corona virus btn
corona virus btn
Loading

#Coronavirus: ৬ মিনিটের এদিক-ওদিক, ৫১ বছরের অমর প্রেমকে ফের মিলিয়ে দিল মৃত্যু

#Coronavirus: ৬ মিনিটের এদিক-ওদিক, ৫১ বছরের অমর প্রেমকে ফের মিলিয়ে দিল মৃত্যু
Photo- Collected

করোনা ভাইরাসে মারা গিয়েছেন বাবা-মা দুজনেই ছেলে ভিডিওবার্তায় যা বললেন...

  • Share this:

#ফ্লোরিডা: নোওয়া ও অ্যালি এই দম্পতি ঘুমতে ঘুমতে মারা গিয়েছিলেন ৷ ফ্লোরিডাতে সেরকমই দুঃখের ঘটনা ঘিরে দুঃখের ছায়া পুরো পৃথিবী ৷ মর্মস্পর্শী সেই ঘটনা এখন কাঁদাচ্ছে নেটিজেনদের ৷

৫১ বছরের বিবাহিত জীবনের শেষ হল ৬ মিনিটের এদিকে-ওদিকে ৷ স্টুয়ার্ট বেকার ৭৪ ও আদ্রিয়ান বেকার ৭২ বছরের স্বামী-স্ত্রী ৷ করোনাভাইরাস সংক্রান্ত কারণে প্রাণ হারালেন দুজনেই৷ তাঁদের ছেলে বাডি বেকার সিএনএন -কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি এই করুণ ঘটনার কথা জানিয়েছেন ৷ তিনি বিবরণ দিয়েছেন কীভাবে তাঁর বাবা-মায়ের মৃত্যু হল ৷ আর একইসঙ্গে মারণ এই রোগ নিয়ে জনসচেতনতা বাড়াতে চেয়েছেন তিনি ৷

তিনি জানিয়েছেন মার্চের মাঝমাঝি সময়ে তাঁর বাবা-মায়ের শরীরটা হঠাৎ করেই খারাপ হয় ৷ সে সময় তাঁদেরকে বাড়িতেই কোয়ারেন্টাইনে থাকার পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা ৷ কয়েকদিন বাদে বাবা-র শরীর বাড়াবাড়ি রকমের খারাপ হওয়ায় তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়৷ কিন্তু মায়ের তখনও জ্বর ছিল না তাই তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়নি ৷ পরিবার আশা করেছিল দ্রুত সেরে ফের বাড়িতে ফিরে আসবেন স্টুয়ার্ট বেকার ৷

কিন্তু হাসপাতাল থেকে বাডিকে  জানানো হয় যে তাঁর বাবার কোভিড ১৯ -র রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে ৷ তাঁরা এও জানান সম্ভবত তাঁর বাবাকে বাঁচানো আর সম্ভব হবে না ৷

মা-কে অবশ্য এই মন খারাপ করা খবর জানাননি তাঁর সন্তান ৷ কিন্তু সুরক্ষা পদক্ষেপ হিসেবে তাঁকেও নিয়ে যাওয়া হয় হাসপাতালে ৷ তাঁর মা-কে পরীক্ষা করে চিকিৎসকরা জানান তাঁর মায়ের রক্তে অক্সিজেনের পরিমাণ খুবই কম, ফলে তাঁকে বাঁচানোও চাপের ৷

দুজনের পরিস্থিতি ক্রমশ অবনতির দিকে যাচ্ছে দেখে পরিবারের পক্ষ থেকে দুজনকেই একই রুমে নিয়ে আসা হয় বিশেষ হাসপাতালে ৷ তাদেরকে  স্বস্তি দিতে ভেন্টিলেশনও খুলে দেওয়া হয় ৷ কয়েক মিনিটের এদিক ওদিক এই পৃথিবী ছেড়ে চলে যান ৷

করোনা ভাইরাসের অতিমারি কতটা মারাত্মক তা বোঝাতে নিজের বাবা-মায়ের এই মৃত্যুর বিবরণ পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে দিয়েছেন তিনি ৷ চেয়েছেন মানুষ যেন এই মারণ ব্যধির তীব্রতা বোঝেন ও সতর্ক হন ৷

   
Published by: Debalina Datta
First published: April 5, 2020, 2:29 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर