন, তাঁরা যেন অতি অবশ্য আইসোলেশনে থাকেন ও করোনা পরীক্ষা করিয়ে নেন। তবে উদ্বেগ রয়েছে শুভেন্দুর পরিবার নিয়ে। কারণ, শুভেন্দু অধিকারীর বাবা, শিশির অধিকারী, কাঁথি লোকসভার সাংসদের বয়স ৭৯ বছর। এই বয়সে কোভিডের ঝুঁকি অত্যন্ত বেশি। এর আগে নিজের ইনস্টাগ্রামে শুভেন্দু অধিকারীর ভাইপো দেবদীপ নিজের স্টোরিতে লেখে, সে করোনা আক্রান্ত হয়েছে। তাকে কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করানো হয়। তবে সে সুস্থ হয়ে উঠেছে। এর পাশাপাশি, শুভেন্দুর বড় দাদা কৃষ্ণেন্দু অধিকারীও করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন। তিনিও হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি হন। বাড়িতে ফিরে থাকেন হোম কোয়ারেন্টাইনে। এখন তৃণমূলের অসংখ্য সদস্য শুভেন্দুর আরোগ্য কামনা করেছেন। স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী শুভেন্দুর খোঁজ নিয়েছেন। তবে সকলের মধ্যেই একটা উদ্বেগ থেকেই যাচ্ছে।

Published by: Uddalak Bhattacharya
First published: September 25, 2020, 1:46 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर