corona virus btn
corona virus btn
Loading

করোনাকে হারিয়ে ঘরের মেয়ে আজ ঘরে, চোখের জলে ভাসল কার্শিয়াং

করোনাকে হারিয়ে ঘরের মেয়ে আজ ঘরে, চোখের জলে ভাসল কার্শিয়াং
করোনাকে হারিয়ে বাড়ি ফিরলেন প্রতীকা।

প্রতীকার মতো বহু মানুষের জন্যেই ফুলের তোড়ায়, চোখের জলে অপেক্ষমান এলাকাবাসীরা। যোদ্ধার এই সম্মানই তো প্রাপ্য।

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: স্রেফ স্মৃতিটুকু আকড়েই এক মাসের বেশি সময় ওঁরা করোনা রোগীদের বাঁচাতে ওরা ঘর ছেড়েছিলে। কারও সন্তান দুধের বায়না করছে। কারও ঘরে মৃত্যুপথযাত্রী মা। কিন্তু করোনা যুদ্ধের এই সেনানীরা সব জাগতিক প্রয়োজনীয়তাকে তুচ্ছ করেই লড়ে গিয়েছেন এতদিন। বাড়ি ফেরেননি কেউ। সেবা করতে গিয়ে নিজেরাই সংক্রমিত হয়েছেন। ক্রমে বদলেছে ছবিটা। করোনা যুদ্ধ জয়ের সবুজ সংকেত পেয়ে তাই এবার ঘরে ফিরলেন কার্শিয়াংয়ের তিনধরিয়া অঞ্চলের এক নার্স, প্রতীকা প্রধান। এই করোনা যোদ্ধাকে চোখের জলে বরণ করল গোটা গ্রাম। আবেগে ভাসল আট থেক আশি সকলে। ঝড়ের বেগে ভাইরাল হতে শুরু করেছে এই ভিডিও। সাংসদ-অভিনেত্রী নুসরত নিজের সোশ্যাল মিডিয়াতেও এই ভিডিও শেয়ার করেছেন।

কার্শিয়াংয়ের করোনা রোগীর চিকিৎসা করতে গিয়ে করোনায় আক্রান্ত হন প্রতীকা। সেই যুদ্ধে অবশেষে জয় এসেছে। বহুদিন পরে আজ তিনি বাড়ি ফেরার সুযোগ পেলেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে ভিডিওটিতে দেখা যায় প্রতীকা গাড়ি থেকে নামতেই তাঁর এলাকার বাসিন্দারা পুষ্পবৃষ্টি শুরু করে। অনেকে আবেগ চেপে রাখতে না পেরে চোখের জলও ফেলেন। প্রকৃত যোদ্ধার মর্যাদায় তাঁকে বরণ করে নেওয়া হয়।

করোনার শিলিগুড়ির মাটিগাড়ায় হিমাচল বিহারে একটি বেসরকারি নার্সিংহোম অধিগ্রহণ করে করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসা শুরু করা হয়। তালিকায় প্রথম ছিলেন কালিম্পংয়ের সেই প্রৌঢ়া। তিনি প্রাণে না বাঁচলেও, দিনরাত এক করে পরিশ্রম করে করোনামুক্ত করা হয় তাঁর পরিবারের সদস্যদের। চিকিৎসার সঙ্গে যুক্ত স্বাস্থ্য কর্মীরা বাড়ি যাওয়ার আশা ছেড়ে দেন। পালা করে কোয়ারেন্টাইনে যাওয়া শুরু হয়। সংক্রমণের ফলেই অসুস্থ হয়ে পড়েন প্রতীকা।

লড়াই করে সুস্থ হয়েছেন তিনি আজ। সেই অসম যুদ্ধও অনেকটাই থেমেছে। প্রতীকার মতো বহু মানুষের জন্যেই ফুলের তোড়ায়, চোখে র জলে অপেক্ষমান এলাকাবাসীরা। যোদ্ধার এই সম্মানই তো প্রাপ্য।

First published: April 30, 2020, 11:54 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर