করোনা ভাইরাস

corona virus btn
corona virus btn
Loading

বয়স ৬২, করোনার ভয়ে ভাঙা কনুই নিয়ে বসে রইলেন ৮ মাস! তারপর...

বয়স ৬২, করোনার ভয়ে ভাঙা কনুই নিয়ে বসে রইলেন ৮ মাস! তারপর...

নয়াদিল্লির ইন্দ্রপস্ত অ্যাপোলো হাসপাতালের চিকিৎসকদের মতে, কনুইয়ের এই ধরণের আঘাত খুবই মারাত্মক আকার ধারণ করতে পারে৷

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: করোনার ভয়ে কুঁকড়ে বসেছিলেন ৮ মাস৷ ভাঙা কনুই নিয়ে সহ্য করে গিয়েছেন অসম্ভব ব্যথা৷ লকডাউনে থাকতে হয়েছে বাড়িতে৷ তারপর সংক্রমণের ভয়ে ৬২ বছরের মহিলা আর সাহস করে বাড়ির বাইরে পা রাখতে পারেননি৷ এতে মারাত্মক গাফিলতি করে ফেলেছেন তিনি৷ একে কনুইয়ের হাড় সরে গিয়েছে, তার সঙ্গে একাধিক ফ্র্যাকচারের ফলে খুবই করুণ দশা ছিল মহিলার৷ তাঁর নাম আখতারি আলি, দিল্লির বাসিন্দা৷

নয়াদিল্লির ইন্দ্রপস্ত অ্যাপোলো হাসপাতালের চিকিৎসকদের মতে, কনুইয়ের এই ধরণের আঘাত খুবই মারাত্মক আকার ধারণ করতে পারে৷ এর দীর্ঘ মেয়াদী ফল খুব খারাপ, এমনকী হতে পারে পক্ষাঘাতও৷ তাই এই রোগের চিকিৎসা অবিলম্বে করা উচিৎ৷

অন্যদিকে আখতারি আলির কোমরবিডিটি ছিল৷ ষাটোর্দ্ধ মহিলার একদিকে যেমন ছিল ডায়বেটিস, তেমনই তিনি অ্যান্টি ডিপ্রেসেন্ট ওষুধও খান নিয়মিত৷ ফলে করোনা সংক্রমণের ভয় কয়েকগুণ বেশি ছিল তাঁর৷ জানিয়েছেন ডাঃ বিপুল বিজয়, ইন্দ্রপস্থ অ্যাপোলো হাসপাতালের অস্থিরোগ বিশেষজ্ঞ৷ তাই তাঁর অস্ত্রপচার করতে হয়েছে খুবই সন্তপর্ণে৷

একদিকে যেমন করোনার ঝুঁকি থেকেছে, তেমনই ডায়বেটিস নিয়ন্ত্রণ করে চলে অস্ত্রোপচার৷ এতদিন ফেলে রাখার ফলে কনুই পুরোপুরি ক্ষয়ে যায়৷ ফলে কনুই প্রতিস্থাপন (elbow replacement) করতে হয়৷ যা বেশ খরচ সাপেক্ষ এবং বিরল অস্ত্রোপচার৷

করোনার ফলে অনেকেই হাসপাতালে আসতে ভয় পাচ্ছেন৷ তাই বহু রোগের সঠিক চিকিৎসা হচ্ছে না৷ জানিয়েছেন ডাঃ বিজয়৷ হাসপাতাল সূত্রের খবর ২০ শতাংশ মানুষ আসছেন দীর্ঘ লিগামেন্টের সমস্যা নিয়ে৷ গত ২ মাসে ১০ থেকে ১৫ জন নিয়মিত আসছেন যেই সংখ্যাটা করোনার আগের সময়ের থেকে খুবই নগন্য৷

Published by: Pooja Basu
First published: November 9, 2020, 8:55 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर