করোনা মোকাবিলায় মহিলাদের হ্যান্ড স্যানিটাইজার, ফিনাইল বানানো শেখাচ্ছে সারগাছি রামকৃষ্ণ মিশন

করোনা মোকাবিলায় মহিলাদের হ্যান্ড স্যানিটাইজার, ফিনাইল বানানো শেখাচ্ছে সারগাছি রামকৃষ্ণ মিশন

নিরলস সেবাকার্য চালিয়ে যাচ্ছে মুর্শিদাবাদের সারগাছি রামকৃষ্ণ মিশন

  • Share this:

#মুর্শিদাবাদ: কলেরা থেকে করোনা... নিরলস সেবাকার্য চালিয়ে যাচ্ছে মুর্শিদাবাদের সারগাছি রামকৃষ্ণ মিশন। করোনা ত্রাসে যখন গোটা বিশ্ব কাঁপছে, সেই সময় সারগাছি রামকৃষ্ণ মিশন নীরবে গ্রামের গরিব মানুষের পাশে থেকে সচেতনতার পাশাপাশি ফিনাইল, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, নিম সাবান তৈরি করার প্রশিক্ষণ দিয়ে চলেছে। কম দামে গ্রামে গ্রামে বিক্রি করা হচ্ছে সেই সব সামগ্রি।

শ্রী শ্রী রামকৃষ্ণ দেব যে প্রথম ১২জনকে সন্ন্যাস দিয়েছিলেন তাঁদের মধ্যে অখন্ডানন্দ মহারাজ ছিলেন অন্যতম। স্বামী অখন্ডানন্দ মহারাজ জনপ্রিয় ছিলেন তাঁর মানবপ্রেমের জন্য। হিমালয়ের নানা অঞ্চলে পদব্রজে এবং তিব্বতে বেশ কয়েকবার গিয়েছিলেন। গুজরাতের রাজকোট থেকে উত্তর ভারতের বিভিন্ন অংশে ঘুরে ১৮৯৫ সালে আলমবাজার মঠ আসেন। ১৮৯৭ সালে তখন মুর্শিদাবাদে দুর্ভিক্ষ । নিজের চোখে দেখেন মানুষের কষ্ট, যন্ত্রণা। এরপরই আর্ত মানুষের দুঃখ কষ্ট জানিয়ে চিঠি লেখেন স্বামী বিবেকানন্দকে। বিবেকানন্দের নির্দেশেই শুরু করেন সেবা কার্য। গড়ে ওঠে সারগাছি রামকৃষ্ণ মিশন।

সেই থেকেই চলছে দাতব্য চিকিৎসালয়, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, কৃষি কাজের প্রশিক্ষণ দেওয়া, মহিলাদেরকে প্রশিক্ষণ দিয়ে স্বনির্ভর গড়ে তোলার কাজ শুরু। মহুলা তে আদি আশ্রমে করোনার কথা চিন্তা করে শুরু হয়েছে ফিনাইল, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, নিম সাবান তৈরির কাজ। এলাকার মহিলারাই সেই কাজ প্রতিদিন করে চলেছেন। স্থানীয় বাসিন্দা লিপিকা হাজরা বলেন, 'গত ১০ বছর ধরে আমরা এই কাজ করে চলেছি। গ্রামের মহিলারাই সাবান, ফিনাইল তৈরি করি। কম দামে তা গ্রামের মানুষের কাছেই বিক্রি করা হয়।' সারগাছি রামকৃষ্ণ মিশনের সচিব মহারাজ বিশ্বময়ান্দ বলেন, 'সারগাছি রামকৃষ্ণ মিশনের প্রতিষ্ঠাতা মহারাজ অখন্ডানন্দ যে পথ দেখিয়েছেন সেই পথ ধরে এগিয়ে চলেছে এই আশ্রম। আর্ত মানুষের সেবাই আমাদের লক্ষ্য। করোনা নিয়ে গ্রামের মানুষ আতঙ্কিত, তাঁদের পাশে দাঁড়িয়ে ভরসা দেওয়াই লক্ষ্য আমাদের।'

First published: March 24, 2020, 12:31 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर