• Home
  • »
  • News
  • »
  • coronavirus-latest-news
  • »
  • 'লকডাউন শেষ হলেও ভাইরাস বিদায় নেয়নি', উৎসবে বেপরোয়া না হওয়ার অনুরোধ মোদির

'লকডাউন শেষ হলেও ভাইরাস বিদায় নেয়নি', উৎসবে বেপরোয়া না হওয়ার অনুরোধ মোদির

প্রধানমন্ত্রী মোদি বলেন, ‘ভ্যাকসিন নিয়ে গোটা বিশ্বের নজর রয়েছে ভারতের উপর ৷ এই মুহূর্তে দেশে ৮টি প্রতিষেধকের উপর দ্রুতগতিতে কাজ চলছে ৷ এর মধ্যে এগিয়ে রয়েছে তিনটি প্রতিষেধক ৷ ’

প্রধানমন্ত্রী মোদি বলেন, ‘ভ্যাকসিন নিয়ে গোটা বিশ্বের নজর রয়েছে ভারতের উপর ৷ এই মুহূর্তে দেশে ৮টি প্রতিষেধকের উপর দ্রুতগতিতে কাজ চলছে ৷ এর মধ্যে এগিয়ে রয়েছে তিনটি প্রতিষেধক ৷ ’

করোনা ভ্যাকসিন নিয়েও দেশবাসীকে আশার কথা শুনিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী৷

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: উৎসবের মরশুমে গাছাড়া মনোভাব দেখালেই করোনার বিরুদ্ধে যাবতীয় লড়াই ব্যর্থ হবে৷ জাতির উদ্দেশে ভাষণে বার বার সেকথাই স্মরণ করিয়ে দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি৷ একই সঙ্গে তিনি জানিয়েছেন, ভ্যাকসিন বাজারে এলেই কীভাবে তা প্রত্যেক দেশবাসীর কাছে দ্রুত পৌঁছে দেওয়া যায়, সেই প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে কেন্দ্রীয় সরকার৷

    উৎসবের মরশুমে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেই প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'সময়ের সঙ্গে সঙ্গে অর্থনৈতিক কার্যকলাপও স্বাভাবিক হচ্ছে৷ উৎসবের মরশুমে বাজারও চেনা ছন্দে ফিরছে৷ তবে মনে রাখতে হবে লকডাউন শেষ হলেও ভাইরাস বিদায় নেয়নি৷ শেষ সাত- আট মাসে প্রত্যেক ভারতীয়ের চেষ্টায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের মধ্যে এসেছে৷ তাই এখন গাছাড়া মনোভাব দেখানোর সময় নয়, বরং কীভাবে তা আরও ভাল করা যায়, তা নিশ্চিত করতে হবে৷'

    প্রধানমন্ত্রী দাবি করেন, ভারতে প্রতি ১০ লক্ষ জনসংখ্যায় যেখানে সাড়ে ৫ হাজার লোকের করোনা হয়েছে, সেখানে ব্রাজিল, আমেরিকায় এই সংখ্যাটা ২৫ হাজারের কাছাকাছি৷ মৃত্যুর নিরিখে ভারতে প্রতি ১০ লক্ষে মৃতের সংখ্যা ৮৩, সেখানে আমেরিকা, ব্রাজিল, স্পেনের মতো বহু দেশে তা ৬০০-র বেশি৷ তিনি আরও বলেন, গোটা দেশে করোনা রোগীদের জন্য ৯০ লক্ষের বেশি বেড রয়েছে৷ ১২ হাজার কোয়ারেন্টাইন সেন্টার , ২ লক্ষ ল্যাব রয়েছে৷ খুব শিগগিরই দেশে করোনা পরীক্ষার সংখ্যা ১০ কোটি ছাড়িয়ে যাবে৷ নরেন্দ্র মোদি বলেন, বেশি সংখ্যায় টেস্ট করতে পারাই করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ভারতের বড় শক্তি৷

    প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'চিকিৎসক, নার্স-সহ করোনা যোদ্ধারা বিপুল জনসংখ্যার সেবায় কাজ করছেন৷ এই সময়টা গাছাড়া মনোভাব দেখানোর নয়৷ করোনা বিদায় নিয়েছে এমন ভাবলে ভুল হবে৷ সাম্প্রতিক কালে এমন অনেক ভিডিও, ছবি সামনে এসেছে যাতে দেখা যাচ্ছে বহু মানুষ সতর্কতা বিধি মানছেন না৷ মাস্ক না পরে বাইরে বেরোলে, স্বাস্থ্যবিধি না মানলে নিজের পরিবার, সন্তান, পরিবারের প্রবীণদের বিপদের মুখে ঠেলে দিচ্ছেন৷ এই সময়ে নিজের সুরক্ষার বিষয়ে সবথেকে বেশি জোর দিতে হবে৷ আমেরিকা, ইউরোপের দেশগুলিতে করোনা সংক্রমণের সংখ্যা কমে গিয়েও ফের বাড়তে শুরু করেছে৷ তাই ঢিলেমি দিলে হবে না৷ যতদিন না পর্যন্ত করোনার ভ্যাকসিন আসছে, বিন্দুমাত্র গাছাড়া মনোভাব দেখানো চলবে না৷'

    করোনা ভ্যাকসিন নিয়েও দেশবাসীকে আশার কথা শুনিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী৷ তিনি বলেন, 'বহু বছর পর দেখা যাচ্ছে মানব সভ্যতাকে বাঁচাতে বিশ্বের বহু দেশ ঝাঁপিয়ে পড়েছে৷ ভারতেও করোনার একাধিক ভ্যাকসিন নিয়ে কাজ অনেক দূর এগিয়ে গিয়েছে৷ করোনার ভ্যাকসিন বাজারে এলেই তা প্রত্যেক ভারতীয়ের কাছে কীভাবে দ্রুত পৌঁছে দেওয়া যায়, সেই পরিকল্পনা তৈরি হচ্ছে৷ রোগকে কখনও ছোট করে দেখা উচিত নয়৷ যতক্ষণ ওষুধ মিলছে না, ততক্ষণ কোনও ঢিলেমি নয়৷'

    দেশবাসীকে নবরাত্রি, দশেরা, ইদ, দীপাবলি, ছট পুজোর শুভেচ্ছা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী৷ একই সঙ্গে তিনি বলেন, 'উৎসব সময় আমাদের জীবনে আনন্দ এনে দেয়৷ কিন্তু এখন সামান্যতম গাফিলতি আমাদের অগ্রগতিকে থামিয়ে দিতে পারে৷ সতর্ক হয়ে থাকলেই জীবনে খুশি বজায় থাকবে৷ না হলে উৎসবের মধ্যেই অন্ধকার নেমে আসবে৷ আপনাদের আমি খুশি দেখতে চাই, এই উৎসবের মরশুম আপনাদের পরিবারে আনন্দ এবং সমৃদ্ধি নিয়ে আসুক, আমি এটা চাই৷ সেই কারণেই আপনাদের কাছে করজোড়ে এই অনুরোধ করছি৷'

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: