মমতার করোনা টিকা কর ছাড়ের আর্জির উত্তর ১৬ টি ট্যুইটে ফেরালেন নির্মলা

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও নির্মলা সীতারামনের পত্রযুদ্ধ।

তাঁর ব্যখ্যা, টিকায় ৫ শতাংশ ও ওষুধে ১২ শতাংশ কর ছাড় দেওয়া জরুরি এই জিনিসগুলির দামবৃদ্ধি রোখার প্রশ্নে।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: কোভিড সরঞ্জাম, টিকা, ওষুধে কর ছাড়ের আবেদন নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের লেখা চিঠির জবাব কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই ফেরালেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন। ট্যুইটারে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের চিঠিটি তুলে ধরে নির্মলা সীতারামন বিশদে উত্তর দিয়েছেন। ১৬ টি ট্যুইটে নির্মলা যে যুক্তি দিয়েছেন তার নির্যাস, কোভিড পরিস্থিতিতে বহু জিনিসের উপর থেকেই আমদানি শুল্ক ও স্বাস্থ্যের কর তুলে নিয়েছে কেন্দ্র। এমনকি ছাড় দেওয়া হয়েছে জিএসটিতেও। তাঁর ব্যখ্যা, টিকায় ৫ শতাংশ ও ওষুধে ১২ শতাংশ কর ছাড় দেওয়া জরুরি এই জিনিসগুলির দামবৃদ্ধি রোখা সুনিশ্চিত করতে।

    নির্মলার যুক্তি বিনামূল্য সরবরাহ করা হবে এমন দ্রব্যগুলির উপর থেকে আমদানি শুল্ক তুলে নেওয়া হয়েছে। অক্সিজেন হোক বা রেমডিসিভির এগুলি বিনামূল্যে এনে বিনামূল্যেই বিতারণ করা যাবে। এর জন্য কোনও কর দিতে হবে না কোনও পক্ষকেই। কিন্তু টিকা ও সরঞ্জামের ক্ষেত্রে কর তোলা সম্ভব নয়।

    এরই পাশাপাশি নির্মলা অঙ্ক কষে দেখিয়ে দিয়েছেন যে এই সরঞ্জাম বা টিকার থেকে যে জিএসটি পাওয়া যাবে তাতে কেন্দ্রর চেয়ে লাভ বেশি রাজ্যের। কারণ ১০০ টাকায় ৭০ টাকা ৫০ পয়সা পাবে রাজ্য। বাকিটা যাবে কেন্দ্রের কোষাগারে। নির্মলার স্পষ্ট যুক্তি এই কর না থাকলে সাধারণ মানুষকে বেশি দাম দিতে হবে।

    প্রসঙ্গত এদিনের চিঠিতে মমতা লিখেছিলেন, 'আমরা সবরকমভাবে চেষ্টা চালাচ্ছি করোনা পরিস্থিতির সামলানোর। রাজ্যের মানুষ যাতে দরকারের সময় অক্সিজেন ও সমস্ত প্রয়োজনীয় ওষুধ পান, তা নিশ্চিত করার চেষ্টা চলছে। এই পরিস্থিতি বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনও এগিয়ে এসেছেন মানুষকে সময়মতো অক্সিজেন পৌঁছে দিতে। কিন্তু অক্সিজেন ও ওষুধের চাহিদা ও সরবরাহের মধ্যে বিপুল ফারাক লক্ষ্য করা যাচ্ছে রাজ্যে। রাজ্যের কিছু করার নেই, তাই কেন্দ্রের কাছে অনুরোধ, করোনার জন্য যে চিকিৎসা সরঞ্জাম প্রয়োজন হয়, সেই সমস্ত কিছুতে কর ছাড় দেওয়া হোক। একইসঙ্গে জীবনদায়ী ওষুধ ও সরঞ্জামের সরবরাহের ক্ষেত্রেও নির্দিষ্ট সীমা তুলে দেওয়া হোক। তাতে আমরা করোনার মোকাবিলা করতে এগিয়ে থাকব।'

    Published by:Arka Deb
    First published: