corona virus btn
corona virus btn
Loading

রেল লাইন হাঁটা বা ঘুমোনোর জায়গা নয়, প্রচারে রেলের বিভিন্ন জোন  

রেল লাইন হাঁটা বা ঘুমোনোর জায়গা নয়, প্রচারে রেলের বিভিন্ন জোন  

শুক্রবার ভোরে মহারাষ্ট্রে ক্লান্ত হয়ে রেললাইনের উপর ঘুমিয়ে পড়েন শ্রমিকরা। তাদের শরীরের উপর দিয়েই চলে যায় মালগাড়ি। মারা যান ১৬ জন শ্রমিক। এর পরেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করে, রেল লাইনের উপর শ্রমিকরা কেন এসে ঘুমিয়ে থাকবেন।

  • Share this:

#কলকাতা: মহারাষ্ট্রে মালগাড়ির ধাক্কায় ১৬ জনের মৃত্যুর পরে নড়েচড়ে বসল ভারতীয় রেলের বিভিন্ন ডিভিশন। রেল লাইনে বসা, হেঁটে যাওয়া আইনত অপরাধ তা বোঝাতে নিজেদের সোশ্যাল মিডিয়া হ্যান্ডেলে সাবধানবার্তা পোস্ট করল রেলের বিভিন্ন ডিভিশন।

শুক্রবার ভোরে মহারাষ্ট্রে ঔরঙ্গাবাদে ক্লান্ত হয়ে রেললাইনের উপর ঘুমিয়ে পড়েন শ্রমিকরা। তাদের শরীরের উপর দিয়েই চলে যায় মালগাড়ি। মারা যান ১৬ জন শ্রমিক। এর পরেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করে, রেল লাইনের উপর শ্রমিকরা কেন এসে ঘুমিয়ে থাকবেন। যদিও এই ঘটনার জেরে পরস্পর বিরোধী নানা বক্তব্য উঠে আসছে। তবে ভারতীয়  রেলের পক্ষ থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, রেল লাইনে বসে থাকা বা লাইন ধরে হেঁটে যাওয়া সবটাই বেআইনি কাজ। পশ্চিমবঙ্গেও পূর্ব ও দক্ষিণ পূর্ব রেলের পক্ষ থেকে তাদের ট্যুইটার হ্যান্ডেলে রেল লাইন ধরে হেঁটে যাওয়া, বসে থাকাকে বে-আইনি বলে উল্লেখ করে পোস্ট করা হয়েছে।

পূর্ব রেলের মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক নিখিল চক্রবর্তী জানান, "অত্যন্ত দুঃখের ঘটনা। কিন্তু সাধারণ মানুষকেও সচেতন হতে হবে। এখন তো যাত্রীবাহী রেল চলাচল করছে না। ফলে সাধারণ মানুষকে আমরা রেল লাইন বা স্টেশনে আসতে বারণ করছি।" একই বক্তব্য দক্ষিণ পূর্ব রেলের। তাদের মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক সঞ্জয় ঘোষ জানান, "শুধুমাত্র পণ্যবাহী ট্রেন এবং শ্রমিক স্পেশাল ট্রেন ছাড়া কিছুই চলছে না। ফলে স্টেশনে আসার বা লাইনে আসার তো কোনও প্রয়োজন নেই।"

গোটা ঘটনা নিয়ে সহানুভূতি থাকলেও, রেল লাইন দিয়ে শ্রমিকদের হেঁটে যাওয়া বা ঘুমিয়ে পড়ার বিষয় মানতে পারছেন না রেলের প্রাক্তন আধিকারিকরাও। রেলওয়ে বোর্ডের প্রাক্তন সদস্য সুভাষ রঞ্জন ঠাকুর বলেন, "সাধারণত এই ধরণের ঘটনায় রেল এগুলিকে দুর্ঘটনা হিসেবে ধরে নেয়। যদিও এটিকে স্পেশাল কেস হিসেবে দেখা হচ্ছে।" তিনি বলেন, "সাধারণ ভাবে রেলের মোটরম্যান চান না কোনও পশু-পাখিরও যেন ধাক্কা  লাগে। আর এক্ষেত্রে এত জন মানুষ ছিলেন লাইনের উপরে।"

কী করে এত বড় একটা ঘটনা ঘটে গেল তা নিয়ে উঠছে নানা প্রশ্ন। লাইনে নজরদারির কোনও অভাব ছিল কিনা সেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করে দিয়েছে।যদিও রেল আধিকারিকরা বলছেন  হাজার হাজার কিলোমিটার রেল লাইনে নজরদারি সব সময় সম্ভব নয়। লাইনের দেখভালের কাজ নিয়ম মেনেই যথাসময় করা হয়। তাই রেল আধিকারিকদের আবেদন লাইন পারাপার, লাইন ধরে হেঁটে যাওয়া ও লাইনে ঘুমোনো বন্ধ হোক। এই বিষয়ে সচেতন হোক জনতা।

Abir Ghoshal

Published by: Bangla Editor
First published: May 9, 2020, 10:25 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर