Home /News /coronavirus-latest-news /
করোনা গ্রাফ বেড়েই চলছে শিলিগুড়িতে! বাড়ছে মারাত্মক উদ্বেগও...

করোনা গ্রাফ বেড়েই চলছে শিলিগুড়িতে! বাড়ছে মারাত্মক উদ্বেগও...

Reprersentative Image

Reprersentative Image

শৈলশহরে ফের ২ আক্রান্তের খোঁজ মিলেছে। ২ জনেই পুর এলাকারই বাসিন্দা। সম্প্রতি আমেরিকা থেকে ফিরে এসছেন। অসুস্থ বোধ করায় লালারসের নমুনা পাঠানো হয় মেডিকেলের ল্যাবে। রিপোর্টে পজিটিভ এসছে।

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: থাবা থামেনি। উল্টে গ্রাস করছে শহরকে! এক ওয়ার্ড থেকে অন্য ওয়ার্ডে ক্রমেই জাল বিস্তার করে চলেছে। গ্রাফ ক্রমবর্ধমান ঊর্ধমুখী! নতুন করে পাহাড় ও সমতল মিলিয়ে ১দিনে আক্রান্ত ৩৯! বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের আশঙ্কা ক্রমশ স্পষ্ট হচ্ছে। লকডাউন মানেনি শিলিগুড়িবাসী। তাই আক্রান্তের গ্রাফ আরও বাড়বে। বলেছেন বিশিষ্ট চিকিৎসক অভিজিৎ চৌধুরী। তা ধীরে ধীরে ছবির মতো পরিস্কার হচ্ছে। জুলাইয়ের ১ থেকে ৯ পর্যন্ত পাহাড় ও শিলিগুড়ি পুরসভা মিলিয়ে আক্রান্ত ২৮৭ জন! অর্থাৎ, গড়ে প্রতিদিন আক্রান্ত হচ্ছেন ৩১ জন! এই তথ্যটুকুই চিন্তা বাড়ানোর জন্যে যথেষ্ট!

শৈলশহরে ফের ২ আক্রান্তের খোঁজ মিলেছে। ২ জনেই পুর এলাকারই বাসিন্দা। সম্প্রতি আমেরিকা থেকে ফিরে এসছেন। অসুস্থ বোধ করায় লালারসের নমুনা পাঠানো হয় মেডিকেলের ল্যাবে। রিপোর্টে পজিটিভ এসছে। এদিকে আক্রান্তের তালিকায় এবার জুড়লো সেনা ছাউনিও! এর আগে সি আই এস এফ জওয়ান আক্রান্ত হয়েছিলেন। এবারে আক্রান্ত মাটিগাড়ার সেনা ছাউনির ৫ জন! বাকি ৩২ জন শিলিগুড়ি পুর এলাকার বাসিন্দা।

শিলিগুড়ি পুরসভা ছাপিয়ে যাচ্ছে জেলার পাহাড় ও গ্রামীণ এলাকাকে। এদিন সবচাইতে বেশি আক্রন্ত ৪ নং ওয়ার্ড। একদিনে আক্রান্ত ৯ জন। ইতিমধ্যেই ওই ওয়ার্ডটিতে লকডাউন শুরু হয়েছে। কেন পুর এলাকায় আক্রান্তের গ্রাফ ঊর্ধমুখী? চিকিৎসকদের দাবি, শহুরে লোকেরা না মানছে সোশ্যাল ডিস্টেনশিং, না পড়ছেন মাস্ক। বহাল তবিয়তে ঘুরে বেড়াচ্ছেন । যা শহরকে কোন জায়গায় আগামী দিনে পৌঁছে দেবে, জানা নেই। আর কবে সচেতন হবে পুরবাসী? প্রশ্ন ঘুরছে চারদিকে। কোনও হেলদোলই চোখে পড়ছে না। শহরে একের পর এক বাজার বন্ধ হচ্ছে। তবুও সচেতন হচ্ছেন না মানুষ৷ শহরজুড়ে কড়া লকডাউন ছাড়া কোনো বিকল্প পথ খোলা নেই। এদিকে সুস্থতার হারও বাড়ছে। বৃহস্পতিবার শিলিগুড়ির দুই কোভিড হাসপাতাল থেকে ২৫ জন সুস্থ হয়ে ফিরেছেন ঘরে।

Published by:Pooja Basu
First published:

Tags: Coronavirus, COVID19

পরবর্তী খবর