corona virus btn
corona virus btn
Loading

করোনা সংক্রমণের আশঙ্কা! লালবাজার সেন্ট্রাল লকআপে তৈরি হল 'আইসোলেশন সেল'

করোনা সংক্রমণের আশঙ্কা! লালবাজার সেন্ট্রাল লকআপে তৈরি হল 'আইসোলেশন সেল'
ফাইল ছবি

লালবাজারে সেন্ট্রাল লকআপে মূলত গোয়েন্দা বিভাগের বিভিন্ন মামলায় ধৃত চোর, ছিনতাইকারী, কেপমারের মত অভিযুক্ত, 'হাই রিস্ক' অভিযুক্ত ও রাজনৈতিক মামলায় অভিযুক্তদের রাখা হয়।

  • Share this:

#কলকাতা: প্রতারণার মামলায় এক অভিযুক্তকে গ্রেফতারের পর করোনা ধরা পড়ে তার। পুলিশি হেফাজতে থাকাকালীনই করোনা আক্রান্ত হয় সেই অভিযুক্ত। তারপরই তাকে জেরা করে তদন্ত প্রক্রিয়া এগিয়ে নিয়ে যাওয়া গোয়েন্দা বিভাগের দুই অফিসারেরও করোনা পজিটিভ রিপোর্ট আসে। এই ঘটনা থেকে শিক্ষা নিয়েছে লালবাজার। কোনও অভিযুক্তের থেকে পুলিশকর্মীরা যাতে করোনা আক্রান্ত না হন সেজন্য লালবাজার সেন্ট্রাল লকআপে তৈরি হল পৃথক 'আইসোলেশন সেল'।

লালবাজারে সেন্ট্রাল লকআপে মূলত গোয়েন্দা বিভাগের বিভিন্ন মামলায় ধৃত চোর, ছিনতাইকারী, কেপমারের মত অভিযুক্ত, 'হাই রিস্ক' অভিযুক্ত ও রাজনৈতিক মামলায় অভিযুক্তদের রাখা হয়। কিন্তু এই করোনা পরিস্থিতিতে কোনও অভিযুক্তের থেকে কোনও পুলিশকর্মী যাতে করোনা আক্রান্ত না হন সেজন্য পৃথক সেল তৈরি করা হল। সেলের নাম 'আইসোলেশন সেল'। সেন্ট্রাল লকআপে থাকা কোনও অভিযুক্তের শরীরে জ্বর বা অন্য কোনও করোনার উপসর্গ এলেই সঙ্গে সঙ্গে এই সেলে সরানোর নির্দেশ দিয়েছে লালবাজার। সেখানে রেখে প্রথমে কোভিড টেস্ট করাতে হবে। রিপোর্ট পজিটিভ এলেই হাসপাতালে ভর্তির ব্যবস্থা করতে হবে।

কলকাতা পুলিশে ইতিমধ্যেই করোনা আক্রান্তর সংখ্যা ১৩০০ ছাড়িয়েছে। ফ্রন্টলাইনে ডিউটি করতে গিয়ে আক্রান্ত হচ্ছেন পুলিশকর্মীরা। এবার অভিযুক্তের থেকেও যাতে কেউ আক্রান্ত না হন সেই জন্যই সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিল লালবাজার। কলকাতা পুলিশের এক পদস্থ কর্তা বলেন, "এই পরিস্থিতিতে অপরাধ কমলেও তদন্ত প্রক্রিয়া তো চলবেই। গ্রেফতার করতে হবে। লকআপে রাখতে হবে। সেক্ষেত্রে গ্রেফতারের আগে থেকে তো কিছু বোঝা সম্ভব নয়, তাই কর্মীদের সুরক্ষার জন্যই এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।"

কোনও অভিযুক্তকে গ্রেফতারের পর তার থেকে যাতে কোনও পুলিশকর্মী করোনা আক্রান্ত না হন, সেজন্য আরও একগুচ্ছ নির্দেশিকা দিয়েছে লালবাজার। সেগুলি হল-

১) লকআপে ঢোকানোর আগে থার্মাল স্ক্যানিং বাধ্যতামূলক।

২) ধৃত অভিযুক্তদের মাস্ক এবং স্যানিটাইজার দিতে হবে এবং সেটা তারা সেটা যাতে ব্যবহার করে তা নিশ্চিত করতে হবে।

৩) একাধিক অভিযুক্ত থাকলে লকআপের ভেতরে সোশ্যাল ডিসটেন্স মেনে রাখতে হবে।

৪) লকআপ নিয়মিত স্যানিটাইজ করতে হবে।

কলকাতা পুলিশের প্রত্যেকটি থানার ক্ষেত্রেও একই নিয়ম মানতে বলা হয়েছে।

SUJOY PAL

Published by: Shubhagata Dey
First published: August 3, 2020, 11:34 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर