সপ্তাহান্তে Lockdown ফিরল মহারাষ্ট্রে, বাকি দিনগুলিতেও কঠোর বিধিনিষেধ জারি

সপ্তাহান্তে Lockdown ফিরল মহারাষ্ট্রে, বাকি দিনগুলিতেও কঠোর বিধিনিষেধ জারি

Lockdown Representative Image

সমস্ত বেসরকারি অফিসের কাজ বাড়ি থেকে করার উপরে জোর দিতে বলা হয়েছে৷ সরকারি অফিসগুলিতে পঞ্চাশ শতাংশ কর্মী নিয়ে কাজ চালাতে বলা হয়েছে৷

  • Share this:

    #মুম্বাই: আপাতত পূর্ণ লকডাউন হচ্ছে না৷ কিন্তু  আশঙ্কা সত্যি করে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ সামলাতে সপ্তাহান্তে শুক্রবার রাত থেকে সোমবার সকাল পর্যন্ত লকডাউন জারি করার নির্দেশ দিল মহারাষ্ট্র সরকার৷ সপ্তাহের বাকি দিনগুলিতেও মানতে হবে কড়া বিধিনিষেধ৷ পরিস্থিতি না বদলালে আরও কঠিন পদক্ষেপ করতে পারে রাজ্য সরকার৷

    এ দিনই করোনা পরিস্থিতি পর্যালোচনা করতে মহারাষ্ট্র সরকারের ক্যাবিনেট বৈঠক ছিল৷ সেই বৈঠকেই সিদ্ধান্ত হয়, আগামী ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত প্রত্যেক শুক্রবার রাত ৯টা থেকে সোমবার সকাল ৭টা পর্যন্ত কড়া লকডাউন জারি হবে রাজ্যে৷ পাশাপাশি, সপ্তাহের অন্যান্য দিনগুলিতে রাত ৮টা থেকে সকাল ৭টা পর্যন্ত যে কারফিউ চলছিল, সেটাও আগের মতোই চলবে৷ শুধুমাত্র জরুরি পরিষেবার সঙ্গে যাঁরা যুক্ত, রাতে কেবল তাঁরাই বাড়ির বাইরে বেরোতে পারবেন৷

    এ ছাড়াও সমস্ত বেসরকারি অফিসের কাজ বাড়ি থেকে করার উপরে জোর দিতে বলা হয়েছে৷ সরকারি অফিসগুলিতে পঞ্চাশ শতাংশ কর্মী নিয়ে কাজ চালাতে বলা হয়েছে৷ হোটেল- রেস্তোরাঁতে বসে খাওয়া দাওয়া করা যাবে না৷ শুধুমাত্র টেক অ্যাওয়ে পরিষেবা চালু থাকবে৷ কী কী বিধিনিষেধ মেনে চলতে হবে মানুষকে, তার বিস্তারিত তালিকা খুব শিগগিরই প্রকাশ করবে মহারাষ্ট্র সরকার৷ সমস্ত গণ পরিবহনে পঞ্চাশ শতাংশের বেশি যাত্রী নেওয়া যাবে না বলে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে৷ মাস্ক না পরে বেরোলে ৫০০ টাকা জরিমানা দিতে হবে৷ সিনেমার শ্যুটিংয়ের সময়ও ভিড় করা যাবে না বলে নির্দেশ দিয়েছে সরকার৷ ধর্মীয় স্থানগুলিতেও বিধিনিষেধ জারি থাকবে৷

    শনিবারও মহারাষ্ট্রে নতুন করে প্রায় ৫০ হাজার করোনা আক্রান্তের খোঁজ মিলেছে৷ একদিনে মৃত্যু হয়েছে ২৭৭ জনের৷ শুধুমাত্র মুম্বাইতেই নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৯১০৮ জন৷ পরিস্থিতি এতটাই খারাপের দিকে যাচ্ছে যে সরকারি নির্দেশিকা জারি করার আগে বিজেপি নেতা এবং প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবীশকে ফোন করেন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে৷ লকডাউনের মতো কঠোর পদক্ষেপ ঘোষণা করলে যাতে বিজেপি সেই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা না করে, সেই অনুরোধই করেন উদ্ধব৷ সূত্রের খবর, ফড়নবীশ তাঁকে আশ্বস্ত করে বলেন, মানুষের জীবন সবার আগে৷ ফলে এ বিষয়ে তাঁরা রাজনীতি করবেন না৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: