বিশ্ব জুড়ে বিপুল চাহিদা ! ২০টি দেশ থেকে রাশিয়ার কাছে এল করোনার ভ্যাকসিনের প্রি-অর্ডার

রুশ প্রেসিডেন্টের নির্দেশ অন্তত ৬০ শতাংশ রুশ নাগরিকের শরীরে করোনা টিকা দিতে হবে। রাশিয়ার পরিকল্পনা এই বছর অন্তত চার কোটি টিকা বাজারে আনার।

রুশ প্রেসিডেন্টের নির্দেশ অন্তত ৬০ শতাংশ রুশ নাগরিকের শরীরে করোনা টিকা দিতে হবে। রাশিয়ার পরিকল্পনা এই বছর অন্তত চার কোটি টিকা বাজারে আনার।

  • Share this:

    #মস্কো: করোনা ভ্যাকসিন আবিষ্কারে বাজিমাত করে ফেলল রাশিয়া! মঙ্গলবার রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ঘোষণা করলেন, তাঁর স্বাস্থ্যমন্ত্রক এই ভ্যাকসিনকে অনুমোদন দিয়েছে। অনুমোদিত ভ্যাকসিনটি প্রথম প্রয়োগ করা হয়েছে রুশ প্রেসিডেন্টের মেয়ের দেহেই। নতুন তৈরি এই ভ্যাকসিন নিয়ে চাহিদা বিপুল ৷ ইতিমধ্যেই ২০টি দেশ থেকে কোটি কোটি ভ্যাকসিনের প্রি-অর্ডার এসে গিয়েছে তাদের কাছে ৷ অর্ডারের পরিমাণ প্রায় ১ বিলিয়ন বা ১০০ কোটির কাছাকাছি ৷ এমনটাই দাবি রাশিয়ার ৷

    করোনা আবহে দীর্ঘদিন ধরেই ভ্যাকসিন বাজারে আনার প্রস্তুতি চালাচ্ছিল রাশিয়া। একদিকে যখন তুমুল উত্তেজনা অক্সফোর্ড ভ্যাকসিন নিয়ে, তখনই রাশিয়া জানিয়ে দেয় সে দেশে Gamaleya Research Institute ও Russian Defence Ministry যৌথভাবে এই করোনার টিকা তৈরি করে ফেলেছে। রুশ স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী ওলেগ গ্রিদনেভ জানিয়ে দিয়েছিলেন, তৃতীয় পরীক্ষাটির শেষধাপ চলছে। এই ধাপ সম্পূর্ণ হলেই বাজারে আসবে রাশিয়ার করোনা টিকা।

    মস্কোর গামালেয়া ইনস্টিটিউটের এই ভ্যাকসিনের নাম-গাম-কোভিড-ভ্যাক লিও ভ্যাকসিন (Gam-COVID-Vac Lyo vaccine)। তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল না করেই কীভাবে এই ভ্যাকসিন দেশের জনগণের জন্য উপলব্ধ করছে তা নিয়ে একাধিক প্রশ্ন উঠেছিল। যদিও সেই জল্পনায় জল ঢেলেছেন প্রেসিডেন্ট পুতিন স্বয়ং।

    সংবাদসংস্থা এএফপি সূত্রে খবর এদিন পুতিন ঘোষণা করেন, "আজ সকালে পৃথিবীর প্রথম করোনা টিকা রেজিস্টার করল রাশিয়া।" স্বাস্থ্যমন্ত্রী মিখাইল মুরাস্কোকে তিনি ভ্যাকসিনটির কার্যকারিতা সম্পর্কে পুঙ্খানুপুঙ্খ আপডেট দিতে বলেছেন। একই সঙ্গে তিনি আত্মবিশ্বাসী, প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তুলতে এই ভ্যাকসিনের ক্ষমতা প্রশ্নাতীত। এই ভ্যাকসিন প্রস্তুতির সঙ্গে জড়িত সমস্ত কর্মীদেরও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন পুতিন। পুতিনের বিশ্বাস, খুব শিগগিরই গণহারে এই ভ্যাকসিন উৎপাদন করে ফেলতে পারবে রাশিয়া।

    রুশ প্রেসিডেন্টের নির্দেশ অন্তত ৬০ শতাংশ রুশ নাগরিকের শরীরে করোনা টিকা দিতে হবে। রাশিয়ার পরিকল্পনা এই বছর অন্তত চার কোটি টিকা বাজারে আনার। এই মুহূর্তে রুশ প্রশাসন চাইছে, রিস্ক ওয়ার্কার বলয়ে যারা রয়েছেন অর্থাৎ স্বাস্থ্য ও অন্যান্য জরুরি পরিষেবাকর্মীদের এ মাসেই টীকাকরণ করতে। অক্টোবর থেকে টিকাকরণ হবে গণহারে।

    প্রাথমিক ভাবে যারা করোনার বিরুদ্ধে সামনের সারি থেকে লড়াই করছেন তাদের প্রথমে এই ভ্যাকসিন দেওয়া হবে বলে জানা যাচ্ছে। এদিকে রাশিয়ার এই করোনা ভ্যাকসিন এখনও মানব ট্রায়ালের সমস্ত ধাপ উত্তীর্ণ হয়নি বলে অভিযোগ করেছেন গোটা বিশ্বের বিশেষজ্ঞদের একাংশ। তাই এর কার্যকারিতা নিয়ে প্রশ্ন একটা থেকেই যাচ্ছে।

    Published by:Siddhartha Sarkar
    First published: