corona virus btn
corona virus btn
Loading

করোনা বিপদ জেনেও সুরক্ষা সামগ্রী ছাড়াই হলদিয়া বন্দরে কাজ করছেন শ্রমিকরা !

করোনা বিপদ জেনেও সুরক্ষা সামগ্রী ছাড়াই হলদিয়া বন্দরে কাজ করছেন শ্রমিকরা !

ব্যক্তিগত সুরক্ষা সামগ্রী ছাড়াই বন্দর শ্রমিকদের জাহাজ থেকে পণ্য ওঠানো-নামানোর কাজ করতে হচ্ছে।

  • Share this:

#হলদিয়া: ষোলো নয়, করোনা বিপদ আঠারো আনা মাথায় নিয়েই হলদিয়া বন্দরে কাজ করতে হচ্ছে শ্রমিকদের। ব্যক্তিগত সুরক্ষা সামগ্রী ছাড়াই বন্দর শ্রমিকদের জাহাজ থেকে পণ্য ওঠানো-নামানোর কাজ করতে হচ্ছে।

ভিন রাজ্যের পাশাপাশি বিদেশ থেকে আসা জাহাজ থেকেও পণ্য ওঠানো নামানোর কাজ করতে হচ্ছে বলে ক্ষোভ বাড়ছে শ্রমিকদের। প্রায় দু’হাজার বন্দর শ্রমিককে করোনা বিপদ এবং আতঙ্কের মধ্যেই কাজ করতে হচ্ছে বলে খবর। এদিকে বন্দর কর্তৃপক্ষের এই ব্যবস্থা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন জেলার বাসিন্দা মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী।

বন্দর শ্রমিকদের জোর করে করোনা বিপদের মুখে ঠেলে দিয়ে কাজ করানো হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন রাজ্যের পরিবহন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। পূর্ব মেদিনীপুরের জেলা শাসক পার্থ ঘোষকে এব্যাপারে অভিযোগ জানিয়ে অবিলম্বে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন তিনি। হলদিয়া বন্দরে কর্মরত শ্রমিকদের দ্রুত পারসোনাল প্রটেকশন ইকিউপমেন্ট দেওয়ার দাবি জানিয়ে জেলাশাসককে চিঠি দিয়েছেন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী।

মন্ত্রীর কাছ থেকে অভিযোগ পেয়ে হলদিয়া বন্দর কর্তৃপক্ষের সঙ্গে তিনি কথা বলবেন বলে জানিয়েছেন জেলাশাসক পার্থ ঘোষ। তিনি বলেন- বন্দর কর্তৃপক্ষকে বলব, আজকের মধ্যেই যেন প্রত্যেক বন্দর শ্রমিককেই ব্যক্তিগত সুরক্ষা সামগ্রী দেওয়া হয়। লকডাউন শুরু হওয়ায় যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। তারমধ্যেই অনেক কষ্ট করেই শ্রমিকরা যাচ্ছেন কাজে। কষ্ট মাথায় নিয়ে কাজে যাওয়া শ্রমিকদের করোনার থেকে সেভ করার জন্য অবশ্যই বন্দর কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থা নেওয়া দরকার ছিল বলে দাবি করে সোশ্যাল মিডিয়ায় সরব হয়েছেন হলদিয়ার অনেক সেচ্ছাসেবী সংগঠনই। সকলের একটাই দাবি- শ্রমিকদের নিরাপত্তার গুরুত্ব দিক বন্দর-সহ হলদিয়ার সব শিল্প সংস্থাই। উল্লেখ্য, বন্দরের পাশাপাশি হলদিয়ায় আরও বেশ কয়েকটি সংস্থা, যেমন ভোজ্য তেল কারখানার মতো জায়গায় শ্রমিকরা কাজ করছেন করোনার ঝুঁকি মাথায় নিয়ে। যা নিয়েও সরব এলাকার মানুষজন।

SUJIT BHOWMIK

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: March 24, 2020, 1:09 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर