corona virus btn
corona virus btn
Loading

ভিড় নিয়ন্ত্রণে এবার সশস্ত্র পুলিশ, কলকাতা সহ দুই জেলা নিয়ে উদ্বিগ্ন মমতা

ভিড় নিয়ন্ত্রণে এবার সশস্ত্র পুলিশ, কলকাতা সহ দুই জেলা নিয়ে উদ্বিগ্ন মমতা
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ PHOTO- FILE

মুখ্যমন্ত্রী এ দিন আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করতে না পারলে এবার গোষ্ঠী সংক্রমণ শুরু হবে৷

  • Share this:
#কলকাতা: রাজ্যে করোনা সংক্রমণ রুখতে এবার কড়া পদক্ষেপের ইঙ্গিত দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ মুখ্যমন্ত্রীর সাফ নির্দেশ, কোনও বাজারে ভিড় করা যাবে না৷ পাশাপাশি মাস্ক না পরলে কোনও বাজারে ঢুকতে দেওয়া হবে না বলেও জানিয়েছেন মমতা৷ প্রয়োজনে ভিড় নিয়ন্ত্রণে সশস্ত্র পুলিশ ব্যবহার করার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন তিনি৷ রেড জোনগুলিতেও সশস্ত্র পুলিশ নামানোর নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷

মুখ্যমন্ত্রী এ দিন আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করতে না পারলে এবার গোষ্ঠী সংক্রমণ শুরু হবে৷ এই প্রসঙ্গেই রাজ্যের দুই জেলা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন মুখ্যমন্ত্রী৷ হাওড়া এবং উত্তর চব্বিশ পরগণায় সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে পুলিশ প্রশাসনকে বিশেষ নজর দিতে বলেছেন তিনি৷ মুখ্যমন্ত্রী স্বীকার করেছেন, হাওড়ার অবস্থা খুবই স্পর্শকাতর৷ পাশাপাশি, উত্তর চব্বিশ পরগণা নিয়েও অসন্তোষ প্রকাশ করেন মমতা৷ ক্ষুব্ধ মুখ্যমন্ত্রী বলেন, 'ডেঙ্গিও উত্তর চব্বিশ পরগণা থেকে শুরু হয়৷ করোনার ক্ষেত্রেও তাই হচ্ছে৷'

বাজারে কোনওভাবে ভিড় করা যাবে না বলে এ দিন সাফ জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ সব বাজারেই স্যানিটাইজার রাখতে নির্দেশ দিয়েছেন তিনি৷ তবে রেড জোনে কাউকে ঢুকতে এবং বেরোতে দেওয়া হবে না বলে নির্দেশ দিয়েছেন তিনি৷

মুখ্যমন্ত্রী এ দিন বলেন, ১৪ দিনের মধ্যে হাওড়া এবং উত্তর চব্বিশ পরগণাকে রেড থেকে অরেঞ্জ জোনে নিয়ে আসতে হবে৷ কলকাতার কয়েকটি ওয়ার্ড নিয়েও একই কথা বলেন মমতা৷ পাশাপাশি যে জেলাগুলি অরেঞ্জ জোনের আওতায় আছে, সেগুলিকে গ্রিন জোনে নিয়ে আসার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি৷

মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, বীরভূম, বর্ধমান, ঝাড়গ্রাম, পুরুলিয়ার মতো কয়েকটি জেলায় এখনও কোনও করোনা আক্রান্তের খোঁজ মেলেনি৷ সেই জেলাগুলিতেও যাতেও সোশ্যাল ডিসটেন্সিং-এর নিয়ম মানার ক্ষেত্রে কোনও শিথিলতা দেখানো না হয়, সেই পরামর্শ দেন তিনি৷ অন্যান্য রাজ্যগুলির সঙ্গে থাকা সীমান্তে এবং আন্তঃ জেলা সীমান্তগুলিতেও কড়া নজরদারি চালানোর জন্য পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ নিয়ম পালনে কাউকেই যাতে ছাড় না দেওয়া হয়, সেকথা মনে করিয়ে দেন তিনি৷

মুখ্যমন্ত্রী জানান, শুক্রবার পর্যন্ত রাজ্যে করোনায় আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ১৬২৷ গত চব্বিশ ঘণ্টায় নতুন করে ২২ জনের শরীরে সংক্রমণ মিলেছে৷

First published: April 18, 2020, 12:13 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर