corona virus btn
corona virus btn
Loading

করোনা আক্রান্ত পুলিশ কর্মীর ছোট্ট মেয়ের জন্মদিন পালন করলেন আরেক পুলিশ কর্মী!

করোনা আক্রান্ত পুলিশ কর্মীর ছোট্ট মেয়ের জন্মদিন পালন করলেন আরেক পুলিশ কর্মী!

প্রতিদিনের মতোই সহকর্মীর খবর নিতে গিয়ে তাঁর আক্ষেপের কথা জানতে পারেন আরও এক পুলিশ কর্মী অমিত দাস ৷ সহকর্মীর মেয়ের জন্মদিনের কথা শুনেই ফোন করেন তাঁর বাড়িতে৷

  • Share this:

#হাওড়া: বাবা বলেছিলেন এই বছর জন্মদিনে অনেক হৈ হুল্লোড় করবেন | অনেক বন্ধুদের বাড়িতে নিমন্ত্রণ করে বাড়িতে কেক কাটা হবে তারপর নাচগান তো আছে, কিন্তু কী জানি সব কিছুই হারিয়ে যেতে থাকল ছোট্ট মেয়েটির চোখের সামনে থেকে | রবিবার "ফাদার্স ডে",  বাবা সঙ্গে নেই৷ মেয়েটি মুচকি হেসে মাকে বলেছিল, 'আমার বাবা তো পুলিশ তাই যেদিন বাবাকে সামনে পাই সেদিন আমার ফাদার্স ডে | কিন্তু পরের দিন অর্থাৎ ২২ মে সেদিন তো আমার জন্মদিন, বাবা কোথায় '? বার বার প্রশ্ন করছিল ছোট্ট মেয়েটি | মায়ের মুখে উত্তর সেভাবে ছিল না শুধু বলেছিলেন যে, সাদা সাদা বড়ো বড়ো জামা পড়া লোকগুলো বাবাকে নিয়ে গেছে৷

তাহলে কী বাবা তার জন্মদিনে আসবে না?  কেক আনবে না ? সকাল থেকে জন্মদিনে মেয়ের হাসি মুখের জায়গায় চোখ ছলছল৷ ছোট্ট মেয়েটির মুখোমুখি হতে ভয় পাচ্ছিলেন মা | কী উত্তর দেবেন মেয়েকে ? সকালেই covid হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে বাবা ফোন করেন মেয়েকে৷ জন্মদিনের শুভেচ্ছা দিয়ে চোখের জলে ভাসিয়েছিলেন হাওড়ার গোলাবাড়ির ট্রাফিক বিভাগের পুলিশ কর্মী | দিন কয়েক আগেই যিনি করোনা যুদ্ধে সামিল হওয়ার দৌলতে নিজেই আক্রান্ত হয়েছেন মারণ রোগে |

প্রতিদিনের মতোই সহকর্মীর খবর নিতে গিয়ে তাঁর আক্ষেপের কথা জানতে পারেন আরও এক পুলিশ কর্মী অমিত দাস ৷ সহকর্মীর মেয়ের জন্মদিনের কথা শুনেই ফোন করেন তাঁর বাড়িতে৷  জানতে পারেন বাবা না আসায় সকাল থেকে ছোট্ট মেয়েটির চোখের জল থামাতে ব্যর্থ পরিবার৷ আর দিদির কান্না দেখে দুই বছরের ছোট্ট বোনটিও জুড়েছে কান্না | এই খবর পাওয়ার পর নিজের ডিউটি শেষে জন্মদিনের উপহার ও বার্থডে কেক নিয়ে সহকর্মীর বাড়িতে হাজির হন অমিত বাবু | ছোট্ট মেয়ের হাতে তুলে দেন কেক আর উপহার৷ বলেন যে, বাবা কাজে ব্যস্ত তাই তার হাত দিয়েই কেক আর পুতুল পাঠিয়ে দিয়েছেন |

কোভিডি ১৯ প্রটোকল মেনেই করোনা আক্রান্ত পরিবারের সংস্পর্শে যেতে পারেননি অমিত বাবু | অমিত বাবু বলেন আমি একজন পুলিশ কর্মী এরকম অনেকদিন গেছে যখন নিজের সন্তানের জন্মদিনে হাজির হতে পারিনি৷ সেই দুঃখের সেই বেদনা আজ কিছুটা হলেও কমে গেল৷ ছোট্ট মেয়ের মুখে হাসি ফোটাতে পেরে | অন্যদিকে হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে পুলিশ বাবার গলায় শোন গেল একটাই কথা৷  'অমিত স্যার কে ধন্যবাদ শুধু আমার ছোট্ট মেয়েটির মুখে নয় আমার গুরুজন হয়ে আমার হৃদয়ের বোঝ কিছুটা হালকা করলেন' |

Published by: Pooja Basu
First published: June 23, 2020, 12:43 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर