corona virus btn
corona virus btn
Loading

লকডাউনে সরকারি নির্দেশ অমান্য করায় দু'দিনে গ্রেফতার হাজার ছাড়ালো !

লকডাউনে সরকারি নির্দেশ অমান্য করায় দু'দিনে গ্রেফতার হাজার ছাড়ালো !
photo source collected

লকডাউনে সরকারি নির্দেশ অমান্য করে রাস্তায় বেরনোর অভিযোগে কলকাতা পুলিশ এখনও পর্যন্ত শুধুমাত্র শহরে এক হাজারেরও বেশি মানুষকে গ্রেফতার করেছে।

  • Share this:

#কলকাতা: করোনা মোকাবিলায় রাজ্য সরকার লকডাউন ঘোষণা করা সত্ত্বেও বেশকিছু মানুষ তা উপেক্ষা করে রাস্তায় নেমেছিলেন। চা খাওয়া থেকে শুরু করে জয়রাইড এমনকী, শহরের রাস্তাঘাট কতটা ফাঁকা তা দেখতেও অনেকে পথে নেমেছিলেন। আর তাতেই উঠেছে সরকারি নির্দেশ অমান্য করার অভিযোগ। লকডাউনে সরকারি নির্দেশ অমান্য করে রাস্তায় বেরনোর অভিযোগে কলকাতা পুলিশ এখনও পর্যন্ত শুধুমাত্র শহরে এক হাজারেরও বেশি মানুষকে গ্রেফতার করেছে।

পুলিশ সূত্রে খবর, ধৃতদের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ১৮৮ ধারায় সরকারি আদেশ উপেক্ষা করার অভিযোগে মামলা করা হয়েছে। এই ধারায় জেল এবং জরিমানার নিদান থাকলেও এটি জামিনযোগ্য ধারা। পুলিশের বক্তব্য, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ যাতে ছড়িয়ে পড়তে না পারে সেজন্যই রাজ্য সরকার লকডাউনের ঘোষণা করেছে। অত্যন্ত জরুরী কাজ ছাড়া কেউ যাতে বাড়ির বাইরে না বেরণ, সেজন্যই এই সিদ্ধান্ত। কিন্তু অনেকেই এই লকডাউনকে গুরুত্ব না দিয়ে আর পাঁচটা বনধের মতোই দেখছে বিষয়টিকে। সেজন্যই তারা জরুরী কারণ ছাড়াই রাস্তায় বেরোচ্ছে। সেজন্যই আইন প্রয়োগ করে তাদের বিরুদ্ধে কড়া আইনি ব্যবস্থা নিয়ে মানুষকে সতর্ক করার চেষ্টা চলছে।

লকডাউনকে উপেক্ষা করে মানুষ যাতে রাস্তায় না বের হন সেজন্য কলকাতা পুলিশ প্রত্যেক থানা এলাকায় মাইকিং করে প্রচার করছে। মানুষকে বার্তা দেওয়ার চেষ্টা চলছে এই লকডাউন মানুষের স্বার্থেই করা হয়েছে। তারপরেও কেউ যদি সরকারি নির্দেশ উপেক্ষা করে রাস্তায় বেরোয় তাদেরকেই গ্রেফতার করা হচ্ছে। লকডাউন ঘোষণা করার পর থেকে বহু ক্ষেত্রেই দেখা গিয়েছে রাস্তায় অনেকে জয়রাইড করতে বেরিয়েছে। তাদেরকে আটকানোর জন্যই বিভিন্ন জায়গায় নাকা চেকিং চলছে। লালবাজারের তরফে পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা টুইট বার্তায় মানুষের কাছে অনুরোধ করেছেন সরকারি নির্দেশ মানার জন্য। তারপরেও বহু মানুষ রাস্তায় বেরনোর জন্যই আইনি ব্যবস্থা নিয়েছে লালবাজার।

শুধু লকডাউন উপেক্ষা করাই নয়, সোশ্যাল নেটওয়ার্ক বা অন্য কোথাও করোনা সংক্রান্ত বিষয়ে কেউ কোনও গুজব ছড়ালে তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিচ্ছে পুলিশ। ইতিমধ্যেই বেশ কয়েকজনকে গ্রেপ্তারও করা হয়েছে। পুলিশের বার্তা, আতঙ্কিত না হয়ে সচেতন হোন। কিন্তু তাই বলে গুজব ছড়ালে আইনি ব্যবস্থার মুখোমুখি হতে হবে।

এতো গেল কলকাতার কথা। রাজ্যের বিভিন্ন জেলাতেও প্রত্যেক থানার তরফে চলছে প্রচার অভিযান। প্রত্যেক থানা এলাকার পুলিশের পক্ষ থেকে মানুষকে লকডাউন মানার জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে। তারপরেও কেউ রাস্তায় বেরলে কিংবা চা দোকানে জটলা তৈরি করলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে জেলা পুলিশ।

এক পুলিশ কর্তা বলেন, "ধরপাকড় শুরু হওয়ায় আশা করা হচ্ছে ধীরে ধীরে কারণ ছাড়া মানুষের রাস্তায় বেরোনোর প্রবণতা কমবে।" মঙ্গলবার জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এদিন রাত বারোটার পর থেকে গোটা দেশজুড়ে লকডাউন ঘোষণা করেছেন। এই লকডাউন যে হালকাভাবে নেওয়া যাবে না তাও স্পষ্ট করে দিয়েছেন তিনি। এরপরেও যদি কোনও মানুষ প্রয়োজন ছাড়া রাস্তায় বেরোন তা হলেও গ্রেফতারিই একমাত্র রাস্তা পুলিশের কাসুজয় পালছে।

সুজয় পাল

First published: March 25, 2020, 1:10 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर