করোনা ভাইরাস

?>
corona virus btn
corona virus btn
Loading

বর্ধমানের মতো কাটোয়া, কালনা শহরেও একটানা সর্বক্ষণের লকডাউন চাইছেন বাসিন্দারা

বর্ধমানের মতো কাটোয়া, কালনা শহরেও একটানা সর্বক্ষণের লকডাউন চাইছেন বাসিন্দারা

কালনা-কাটোয়াতেও করোনা সংক্রমণ বাড়ছে, মারণ রোগ ঠেকাতে সাধারণ মানুষ কড়া লকডাউন চাইছেন ৷

  • Share this:

#বর্ধমান:  কালনা কাটোয়া শহরেও একটানা সর্বক্ষণের লকডাউন হক, এমনটাই চাইছেন এই শহরের বাসিন্দারা। পূর্ব বর্ধমানের কালনা ও কাটোয়া শহরে সন্ধ্যা থেকে সকাল পর্যন্ত লকডাউন চলছে। সেই লকডাউনের আওতায় আনা হয়েছে কাটোয়া লাগোয়া  দাঁইহাট শহরকে। বাসিন্দারা বলছেন,শুধুমাত্র সন্ধ্যা থেকে সকাল পর্যন্ত লকডাউনে খুব একটা সুরাহা মিলবে না।এই শহরগুলিতে সন্ধ্যার পর রাস্তায় ভিড় অনেকটাই কমে আসে। অন্যদিকে সন্ধের পর লকডাউন চালু হয়ে যাওয়ায় দিনের বেলায় শহরগুলিতে ব্যাপক ভিড় হচ্ছে। তাই তার থেকে করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা থেকেই যাচ্ছে। সেই সংক্রমণ থেকে বাসিন্দাদের রেহাই দিতে একটানা সাতদিন সবসময়ের লকডাউন করা উচিত বলে মনে করছেন অনেকেই।

পূর্ব বর্ধমানের ভাগীরথী তীরবর্তী শহর কাটোয়ায় এখন বারোটি কন্টেইনমেন্ট জোনে লকডাউন চলছে। একইভাবে বেশ কয়েকটি জোনে লকডাউন চলছে কালনা পৌরসভা এলাকাতেও। কন্টেইনমেন্ট জোনের মধ্যে চলে আসায় কালনা আদালত ও মহকুমা  শাসকের অফিস বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। কালনায়  সরকারি বাস ডিপোতে এক কর্মী করোনা আক্রান্ত হওয়ায় উদ্বিগ্ন সেখানকার অন্যান্য কর্মী, বাস চালকরা। তাই এই দুই শহর এলাকাতেই শুধুমাত্র সন্ধের পর লকডাউন না করে সর্বক্ষণের লকডাউন জরুরি বলে মনে করছেন এই শহরের সচেতন নাগরিকরা।

স্থানীয় বাসিন্দারা বলছেন,কাটোয়া এক ও দু নম্বর ব্লকের বেশ কয়েকজন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। কেতুগ্রাম এক ও দু নম্বর ব্লকে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। উদ্বেগজনকভাবে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে মঙ্গলকোটে। এইসব এলাকা থেকে নানান প্রয়োজনে বাসিন্দারা প্রতিদিন কাটোয়া শহরে যাচ্ছেন। তাদের থেকে শহরে করোনার সংক্রমণ ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থেকেই যাচ্ছে। একইভাবে কালনা এক নম্বর ব্লক, মন্তেশ্বর, পূর্বস্থলী এক ও দু নম্বর ব্লকেও ব্যাপকভাবে সংক্রমণ ধরা পড়েছে। ওই সব এলাকার বাসিন্দারাও নিত্যপ্রয়োজনে কালনা শহরে যাচ্ছেন। তাদের থেকে ওই শহরের বাসিন্দাদের সংক্রমণের আশঙ্কা থেকেই যাচ্ছে। এসব কারণেই সংক্রমণ ঠেকাতে এই শহর এলাকায় সর্বক্ষণের লকডাউন প্রয়োজন বলেই মত সচেতন বাসিন্দাদের।

Saradindu Ghosh

Published by: Debalina Datta
First published: July 22, 2020, 4:52 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर