corona virus btn
corona virus btn
Loading

রাজ্য থেকে বন্ধ হতে পারে ১৭ জোড়া মেল, এক্সপ্রেস, প্যাসেঞ্জার ট্রেন !

রাজ্য থেকে বন্ধ হতে পারে ১৭ জোড়া মেল, এক্সপ্রেস, প্যাসেঞ্জার ট্রেন !
Representational Image

চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে ফ্রেট বা পণ্যবাহী ট্রেনের গতি বাড়াতে এই সব ট্রেন বাতিল করে দেওয়া যেতে পারে।

  • Share this:

#কলকাতা: গতি হারাচ্ছে তুফান। লকডাউনের ধাক্কায় যে সব এক্সপ্রেস বা প্যাসেঞ্জার ট্রেন পুরোপুরি বাতিল হতে পারে তার মধ্যে রয়েছে এই তুফান এক্সপ্রেস যা হাওড়া-শ্রীগঙ্গানগর এক্সপ্রেস নামে পরিচিত। গোটা দেশের প্রায় ৭০টি দুরপাল্লার ট্রেন তুলে দেওয়ার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।

পূর্ব রেলের আওতায় রয়েছে এরকমই ৩৪টি ট্রেন। রেল বোর্ড এর প্রিন্সিপাল এগজিকিউটিভ ডিরেক্টরকে চিঠি দিয়ে পূর্ব রেল এরকমই ১৭ জোড়া ট্রেনের তালিকা পাঠিয়ে দিয়েছে। চলতি মাসের ১৯ তারিখ চিফ প্যাসেঞ্জার ট্রান্সপোর্ট ম্যানেজার কে এন চন্দ্র চিঠি পাঠিয়ে ১০ জোড়া মেল এক্সপ্রেস ও ৭ জোড়া প্যাসেঞ্জার ট্রেনের তালিকা পাঠিয়ে দিয়েছেন।  চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে ফ্রেট বা পণ্যবাহী ট্রেনের গতি বাড়াতে এই সব ট্রেন বাতিল করে দেওয়া যেতে পারে।

 

রেল আধিকারিকদের বক্তব্য রেলের ক্ষতির বহর প্রতিদিন বেড়েই চলেছে। লকডাউনের জেরে সেই ক্ষতি আরও বেড়েছে। এই অবস্থায় রেলের আয়ের একমাত্র পথ হল পণ্য বাহী ট্রেন যথাযথ ভাবে চালানো। প্রয়োজনে আরও বেশি সংখ্যায় পণ্যবাহী ট্রেন  সঠিক সময়ে চালানো। ফলে গোটা দেশ জুড়ে যে সব ট্রেন পুরোপুরি বাতিল হতে পারে সেগুলি চালু রাখতে গিয়ে বাকি ট্রেন চলাচলের সময়ে প্রভাব পড়ছে তাই আপাতত  এই সব ট্রেন তুলে দেওয়ার কথা ভাবা হচ্ছে।

যদিও পূর্ব রেলের আধিকারিক জানাচ্ছেন, তালিকা পাঠানো হয়েছে। তবে যতক্ষণ না রেল মন্ত্রক আমাদের ট্রেন চালানো বন্ধ করতে বলছে ততক্ষণ বলা যাবে না এই সব ট্রেন বন্ধ হচ্ছে। যদিও রেল আধিকারিকদের একাংশের বক্তব্য, "পঞ্জাব, দিল্লি বা রামপুরহাট যাওয়ার জন্য একাধিক ট্রেন রয়েছে সেখানে এই কয়েকটি ট্রেন পরিষেবা বাতিল হলে তার প্রভাব যাত্রীদের ওপরে পড়বে না।" যদিও রেল আধিকারিকদের এই বক্তব্য মানতে নারাজ রেল ইউনিয়নগুলি।  একাধিক রেল ইউনিয়নের বক্তব্য, এই সমস্ত ট্রেন আদৌ অলাভজনক নয়। ফ্রেট ট্রেন থেকে আয় বাড়াতে আর বেসরকারি সংস্থা দিয়ে ট্রেন চালাতে গিয়েই এই সব করা হচ্ছে।

আবীর ঘোষাল

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: June 29, 2020, 9:51 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर