করোনা আতঙ্ক কাটাতে শিলিগুড়িতে বাইক অ্যাম্বুলেন্সে নিয়ে ছুটে বেড়াচ্ছেন রাকেশ

করোনা আতঙ্ক কাটাতে শিলিগুড়িতে বাইক অ্যাম্বুলেন্সে নিয়ে ছুটে বেড়াচ্ছেন রাকেশ
  • Share this:

Partha Sarkar

#শিলিগুড়ি: সামনে করোনা সতর্কতা নিয়ে বড় পোস্টার। করোনা ভাইরাস নিয়ে শহরবাসীকে সচেতন করে তুলতে পথে নামলেন এক সমাজসেবী যুবক। সঙ্গী বাইক এম্বুলেন্স। করোনা আতঙ্কে কাঁপছে শহরবাসী। ইতিমধ্যেই সরকারী এবং বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে ৩১ মার্চ পর্যন্ত। বড় জমায়েত করার ওপরও নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। কড়া সতর্কতা দেশজুড়ে। প্রতিদিনই আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। স্বাভাবিকভাবে আতঙ্কও ছড়াচ্ছে। অনেকেই বাড়ি থেকে বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া বেরচ্ছে না।

এই আতঙ্ক কাটাতেই শিলিগুড়ি শহর চষে বেড়ালেন সমাজসেবী রাকেশ দত্ত। সঙ্গে ছিলেন আরো দুই-তিন জন সহ কর্মী। অযথা আতঙ্কিত না হওয়ার পরামর্শ দিলেন তাঁরা। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক ও রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের নির্দেশিকা মেনে চলার পরামর্শ দিলেন শহরবাসীকে। করোনার উপস্বর্গ বলতে যা বলা হয়েছে তা অনুভব করলে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়ার অনুরোধ জানান রাকেশ। করোনা সতর্কতা হিসেবে কী করবেন, আর কী করবেন না তা বিষদে বোঝালেন শহরবাসীকে। অনেক পড়ুয়াই আতঙ্কে প্রাইভেট টিউশনে যাচ্ছে না। তাদের অভিভাবকদের বোঝান সমাজকর্মীরা। যাতে ফের টিইশনমুখো হয় পড়ুয়ারা।

অযথা আতঙ্ক না ছড়ানোরও পরামর্শ দেন সমাজসেবীরা। করোনা নিয়ে একটা ভুল ধারণা রয়েছে অনেকের মধ্যেই। তার জেরেই ঘরবন্দী সাধারণ মানুষেরা। তাঁদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে আতঙ্ক কাটিয়ে তোলার চেষ্টা করলেন রাকেশবাবু। মাস্ক পড়তে হবে। তবে কী ধরনের মাস্ক পড়তে হবে তাও বোঝান। সরকারীভাবেও স্বাস্থ্য দপ্তর হোর্ডিং, ব্যানার, লিফলেট বিলি করছে।

তবু করোনা কাঁটায় আটকে সাধারণ বাসিন্দারা। সেই আতঙ্ক দূরে সরিয়ে রেখে সতর্কতা অবলম্বন করে স্বাভাবিক জনজীবন ফিরিয়ে আনার বার্তা দেন তাঁরা। রাকেশ জানান, করোনা নিয়ে আতঙ্ক কাটিয়ে সচেতনতা গড়ে তুলতেই পথে নেমেছেন। সমাজসেবী যুবকদের এহেন উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন শহরবাসী। স্থানীয় বাসিন্দা পারুল দাস জানান, করোনা নিয়ে ভয় অনেকটাই কাটিয়ে তোলা গেল। নিকিতা চক্রবর্তী জানান, ভালো উদ্যোগ। করোনা নিয়ে অনেক অজানা তথ্য সামনে এল।

First published: March 15, 2020, 4:35 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर