হোম /খবর /দক্ষিণবঙ্গ /
এখনও বেঁচে মানবতা! ১৫০ কিলোমিটার পেরিয়ে মুমূর্ষু রোগীর দরজায় ওষুধ পৌঁছে দিলেন যুবক

এখনও বেঁচে মানবতা! ১৫০ কিলোমিটার পেরিয়ে মুমূর্ষু রোগীর দরজায় ওষুধ পৌঁছে দিলেন যুবক

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

কিন্তু কীভাবে চন্দ্রকোনার প্রত্যন্ত গ্রাম মংরুলে পৌঁছল ওষুধ?

  • Last Updated :
  • Share this:

#চন্দ্রকোনাঃ দ্বিতীয় পর্যায়ের লক ডাউন শেষ হতে এখনও ১১ দিন। তারপরেও তা শেষ হবে কিনা তা নিশ্চিত নয়। কিন্তু অত দিনের ওষুধ তো ঘরে নেই। আর একদিন ওষুধ না খেলে তা মারাত্ত্বক আকার নিতে পারে, তা জানেন হেপাটাইটিস বি'তে আক্রান্ত পূর্ণিমা মাউর। তাই সেই চিন্তাতেই ঘুম উড়েছিল। যদি কোনওরকম সাহায্য করতে পারে, তাই সেকথা জানিয়েছিলেন প্রতিবেশী পেশায় মেডিকেল রিপ্রেজেন্টেটিভ সৌমিত্র মাউরকে। শেষপর্যন্ত সৌমিত্র'র বুদ্ধিমত্তার জেরে ওষুধ পেয়েছেন পূর্ণিমা। ১৫০ কিলোমিটার পেরিয়ে এক মাসের প্রয়োজনীয় ওষুধ পৌঁছে দিয়েছেন এক সহৃদয়।

কিন্তু কীভাবে চন্দ্রকোনার প্রত্যন্ত গ্রাম মংরুলে পৌঁছল ওষুধ? সৌমিত্র জানিয়েছেন, "আমি হ্যাম রেডিও ক্লাবের বিষয়ে আগেই শুনেছিলাম এক বন্ধুর কাছ থেকে। তাই স্থানীয় কোথাও যখন ওষুধ পাওয়া যাছে না অনেক খুঁজেও, তখনই তাঁদের ফোন করে সমস্যার কথা জানাই। তাঁরাই কলকাতা থেকে ১৫০ কিলোমিটার পাড়ি দিয়ে ওষুধ পৌঁছে দিয়ে গিয়েছে।"  সৌমিত্র আরও বলেন, "রেডিও ক্লাবের সভাপতি অম্বরিশ নাগ বিশ্বাসকে জরুরি ওষুধ না পাওয়ার বিষয়টি জানানর পড়েই তিনি জানিয়ে দেন সময়মত বাড়িতে ওষুধ পৌঁছে দেওয়া হবে।"

এদিকে, রেডিও ক্লাব সভাপতি অম্বরিশ নাগ বিশ্বাস বলেন, "যে বিশেষ ওষুধটির কথা আমাদের জানান হয়েছিল, তা শহরের বহু জায়গায় খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। পরে সোনারপুরে লিভার ফাউন্ডেশনে ওষুধটি রয়েছে, তা জানতে পারি। সেখানে লোক পাঠিয়ে ওষুধ পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। রোগীর কাছে যা ওষুধ ছিল, তা ফুরানোর আগেই মঙ্গলবার সন্ধ্যায় তাঁর বাড়িতে ওষুধ পৌঁছে দিয়েছে আমাদের ক্লাবের সদস্য সৌপর্ণ সেন।"

Published by:Shubhagata Dey
First published:

Tags: Chandrakona, Lock Down, Medicine