করোনা সতর্কতা: স্বাস্থ্য কর্মীদের হাতে মাস্ক, গ্লাভস, হ্যান্ড স্যানিটাইজার তুলে দিল স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন

উত্তরবঙ্গেও বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। মোকাবিলায় তৈরি উত্তরবঙ্গ মেডিকেল।

উত্তরবঙ্গেও বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। মোকাবিলায় তৈরি উত্তরবঙ্গ মেডিকেল।

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: করোনার প্রকোপ বাড়ছে সর্বত্রই। রাজ্যেও আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। করোনা মোকাবিলায় তৎপর রাজ্য প্রশাসন। বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর। চিকিৎসায় সাড়াও দিচ্ছেন আক্রান্ত রোগীরা। ইতিমধ্যেই বেশ কয়েকজন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। উত্তরবঙ্গেও বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। মোকাবিলায় তৈরি উত্তরবঙ্গ মেডিকেল।

প্রথম থেকেই উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়ে আসছে তাদের কাছে পর্যাপ্ত স্বাস্থ্য সরঞ্জাম নেই। করোনা প্রতিরোধক মাস্ক, গ্লাভস-সহ অন্যান্য সামগ্রী অপ্রতুল। এ নিয়ে বিক্ষোভও দেখিয়েছে মেডিকেলের নার্সিং স্টাফরা। রাজ্যের কাছেও আর্জি জানিয়েছেন মেডিকেল কর্তৃপক্ষ। কেননা প্রকোপ বাড়ায় কোভিড-১৯ স্পেশাল হাসপাতাল চালু করা হয়েছে।

একাধিক কোয়ারেন্টাইন সেন্টার, আইসোলেশন ওয়ার্ড চালু করা হয়েছে। স্বাভাবিকভাবেই বাড়ছে করোনা প্রতিরোধক স্বাস্থ্য সরঞ্জামের চাহিদা। ইতিমধ্যেই রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর পিপিই, মাস্ক, গ্লাভস দিয়েছে মেডিকেল কর্তৃপক্ষের হাতে। আগামী ২-৩ দিনের মধ্যে আরও কিছু করোনা প্রতিরোধক কিট আসছে বলে গতকাল মঙ্গলবারই জানিয়েছেন রাজ্যের পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেব।

এছাড়া বিভিন্ন সংগঠনও মেডিকেল সুপারের হাতে হ্যান্ড স্যানিটাইজার, মাস্ক তুলে দিয়েছে। এবার এই কাজে এগিয়ে এল শিলিগুড়ির মণীষা নন্দী ফাউন্ডেশনের সদস্যরা। আজ, বুধবার তারা স্বাস্থ্য সামগ্রী তুলে দেয় মেডিকেল কর্তৃপক্ষের হাতে। এদিন তারা মাস্ক, গ্লাভস, ক্যাপস, হ্যান্ড স্যানিটাইজার তুলে দিয়েছে মেডিকেল সুপারের হাতে। সংগঠনের সদস্য মনোজ ভার্মা জানান, মেডিকেলের পাশাপাশি আরও কয়েকটি স্বাস্থ্য কেন্দ্রেও এই ধরনের স্বাস্থ্য সামগ্রী তুলে দেওয়া হয়েছে। নকশালবাড়ি গ্রামীন হাসপাতাল, মাটিগাড়া ব্লক হাসপাতাল, নকশালবাড়ি আই সি ডি এস কেন্দ্র এবং বাগডোগরা গ্রামীন হাসপাতালের সুপারের হাতেও মাস্ক, গ্লাভস, হ্যান্ড স্যানিটাইজার তুলে দেওয়া হয়েছে। আগামী দিনেও কোভিড-১৯ মোকাবিলায় হিরোদের হাতে এই ধরনের সামগ্রী তুলে দেওয়া হবে বলে সংগঠন সূত্রে জানা গিয়েছে। সবমিলিয়ে করোনা মোকাবিলায় কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করছে সরকারি, বেসরকারি সংগঠন।

Published by:Siddhartha Sarkar
First published: