Home /News /coronavirus-latest-news /

MP Corona Cases: একই জীবন্ত রুগীকে দু’বার মৃত ঘোষণা করল সরকারি হাসপাতাল!

MP Corona Cases: একই জীবন্ত রুগীকে দু’বার মৃত ঘোষণা করল সরকারি হাসপাতাল!

করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে ইতিমধ্যেই বেসামাল গোটা দেশ! চলছে টিকাকরণ, কিন্তু তাই বলে হাত গুটিয়ে বসে থাকবেন না! .বরং, করোনা এড়াতে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বা ইম্যিউনিটি বাড়িয়ে তুলুন। জেনে নিন, শরীরের এই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে কোন কোন খাবার খাবেন, কোন কোন খাবার এড়িয়ে চলবেন--

করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে ইতিমধ্যেই বেসামাল গোটা দেশ! চলছে টিকাকরণ, কিন্তু তাই বলে হাত গুটিয়ে বসে থাকবেন না! .বরং, করোনা এড়াতে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বা ইম্যিউনিটি বাড়িয়ে তুলুন। জেনে নিন, শরীরের এই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে কোন কোন খাবার খাবেন, কোন কোন খাবার এড়িয়ে চলবেন--

একই জীবিত করোনা রোগীকে দু’বার মৃত ঘোষণা করা হল সরকারি হাসপাতালের তরফে । সরকারি হাসপাতালের বিশৃঙ্খলার ছবি প্রকট হয়ে উঠছে ক্রমশ ।

  • Share this:

    #ভোপাল: ভয়াবহতা মাত্রা ছাড়িয়ে যাচ্ছে । সংবাদ মাধ্যমের পাতায় ছবি দেখে কেঁপে উঠছে বুক । দ্বিতীয় ঢেউয়ে আরও অনেক বেশি শক্তিশালী করোনা, আরও অনেক বেশি মারাত্মক । বিগত সব রেকর্ড ভেঙে এখন প্রত্যেকদিন দেশে করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন আড়াই লাখেরও বেশি মানুষ । হাসপাতালে বেড নেই, চিকিৎসক নেই, অক্সিজেনের অভাব, ভেন্টিলেটরের অভাব...বিনা চিকিৎসায় মানুষের মৃত্যু হচ্ছে । চারিদিকে বিভীষিকাময় পরিস্থিতি ।

    এই অবস্থায় বারংবার সামনে আসছে হাসপাতালের গাফিলতির চিত্র । কোথাও রোগীর অক্সিজেনের নল খোলা, কাতরাতে কাতরাতে মৃত্যু হচ্ছে করোনা আক্রান্তের । কোথাও মৃত মানুষকে জীবিত, আবার জীবিত মানুষকে মৃত ঘোষণা করা হচ্ছে । কোথাও পরিজনের হাতে তুলে দেওয়া হচ্ছে ভুল মৃতদেহ । গোটা দেশ জুড়ে এখন চরম বিশৃঙ্খলাময় পরিস্থিতি । এ বার এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি হল মধ্যপ্রদেশের বিদিশা জেলায় ।

    সেখানেই একই জীবিত করোনা রোগীকে দু’বার মৃত ঘোষণা করা হল সরকারি হাসপাতালের তরফে । গত সোমবার গোরেলাল কোরি নামের এক ব্যক্তি ভর্তি হন অটল বিহারী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে । তাঁর অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় চিকিৎসকরা অনুমান করেন তিনি করোনা আক্রান্ত । বুধবার তাঁকে ভেন্টিলেটরে দেওয়া হয় । গোরেলালের ছেলে কৈলাস জানান, বৃহস্পতিবার হাসপাতাল থেকে ফোন করে তাঁদের জানানো হয়েছিল, রোগীর অবস্থা ভাল নয় । সঙ্গে সঙ্গে হাসপাতালে পৌঁছন তিনি । হাসপাতালের তরফে জানানো হয়, তাঁর বাবা মারা গিয়েছেন । এর কিছুক্ষণ পরেই হাসপাতালের নার্স এসে জানান, রোগী পুনরায় শ্বাস নিতে শুরু করেছেন । তাঁকে বাঁচানোর চেষ্টা চালানো হচ্ছে ।

    পরে চিকিৎসক এসে রোগীকে দেখে জানান, খুব শীঘ্রই অস্ত্রোপচার করতে হবে । না হলে রোগীকে বাঁচানো যাবে না । গোরেলালের পরিবারের তরফে সম্মতি দেওয়া হয় । অস্ত্রপচারের পর হাসপাতালের তরফে জানানো হয়, অপারেশনের সময়ই মারা গিয়েছেন রোগী । তিনি করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছিলেন । ফলে পরিবারের হাতে মৃতদেহ তুলে দেওযা যাবে না ।

    শুক্রবার সকালে গোরেলালের শেষকৃত্য সম্পন্ন করার জন্য প্রস্তুতি নিতে শুরু করে পরিবার । এর কিছুক্ষণের মধ্যে হাসপাতালের তরফে ফের জানানো হয় রোগী বেঁচে আছেন । তিনি ভেন্টিলেটরে রয়েছেন । সংবাদ মাধ্যমের সামনে ক্ষোভ উগড়ে দিয়ে কৈলাস বলেন, এ ভাবে রোগীর পরিবারকে নাজেহাল করার কোনও অধিকার নেই হাসপাতালের । দায়িত্বজ্ঞানহীনতার পরিচয় দিয়েছেন হাসপাতালের কর্মীরা ।

    গোটা ঘটনার জন্য ক্ষমা চেয়ে নিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ । হাসপাতালের ডিন ডঃ সুনীল নন্দেশ্বর বলেন, ভেন্টিলেটরে হার্ট বন্ধ হয়ে গিয়েছিল রোগীর । তখন নার্স তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন । কিন্তু এ ক্ষেত্রে অন্ত ১-২ ঘণ্টা সময় দেওয়া উচিত । চিকিৎসকরা এর মধ্যেই চিকিৎসা শুরু করে দেন এবং ফের শ্বাস নিতে শুরু করেন ওই রোগী । ফলে একটা ভুল বোঝাবুঝির সূত্রপাত হয় ।

    Published by:Simli Raha
    First published:

    Tags: Coronavirus, Madhya Pradesh

    পরবর্তী খবর