Covishield Second Dose: কোভিশিল্ডের দ্বিতীয় ডোজ মিলবে অন্তত ১২ সপ্তাহ পর, শনিবার থেকেই নতুন নিয়ম রাজ্যে

প্রতীকী ছবি৷

টিকাকরণ নিয়ে ন্যাশনাল টেকনিক্যাল অ্যাডভাইসরি গ্রুপ-এর দেওয়া পরামর্শ মেনে নিয়েই কোভিশিল্ড-এর দু'টি ভ্যাকসিনের ডোজের মধ্যে ফারাক বাড়িয়ে ১২ থেকে ১৬ সপ্তাহ করেছে কেন্দ্রীয় সরকার৷

  • Share this:

    #কলকাতা: প্রথমে ছিল ৪ থেকে ৬ সপ্তাহ৷ তার পর তা বেড়ে হল ৬ থেকে ৮ সপ্তাহ৷ এবার কেন্দ্রীয় সরকারের নির্দেশ অনুযায়ী, কোভিশিল্ড-এর প্রথম ডোজ নেওয়ার অন্তত ১২ সপ্তাহ পর দেওয়া হবে দ্বিতীয় ডোজ৷ যার অর্থ দু'টি ডোজের মধ্যে ফারাক বেড়ে হল অন্তত ৮৪ দিন, অর্থাৎ প্রায় তিন মাস৷

    টিকাকরণ নিয়ে ন্যাশনাল টেকনিক্যাল অ্যাডভাইসরি গ্রুপ-এর দেওয়া পরামর্শ মেনে নিয়েই কোভিশিল্ড-এর দু'টি ভ্যাকসিনের ডোজের মধ্যে ফারাক বাড়িয়ে ১২ থেকে ১৬ সপ্তাহ করেছে কেন্দ্রীয় সরকার৷ শনিবার থেকে সেই সিদ্ধান্ত কার্যকর হচ্ছে রাজ্যের সমস্ত সরকারি হাসপাতাল এবং টিকা প্রদান কেন্দ্রেও৷ এ দিনই এসএসকেএম হাসপাতালে যাঁরা টিকা নিতে গিয়েছিলেন, তাঁদেরকেও জানিয়ে দেওয়া হয়, ৪২ থেকে ৫৬ দিন আগে যাঁরা কোভিশিল্ড-এর প্রথম ডোজ যাঁরা পেয়েছেন, তাঁদের এ দিনই শেষ বার ভ্যাকসিন দেওয়া হবে৷ আগামিকাল, শনিবার থেকে অন্তত ১২ সপ্তাহ না কাটলে কোভিশিল্ড ভ্যাকসিন পাওয়া যাবে না৷

    কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্ত ঘোষণার পরই অভিযোগ উঠেছে, ভ্যাকসিনের ঘাটতির কারণেই দু'টি ডোজের মধ্যে ফারাক বাড়িয়ে পরিস্থিতি সামাল দিতে চাইছে সরকার৷ যদিও যে বিশেষজ্ঞ কমিটি এই প্রস্তাব সরকারকে দিয়েছে, তারা এই অভিযোগ উড়িয়ে দিচ্ছে৷ ওই বিশেষজ্ঞ কমিটির চেয়ারম্যান এন কে অরোরার দাবি, সম্পূর্ণ বৈজ্ঞানিক ভিত্তিতেই কোভিশিল্ড-এর দু'টি ডোজের মধ্যে ফারাক বাড়ানো হয়েছে৷ এর সঙ্গে টিকার ঘাটতির কোনও সম্পর্ক নেই৷ দু'টি ডোজের মধ্যে ফারাক বাড়লে কী কী উপকার, সরকার তা বিশদে খতিয়ে বলেও দাবি করেছেন এন কে অরোরা৷ তাঁর দাবি, বৈজ্ঞানিক তথ্যেই দেখা গিয়েছে, কোভিশিল্ডের দু'টি ডোজের মধ্যে ফারাক তিন মাসের বেশি হলে তার কার্যকরিতে দাঁড়ায় ৬৫ থেকে ৮৮ শতাংশ৷ ওই বিশেষজ্ঞের দাবি, প্রাথমিক ভাবে কিছু কিছু বৈজ্ঞানিক বিশ্লেষণে দু'টি ডোজের মধ্যে ৪৪ সপ্তাহ তফাতের কথা বলা হয়েছিল৷ কানাডায় তা চার মাস করা হয়েছে৷

    এন কে অরোরা আরও দাবি করেছেন, দু'টি ভ্যাকসিনের ডোজের মধ্যে তফাত এক মাস বৃদ্ধি করলে খুব বেশি হলে ৬ থেকে ৮ কোটি ভ্যাকসিনের ডোজ বাড়তি হাতে থাকবে৷ ফলে তাতে বর্তমান পরিস্থিতির তুলনায় তা খুব একটা বদলাবে না৷ তবে তিনি একই সঙ্গে আশ্বস্ত করেছেন, এক মাসের ব্যবধানে প্রথমে যাঁরা কোভিশিল্ড-এর দু'টি ভ্যাকসিনের ডোজ নিয়েছেন, তাঁদের উদ্বিগ্ন হওয়ার কারণ নেই৷ তাঁদের শরীরেও এই ভ্যাকসিন যথেষ্ট ভাল ভাবে অ্যান্টিবডি তৈরির কাজ করবে৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: