করোনা ভাইরাস

corona virus btn
corona virus btn
Loading

করোনা সংক্রমিতদের সঙ্গে যৌনতা!‌ মেলবোর্নের কোয়ারেন্টাইন সেন্টারের অভিজ্ঞতা জানালেন মহিলা

করোনা সংক্রমিতদের সঙ্গে যৌনতা!‌ মেলবোর্নের কোয়ারেন্টাইন সেন্টারের অভিজ্ঞতা জানালেন মহিলা
প্রতীকী ছবি

সরকারি তদন্তে জিজ্ঞাসাবাদের সামনে পড়তে হয়েছে হোটেলের এক নিরাপত্তারক্ষীকে।

  • Share this:

#‌মেলবোর্ন:‌ করোনা মোকাবিলায় একসময় উদাহরণ হয়ে উঠেছিল অস্ট্রেলিয়া। কিন্তু ক্রমে সেই দেশ সংক্রমণের মাত্রা বেড়েছে। মেলবোর্নে নতুন করে লকডাউন কার্যকর করেছে সে দেশের সরকার। কিন্তু যে উৎস থেকে এই শহরে ক্রমে ছড়িয়ে পড়েছে করোনা ভাইরাস, সেই হোটেলেই ছিল কোয়ারেন্টিন সেন্টারে। কিন্তু কোয়ারেন্টিন সেন্টারের নামে সেখানে বসেছিল অবাধ যৌনতার আসর, চলছিল নেশা। হোয়াটস গ্রুপ থেকে হোটেলের নিরাপত্তারক্ষী নিয়োগ করা হয়েছিল। মানা হয়নি কোনও নিয়ম। সে দেশের সরকারি তদন্তে এমন খবরই উঠে আসছে।

সরকারি তদন্তে জিজ্ঞাসাবাদের সামনে পড়তে হয়েছে হোটেলের এক নিরাপত্তারক্ষীকে। তিনি জানিয়েছেন, করোনা ভাইরাসকে ঠাট্টা হিসাবে নিয়েছিলেন ওখানকার আবাসিকরা। তিনি বলেছেন, হাসি ঠাট্টায় কোয়ারেন্টাইন সেন্টারের নিরাপত্তারক্ষীরা একে অপরের সঙ্গে মারামারি করছিলেন, জড়িয়ে ধরছিলেন। কোনও স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছিল না। করোনা ভাইরাসের আতঙ্ক যে কী ভয়ানক হতে পারে, সেটা কেউ বুঝতেই চায়নি। এমনকী তিনি সহ অনেক নিরাপত্তারক্ষীকেই হোয়াটস অ্যাপের মাধ্যমে নিয়োগ করা হয়েছিল। কোয়ারেন্টাইন সেন্টার চালাতে গেলে যে প্রশিক্ষণ দেওয়া দরকার তাও দেওয়া হয়নি। পরে, এই হোটেলের একজন নিরাপত্তারক্ষীর কোভিড পজিটিভ ধরা পড়লে পুরো বিষয়টি প্রকাশ্যে আসে। তারপর দেখা যায় হোটেলের কর্মীদের মধ্যে ৩১ জন করোনা আক্রান্ত!‌

কীভাবে ছড়াল এই ভাইরাস? শায়লা সাক্ষী নামে মহিলা নিরাপত্তারক্ষী জানিয়েছেন, কেউ কেউ কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে থাকা আক্রান্তদের সঙ্গে যৌনতায় মত্ত হয়ে পড়েছিলেন। তাঁদের বারবার নিষেধ করা সত্ত্বেও তাঁরা বারণ শোনেননি। নিয়মিত ব্যবহার করা হয়নি মাস্ক, স্যানিটাইজার। ফলে করোনা আটকে রাখার বদলে এই কোয়ারেন্টাইন সেন্টার থেকে করোনা ছড়িয়ে পড়েছে। অন্য একজন জানিয়েছেন, কোয়ারেন্টাইন সেন্টারের আবাসিকরা অনেকসময় একসঙ্গে দল বেঁধে হোটেলের জিমে যেতেন। একসঙ্গে অবসরে বেরিয়ে পড়তের হোটেল থেকে, খেতে চলে যেতেন কেএফসি বা ম্যাকডোনাল্ডসে। এমনকি তাঁকে নাকি হোটেল কর্তৃপক্ষ হুমকি দিয়েছিল, যাই হোক, করোনা টেস্ট করানো যাবে না। তাহলে চাকরি থাকবে না।

Published by: Uddalak Bhattacharya
First published: July 24, 2020, 4:11 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर