corona virus btn
corona virus btn
Loading

লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ, মাস্কে মুখ না ঢাকলে এবার আইনত ব্যবস্থা!

লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ, মাস্কে মুখ না ঢাকলে এবার আইনত ব্যবস্থা!
Photo- Representative

ফ্লেক্স ব্যানারে প্রচার পুরসভার

  • Share this:

#পূর্ব বর্ধমান : শহরের বাসিন্দাদের মাস্ক পরা নিশ্চিত করতে এবার এগিয়ে এলো বর্ধমান পৌরসভা। বাসিন্দাদের মাস্ক  পরার আবেদন জানিয়ে শহরের  বিভিন্ন রাস্তা হোর্ডিং, ব্যানার, পোস্টারে ভরিয়ে দেওয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে শহর জুড়ে লিফলেট ছড়ানোও শুরু করেছে বর্ধমান পৌরসভা কর্তৃপক্ষ। শহরের বিভিন্ন এলাকায় করোনার সংক্রমণ দেখা দিলেও বাসিন্দাদের অনেকেই মাস্ক ছাড়াই শহরের রাস্তায় ঘোরাঘুরি করছেন। সকলকে মাস্ক পরার ব্যাপারে সচেতন করতেই এই প্রচার বলে জানিয়েছে পুরসভা কর্তৃপক্ষ।

করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে নতুন করে প্রচারে নেমেছে বর্ধমান পৌরসভা। সেজন্য শহরের রাস্তাঘাটের দুই পাশ  ব্যানারে হোডিংয়ে ছ্য়লাপ করে ফেলা হয়েছে। তাতে বর্ধমান পৌরসভার কার্যনির্বাহী আধিকারিকের তরফে নাগরিকদের প্রতি আবেদন জানিয়ে বলা হয়েছে, মাস্ক ছাড়া পৌর এলাকায় ঘোরাঘুরি করবেন না। তা অন্যথা হলে আইনত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তাতে বলা হয়েছে, কথা বলুন মাস্ক পরে, মাস্ক খুলে নয়। সেই সঙ্গে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার কথা মনে করিয়ে দেওয়া হয়েছে। হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করারও আবেদন জানানো হয়েছে ওইসব ব্যানার ফ্লেক্স লিফলেটে।

বর্ধমান পৌরসভার চিফ এক্সিকিউটিভ  অফিসার অমিত কুমার গুহ বলেন, শহরের বাসিন্দাদের অনেকের মধ্যেই মুখে মাস্ক বা ফেস কভার ব্যবহারের   সচেতনতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। অথচ দিন দিন শহরের রাস্তায় জনগণের ভিড় বেড়েই চলেছে। তাই সাবধানতা অবলম্বন না করা গেলে শহর জুড়ে যে কোনও সময় সংক্রমণ বেড়ে যেতে পারে। তা রুখতেই বাসিন্দাদের মুখে মাস্ক লাগিয়ে বের হতে বলা হচ্ছে। শহরের বিভিন্ন জায়গায় কন্টেইনমেন্ট জোনে লকডাউন চলছে। এখন একরকম ঘরের পাশেই করোনার সংক্রমণ।

সে ব্যাপারে বাসিন্দাদের সচেতন করতেই ফ্লেক্স ব্যানার পোস্টার লিফলেট ছাপানো হয়েছে। তিনি জানান, এই করোনা আবহে শহরের রাস্তাঘাট যাতে সব সময় পরিচ্ছন্ন ও আবর্জনা মুক্ত থাকে তাও দেখা হচ্ছে। এই সময় মশা বাহিত রোগের প্রাদুর্ভাব বাড়ে। তাই মশার বাড়বাড়ন্ত রুখতে এলাকায় এলাকায় কীটনাশক প্রয়োগ করা হচ্ছে। আগাছা নির্মূলেল কাজ চলছে। তবে শুধু পুরসভার একার পক্ষে শহরকে পরিচ্ছন্ন ও জঞ্জালমুক্ত রাখা সম্ভব নয়, বাসিন্দাদেরও সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিতে হবে।

 Saradindu Ghosh

Published by: Debalina Datta
First published: July 10, 2020, 5:35 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर