corona virus btn
corona virus btn
Loading

শুধু প্ৰধানমন্ত্রীই নন, রাষ্ট্রপতিকেও আনফলো করেছে হোয়াইট হাউজ, 'সন্ত্রস্ত': রাহুল গান্ধি

শুধু প্ৰধানমন্ত্রীই নন, রাষ্ট্রপতিকেও আনফলো করেছে হোয়াইট হাউজ, 'সন্ত্রস্ত': রাহুল গান্ধি
এই ছবিটা কি ধূসর হচ্ছে? প্রশ্ন নেটদুনিয়ায়। ফাইল চিত্র

এই ঘটনাকে যথেষ্ট অপ্রীতিকর মনে করছেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধি। তাঁর মতে বিষয়টি নিয়ে উদ্বিগ্ন হওয়ার যথেষ্ট কারণ রয়েছে।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: প্রধানমন্ত্রীই শুধু নন। রাষ্ট্রপতিকেও টুইটারে আনফলো করেছে হোয়াইটহাউজ। আনফলো করা হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর দফতরের টুইট হ্যান্ডেলটিও। এই ঘটনাকে যথেষ্ট অপ্রীতিকর মনে করছেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধি। তাঁর মতে বিষয়টি নিয়ে উদ্বিগ্ন হওয়ার যথেষ্ট কারণ রয়েছে।

বুধবার টুইটারে রাহুল লিখেছেন, " হোয়াইট হাউজের তরফে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর টুইটার আনফলো করার বিষয়টি যথেষ্ট উদ্বেগের। আমার অনুরোধ, বিষয়টিকে মনোযোগ সহকারে বিশ্লেষণ করুক বিদেশমন্ত্রক।" ‌

বুধবারই প্রথম নজরে আসে প্রধানমন্ত্রীর নিজের টুইটার অ্যাকাউন্ট, তাঁর দফতরের টুইট অ্যাকাউন্ট, রাষ্ট্রপতির টুইট এমনকি ভারতীয় দূতাবাসের টুইট অ্যাকাউন্টও আনফলো করে দিয়েছে হোয়াইট হাউজ। ঝড়ের গতিতে বিরূপ সমালোচনা ছড়াতে থাকে সোশ্যাল মিডিয়ায়। ট্রাম্পের কথাতেই হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন-সহ বহু ওষুধ রফতানিতে রাজি হয়েছিল, সে কথাও মনে করিয়ে দেন নেটিজেনদের অনেকে।

কিন্তু কেন এই সক্রিয়তা? সংবাদসংস্থা পিটিআই-কে নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক এক হোয়াইট হাউজ কর্মীর ব্যখ্যা, " প্রধানত হোয়াইট হাউজে আন্তঃদফতর যোগাযোগ রক্ষার জন্যেই টুইটার ব্যাবহার করা হয়। অন্যান্য সংযোগরক্ষার কাজ করা হয় পরিস্থিতির নিরিখে, স্বল্প মেয়াদের জন্য। ডোনাল্ড ট্রাম্পের ভারত সফরের আগে তাই ভারতের গুরুত্বপূর্ণ টুইট অ্যাকাউন্টগুলিকে ফলো করেছিল হোয়াইট় হাউজ।"

এই কৈফিয়তে অবশ্য চিড়ে ভিজছে না। বহু ভারতীয়ই স্পষ্ট বিবৃতি আশা করছেন বিষয়টি নিয়ে।

First published: April 30, 2020, 8:29 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर