corona virus btn
corona virus btn
Loading

বাড়ি থেকে এতদূরে কীভাবে সমাধিস্ত করতাম! ৩০০০ কিলোমিটার পেরিয়ে বন্ধুর দেহ নিয়ে ফিরলেন যুবক

বাড়ি থেকে এতদূরে কীভাবে সমাধিস্ত করতাম! ৩০০০ কিলোমিটার পেরিয়ে বন্ধুর দেহ নিয়ে ফিরলেন যুবক
প্রতীকী ছবি

২৩ এপ্রিল চেন্নাইতে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান মিজোরামের এক যুবক। তাঁর আত্মাকে শান্তি দিতে লকডাউনের মধ্যে দীর্ঘ ৩ হাজার কিলোমিটার পাড়ি দিল এক বন্ধু।

  • Share this:

#আইজলঃ কথায় আছে, ঘর সেটাই, যেখানে হৃদয় থাকে।

২৩ এপ্রিল চেন্নাইতে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান মিজোরামের এক যুবক। তাঁর আত্মাকে শান্তি দিতে লকডাউনের মধ্যে দীর্ঘ ৩ হাজার কিলোমিটার পাড়ি দিল বন্ধু। চেন্নাইয়ের অ্যাম্বুলেন্সের দুই চালক মঙ্গলবার যুবকের মৃতদেহ নিয়ে মিজোরামে পৌঁছন।  এরপর বন্ধুর মৃতদেহ তাঁর পরিবারের হাতে তুলে দেন বন্ধু। এই ঘটনা নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও পোস্ট করেন মিজোরামের মুখ্যমন্ত্রী জোরামথাঙ্গা। তাতে দেখা যাচ্ছে, লকডাউনের মধ্যে আইজলের শুনশান রাস্তা দিয়ে এগিয়ে চলেছে  একটি অ্যাম্বুলেন্স। সেই অ্যাম্বুলেন্সের চালকদের হাততালি দিয়ে অভিনন্দন জানাচ্ছেন এলাকার মানুষ।

জোরামথাঙ্গা সোশ্যাল মিডিয়ায় লিখেছে, “মিজোরাম এইভাবেই বাস্তবের হিরোদের অভ্যর্থনা জানায়। আমরা মানবতা ও জাতীয়তাবাদে বিশ্বাসী।” জানা গিয়েছে,  আইজলের মডেল ভেঙ্গ অঞ্চলের বাসিন্দা মৃত ওই যুবকের নাম ভিভিয়ান লালরেমসেঙ্গা (২৮)। তিনি ২৩ এপ্রিল চেন্নাইতে মারা যান। সেখানে এক বেসরকারি সংস্থায় তিনি চাকরি করতেন। মৃত্যুর পর ময়না তদন্ত হয় নিয়মানুসারে। এরপর  প্রশাসন সিধান্ত  চেন্নাইতে তাঁর দেহ সমাহিত করা হবে। কিন্তু তা চায়নি তাঁর বন্ধু রাফায়েল মালচানহিমা। রাফায়েল চেয়েছিলেন বন্ধুর দেহ দেশে ফিরিয়ে নিয়ে যেতে। সেইমতই তিনি আবেদন জানান। তাঁর আবেদনে সাড়া দিয়ে এগিয়ে আসে দুই অ্যাম্বুলেন্স চালক। ৮৪ ঘটা অ্যাম্বুলেন্স চালিয়ে দুই ড্রাইভার, জয়ন্তীরাজন এবং চিন্নাথাম্বি ৩০০০ কিলোমিটার পাড়ি দিয়ে দেহ পৌঁছে দেন যুবকের বাড়ি। এদিকে, রাফায়েল চেন্নাই থেকে ফেরায় তাঁকে ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইনে থাকতে বলা হয়েছে প্রশাসনের তরফ থেকে।

First published: April 29, 2020, 11:46 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर