corona virus btn
corona virus btn
Loading

লকডাউনেও অভুক্ত নয় ভবঘুরেরা, রকমারি পদ রাঁধলেন পঞ্চায়েত প্রধান

লকডাউনেও অভুক্ত নয় ভবঘুরেরা, রকমারি পদ রাঁধলেন পঞ্চায়েত প্রধান
ভবঘুরেদের হাতে তুলে দেওয়া হচ্ছে খাবার৷

শুধু ভবঘুরেদেরই হাতে নয়, করোনা যোদ্ধাদের হাতেও খাবারের প্যাকেট তুলে দেওয়া হয়।

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: এগিয়ে এসেছিলেন ফাঁসিদেওয়ার বিডিও সঞ্জু গুহ মজুমদার। বাজার করা থেকে রান্না। শেষে খাবারও তুলে দিয়েছিলেন। এবারে এগিয়ে এলেন এক গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান। বিডিওর উদ্যোগে অনুপ্রাণিত হয়ে এগিয়ে এলেন বিধাননগর ১  গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান টুলটুলি সরকার। লকডাউনে বিপাকে পড়া ভবঘুরেদের জন্যে রান্না করলেন রকমারি পদ।

লকডাউনের প্রথম দিন থেকেই ওদের পাশে থেকেছেন বিধাননগর ওয়েলফেয়ার সোসাইটির সদস্যরা। অনেকেই তাঁদের জন্মদিন পালন করেন ভবঘুরেদের সঙ্গে। জাতীয় সড়কে। আর তাই অন্তত বিধাননগর থেকে লাগোয়া জেলা উত্তর দিনাজপুরের সোনাপুর পর্যন্ত ৩১ নম্বর জাতীয় সড়কের ধারে থাকা ভবঘুরেদের খাদ্য সংকটের সৃষ্টি হয়নি। উল্টে প্রায় প্রতিদিনই মিলছে মণ্ডা মিঠাই!

লকডাউনের জেরে গ্রাম পঞ্চায়েত অফিস বন্ধ থাকলেও হাজারো ব্যস্ততা রয়েছে। ত্রাণ বিলি থেকে জরুরি পরিষেবা দেওয়া। অনেক ব্যস্ততার ফাঁকেই রবিবারে সামান্য হালকা হতেই সকাল থেকেই নিজেকে রান্নাঘরে বন্দি রাখেন মহিলা পঞ্চায়েত প্রধান। কী ছিল আজকের মেনুতে?

পঞ্চায়েত প্রধান টুলটুলি সরকার নিজের হাতেই রাঁধলেন ভাত, ডাল, পটল, চিংড়ি, চিকেন আর চাটনি! আবার শেষ পাতে ছিল দই এবং মিষ্টিও! পঞ্চায়েত প্রধান জানান, বিডিও সহ অনেকেই ওদের খাইয়ে আসছেন। আর তাই ওদের পাশে দাঁড়াতেই এই ভাবনা। ছিলেন স্বামী বাদল সরকার এবং মেয়ে তানিশা সরকার। মা এবং মেয়ে মিলিয়েই জমিয়ে রান্না করলেন। বিধাননগর বাজার থেকে সোজা ৩১ নং জাতীয় সড়ক ধরে উত্তরদিনাজপুরের সোনাপুর পর্যন্ত ভবঘুরেদের হাতে তুলে দেওয়া হয় রবিবাসরীয় লাঞ্চ!

শুধু ভবঘুরেদেরই হাতে নয়, করোনা যোদ্ধাদের হাতেও খাবারের প্যাকেট তুলে দেওয়া হয়। বিধাননগরের কর্তব্যরত পুলিশ কর্মী এবং স্বাস্থ্য কর্মীদের কাছেও পৌঁছে যায় খাবার। কেননা তাঁরাও আজ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পরিবার ছেড়ে রাস্তায়। লড়ছেন মারণ করোনার বিরুদ্ধে। আগামী ৩১ মে পর্যন্ত দেশজুড়ে চলবে লকডাউন। বাকি দিনগুলিও এভাবেই ওঁদের পাশে থাকবেন সহৃদয় ব্যক্তিরা, আশায় ওয়েলফেয়ার সোসাইটির সম্পাদক বাপন দাস।

Partha Pratim Sarkar

Published by: Debamoy Ghosh
First published: May 17, 2020, 10:35 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर