corona virus btn
corona virus btn
Loading

নজিরবিহীন সিদ্ধান্ত! বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠ্যক্রমে এবার করোনা অতিমারী...

নজিরবিহীন সিদ্ধান্ত! বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠ্যক্রমে এবার করোনা অতিমারী...

সিলেবাসে বা পাঠ্যক্রমে অন্তর্ভুক্তির পাশাপাশি এই করোনা অতিমারীর উপর পরীক্ষা নেবে বিশ্ববিদ্যালয়।

  • Share this:

#পুরুলিয়াঃ এবার সিলেবাসে ঢুকল করোনা অতিমারী। রাজ্যের একটি বিশ্ববিদ্যালয় এমনই নজিরবিহীন সিদ্ধান্ত নিল। তবে কলকাতা বা কলকাতা সংলগ্ন কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে নয়, পুরুলিয়ার সিধু কানহু বিরসা বিশ্ববিদ্যালয় এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় স্নাতকোত্তর স্তরের ছাত্র-ছাত্রীদের প্রজেক্ট ওয়ার্ক এবার করতে হবে এই COVID-19-এর উপরেই। রাজ্যের কোনও বিশ্ববিদ্যালয় বা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এখনও পর্যন্ত করোনা অতিমারীকে সিলেবাসে অন্তর্ভুক্ত করেনি। গোটা রাজ্যের মধ্যে প্রথম পুরুলিয়ার এই বিশ্ববিদ্যালয় সিলেবাসে বা পাঠ্যক্রমে অন্তর্ভুক্তির পাশাপাশি এই COVID-19-এর উপর পরীক্ষা নেবে।

মূলত স্নাতকোত্তর স্তরের সোশ্যাল সায়েন্সের সমাজবিদ্যা, অর্থনীতি, হিসাবশাস্ত্র, ভূগোল, রাষ্ট্রবিজ্ঞান, দর্শনের মত বিষয়গুলিতে প্রজেক্ট ওয়ার্কের ৫০ নম্বর থাকবে এই করোনাভাইরাসের উপর। অতিমারীর কোন কোন প্রসঙ্গ প্রজেক্টে উল্লেখ করতে হবে প্রজেক্টে? উপাচার্য দীপক কর জানিয়েছেন, "এই বিষয়টি বিভাগগুলি ঠিক করবে। তবে এটা এমনভাবে করা হবে যাতে ছাত্রছাত্রীদের কাছে পুরো বিষয়টি সম্পর্কে গবেষণা করতে পারেন।" তবে শুধু সোশ্যাল সায়েন্সের বিষয় নয়  বাংলা, ইংরেজির মত বিষয়গুলোতেও COVID-19, অভ্যন্তরীণ মূল্যায়ন প্রক্রিয়ার মধ্যে আনা হবে। মূলত বাংলা ইংরেজি ছাত্র-ছাত্রীদের বলা হয়েছে এই প্রসঙ্গের উপর একটি ব্যাখ্যাধর্মী রচনা লিখতে। প্রান্তিক জেলার বিশ্ববিদ্যালয় হয়েও যেভাবে করোনাকে পাঠ্যক্রমের মধ্যে অন্তর্ভুক্তি সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে, তা নিয়ে প্রশংসা করছেন অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলিও।

শুধু COVID-19-কে সিলেবাসের মধ্যে অন্তর্ভুক্তি করেই সীমাবদ্ধ রাখেনি সিধু কানহু বিরসা বিশ্ববিদ্যালয়। গোটা পুরুলিয়া জুড়ে এই বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র-শিক্ষক ও কর্মীরা কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। ইতিমধ্যেই এই বিশ্ববিদ্যালয়ের তরফে তৈরি করা হয়েছে স্যানিটাইজার ও মাস্ক। মূলত পুরুলিয়া জেলার গ্রামীণ অঞ্চলে বিশ্ববিদ্যালয়ের ল্যাবে তৈরি করা স্যানিটাইজার ও মাস্ক পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালের উদ্যোগেই। পাশাপাশি কমিউনিটি কিচেন করে কয়েক হাজার গরিব মানুষের খাবারের ব্যবস্থা করছে বিশ্ববিদ্যালয়। এ প্রসঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য দীপক কর জানিয়েছেন "গোটা বিশ্ব জুড়ে যেভাবে করোনা মহামারী আকার নিয়েছে তাতে সমাজ জীবনে গভীর প্রভাব ফেলেছে। আমাদের তরফ এ তার জন্যেই এই উদ্যোগগুলো নেওয়া হচ্ছে। সেক্ষেত্রে ছাত্র-ছাত্রীদের COVID-19 নিয়ে করা প্রজেক্ট ওয়ার্কগুলোকে একসঙ্গে করে বিশ্ববিদ্যালয়ের তরফে একটি সংস্করণ প্রকাশ করা হবে।"

ইতিমধ্যেই বিশ্ববিদ্যালয় তরফে ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য শুরু করা হয়েছে ই লার্নিং ব্যবস্থা। তার সঙ্গে ছৌ নাচকে ব্যবহার করে বিশ্ববিদ্যালয়ের তরফে করোনাভাইরাস প্রসঙ্গে বিভিন্ন জায়গায় সচেতনতামূলক কর্মসূচি করা হচ্ছে। অযোধ্যা পাহাড়ের বিভিন্ন দুর্গম অঞ্চলে বিশ্ববিদ্যালয়ের তরফে পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে ত্রাণ সামগ্রী।

SOMRAJ BANDOPADHYAY

First published: April 30, 2020, 3:52 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर