corona virus btn
corona virus btn
Loading

একবারে ছাড়ছে না করোনা!‌ মেডিক্যাল কলেজের সহকারী সুপার দু’‌বার করোনা আক্রান্ত

একবারে ছাড়ছে না করোনা!‌ মেডিক্যাল কলেজের সহকারী সুপার দু’‌বার করোনা আক্রান্ত

৭ দিন কাজ করার পর তাঁর হঠাৎ করেই ডায়রিয়া, কাশি শুরু হয়। আবারও তাঁকে মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে এসে করোনা পরীক্ষা করলে দেখা যায় তার রিপোর্ট পজিটিভ।

  • Share this:

#‌কলকাতা:‌ গত ৭ মে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল করোনা হাসপাতাল হিসেবে চিহ্নিত হওয়ার পর থেকে নানা বিতর্ক পিছু ছাড়ছে না। এর আগে মেডিক্যাল কলেজের জুনিয়ার ডক্টর, ছাত্রছাত্রীদের একাংশ নন কোভিড বা করোনা আক্রান্ত নন, এমন রোগীদের ভর্তি করার দাবিতে আন্দোলনে নামেন। সব মিলিয়ে প্রায় প্রতিদিনই খবরের শিরোনামে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ। করোনা আবহ শুরু হওয়ার পর থেকে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজের বেশ কয়েকজন চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী আক্রান্ত হন নভেল করোনা ভাইরাসে। প্রথমদিকে আতঙ্কের আবহ ছিল হাসপাতাল জুড়ে। যদিও সময়ের পরিপ্রেক্ষিতে তা অনেকটাই স্তিমিত হয়ে যায়। নিয়ন্ত্রণে চলে আসে সেখানকার পরিস্থিতি।

এরই মধ্যে মেডিক্যাল কলেজের এক সহকারি সুপারের দ্বিতীয়বার করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবরে চাঞ্চল্য ছড়ালো। রিপন স্ট্রিটের বাসিন্দা ওই সহকারী সুপার এবং আরও এক সুপার, দুজনেই বেশ কয়েকদিন আগে করোনা পজিটিভ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন। তবে চিকিৎসার পর সাত দিন নতুন করে কোনো উপসর্গ না থাকায় তাঁদের সাতদিন পর হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হয় এরপর তাঁদের বাড়িতেই আইসোলেশন বা নিভৃতাবাসে থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়। এর মধ্যে তিনি আরও একবার করোনা পরীক্ষা করে দেখেন যে রিপোর্ট নেগেটিভ। এরপর সেই সহকারী সুপার হাসপাতালে এসে কাজে যোগ দেন। ৭ দিন কাজ করার পর তাঁর হঠাৎ করেই ডায়রিয়া, কাশি শুরু হয়। আবারও তাঁকে মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে এসে করোনা পরীক্ষা করলে দেখা যায় তার রিপোর্ট পজিটিভ। তবে এবার করোনা আক্রান্ত হওয়ার রিপোর্ট পাওয়ার পর তার কোনোরকম উপসর্গ না থাকায় বাড়িতেই আইসোলেশনে থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। অন্যদিকে মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আরও একজন সহকারী সুপার করোনা আক্রান্ত হয়েছেন।

কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে সুপার তথা উপাধ্যক্ষ ডক্টর ইন্দ্রনীল বিশ্বাস জানান,দ্বিতীয় বার করোনা আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা নিঃসন্দেহে ব্যতিক্রমী, তবে কি কারণ সেটা বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা খতিয়ে দেখবেন। এই সহকারী সুপার এখন সুস্থই আছেন। অন্যদিকে মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রোগী কল্যাণ সমিতির চেয়ারম্যান নির্মল মাজি জানান, গোটা বিষয়টি সল্টলেকে স্বাস্থ্য ভবনে জানানো হয়েছে। কেন এরকম হল, তা নিশ্চয়ই খতিয়ে দেখা হবে। এনিয়ে অযথা আতঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই। মেডিক্যাল কলেজে রোগের চিকিৎসা আরও ভালোভাবে করা হবে।

ABHIJIT CHANDA

Published by: Uddalak Bhattacharya
First published: August 5, 2020, 3:31 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर