• Home
  • »
  • News
  • »
  • coronavirus-latest-news
  • »
  • করোনা বিধি মেনে কীভাবে দুর্গা পুজো? দশ দফা নির্দেশিকা ঘোষণা মমতার

করোনা বিধি মেনে কীভাবে দুর্গা পুজো? দশ দফা নির্দেশিকা ঘোষণা মমতার

এছাড়া সরকারের তরফে ৬১৭টি সরকারি মেলা ও প্রদর্শনীর আয়োজন করা হবে। এর ফলে ৩.৬৪ লক্ষ মানুষের জীবিকা ও আয়ের তৈরি হবে। সরকারি মেলা, প্রদর্শনীতে ১৫৬ কোটির কেনাবেচা হবে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

এছাড়া সরকারের তরফে ৬১৭টি সরকারি মেলা ও প্রদর্শনীর আয়োজন করা হবে। এর ফলে ৩.৬৪ লক্ষ মানুষের জীবিকা ও আয়ের তৈরি হবে। সরকারি মেলা, প্রদর্শনীতে ১৫৬ কোটির কেনাবেচা হবে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

সামাজিক দূরত্ব মানা, মাস্ক পরার মতো করোনার স্বাস্থ্যবিধি মানার পাশাপাশি পুজো মণ্ডপে যে কোনও মূল্যে ভিড় এড়াতে হবে বলেও এ দিন নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷

  • Share this:

    #কলকাতা: কীভাবে আয়োজন করা হবে এ বারের দুর্গাপুজোর? প্যান্ডেলের ভিতরে, বাইরে কী কী গাইডলাইন মানতে হবে? পুজো উদ্যোক্তাদের সঙ্গে বৈঠকে সেই নির্দেশ দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ সামাজিক দূরত্ব মানা, মাস্ক পরার মতো করোনার স্বাস্থ্যবিধি মানার পাশাপাশি পুজো মণ্ডপে যে কোনও মূল্যে ভিড় এড়াতে হবে বলেও এ দিন নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ একনজরে দেখে নেওয়া যাক, কী কী নির্দেশ দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়-

    ১. প্যান্ডেল খোলামেলা করতে হবে৷ মণ্ডপের চারপাশ খোলা রাখতে হবে৷ চারপাশ ঘেরা থাকলে মণ্ডপের ছাদ খোলা রাখতে হবে যাতে হাওয়া চলাচল করতে পারে এবং সংক্রমণের আশঙ্কা কমে৷

    ২. দর্শনার্থীদের এবং মণ্ডপ চত্বরে থাকা প্রত্যেকের মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক৷ মাস্ক না পরলেও নাক, মুখ ঢেকে রাখতে হবে৷ পুজো উদ্যোক্তা এবং পুলিশের উদ্যোগে মণ্ডপে মাস্ক রাখতে হবে, যাতে কারও কাছে মাস্ক না থাকলে তাঁকে মাস্ক দেওয়া যায়৷

    ৩. মণ্ডপের অনেকটা আগে থেকেই দর্শনার্থীদের স্যানিটাইজার দেওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে৷ মণ্ডপের ভিতরে ভিড় এড়াতে প্রবেশ এবং বেরনোর আলাদা পথ রাখতে হবে৷ ভিড় এড়াতে ব্যারিকেড, দাগ দিয়ে মানুষ দাঁড়ানোর জায়গা চিহ্নিকরণের ব্যবস্থা করে দিতে হবে৷

    ৪. বেশি সংখ্যক স্বেচ্ছাসেবক রাখতে হবে৷ এদের জন্য মাস্ক, স্যানিটাইজার, ফেস শিল্ড দিতে হবে৷ পুলিশকর্মী যাঁরা পুজোর সময় দায়িত্বে থাকবেন, তাঁদেরকেও পর্যাপ্ত সংখ্যক মাস্ক, স্যানিটাইজার এবং সুরক্ষা সরঞ্জাম দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷

    ৫. অঞ্জলি, প্রসাদ বিতরণ এবং সিঁদুরখেলাতেও ভিড় এড়াতে অনুরোধ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ ছোট ছোট দলে ভাগ করে অঞ্জলির আয়োজন করার অনুরোধ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ ফুল, বেল পাতা বাড়ি থেকে নিয়ে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করেন মুখ্যমন্ত্রী৷

    ৬. প্রসাদ বিতরণে ভিড় এড়াতে হবে৷ আবাসনের পুজোতেও এই নির্দেশিকা মানতে হবে৷ একই সময়ে সবাই সিঁদুরখেলায় অংশ না নিয়ে ছোট ছোট দলে ভাগ হয়ে সিঁদুরখেলার অনুরোধ করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷

    ৭. বিসর্জনেও বেশি মানুষ নিয়ে যাওয়া যাবে না৷ পাশাপাশি একই এলাকার সব পুজোর বিসর্জনও একদিনে হবে না৷ ঘাটগুলিকেও স্যানিটাইজ করার নির্দেশ দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷

    ৮. পুজোর সময় আলাদা করে কোনও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করা যাবে না৷ অতিরিক্ত ভিড় এড়ানোর জন্যই এই নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷

    ৯. উদ্বোধনী অনুষ্ঠানও সংক্ষিপ্ত রাখার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন  মুখ্যমন্ত্রী৷

    ১০. মুখ্যমন্ত্রী আরও বলেন, পুরস্কার দেওয়ার জন্য যে বিচারক বা প্রতিনিধি দল  মণ্ডপে মণ্ডপে আসেন, তাঁদের একসঙ্গে দু'টির বেশি গাড়ি যেন মণ্ডপ চত্বরে প্রবেশ না করে৷ ভার্চুয়াল মাধ্যমে মণ্ডপ দেখে পুরস্কার দেওয়ার অনুরোধ করেন তিনি৷ এ বার বিশ্ব বাংলা পুরস্কারও ভার্চুয়ালি দেওয়া হবে৷ পুরস্কার দেওয়ার জন্য বিচারকরা সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৩টের মধ্যে মণ্ডপগুলিতে যাবেন৷ যে কোনও মূল্যে যাতে ভিড় এড়ানো যায়, সেই অনুরোধ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী৷

    মুখ্যমন্ত্রী এ দিনও অভিযোগ করেন, পুজো নিয়ে অনেকেই রাজনীতি করার চেষ্টা করছেন৷ ক্ষুব্ধ মুখ্যমন্ত্রী বলেন 'যদি বলি পুজো এবার হবে না, তাহলে বলবে পুজো করতে দিল না৷ আর যদি বলি একটু নিয়ম মেনে করুন, তাহলে চিৎকার করবে৷ কারণ তাঁদের কোনও দায় নেই, যাঁরা সরকার চালায় দায়টা তাঁদের৷ পুজো তো আমি বন্ধ করতে পারি না৷ ইদে কেউ বাড়ি থেকে বেরোতে পারেননি, কিন্তু বাড়িতে বসে প্রার্থনা করতে পেরেছেন৷'

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: