মুখ ফিরিয়েছে সরকার, কাশ্মীরের পরিযায়ী শ্রমিকদের অন্ন জোগাচ্ছেন স্থানীয় বাসিন্দারাই

লকডাউন শুরু হওয়ার পর জম্নু কাশ্মীর প্রশাসনের হিসেব অনুযায়ী, সেখানে এখন প্রায় ৫৮ হাজার পরিযায়ী শ্রমিক রয়েছেন৷

লকডাউন শুরু হওয়ার পর জম্নু কাশ্মীর প্রশাসনের হিসেব অনুযায়ী, সেখানে এখন প্রায় ৫৮ হাজার পরিযায়ী শ্রমিক রয়েছেন৷

  • Share this:
     

    #শ্রীনগর: প্রশাসনের থেকে সাহায্য মেলেনি৷ নেই টাকা পয়সা, খাবার, পানীয় জল৷ গোটা দেশের মতোই কাশ্মীর উপত্যকার পরিযায়ী শ্রমিকরা বেজায় বিপাকে পড়েছেন৷ বলাই বাহুল্য, দেশের অন্যান্য প্রান্তের তুলনায় কাশ্মীর থেকে ফেরাটা তাঁদের কাছে আরও কঠিন৷ এই পরিস্থিতিতে পরিযায়ী শ্রমিকদের সহায় হয়ে উঠেছেন কাশ্মীরের স্থানীয় বাসিন্দারাই৷

    শ্রীনগর সহ কাশ্মীর উপত্যকার বিভিন্ন প্রান্তে আটকে পড়া পরিযায়ী শ্রমিকরা জানাচ্ছেন, সরকারের থেকে কার্যত কোনও সাহায্যই পাননি তাঁরা৷ চাল বা অন্যান্য খাদ্য সামগ্রীও সেভাবে মেলেনি৷ বরং অসহায় পরিযায়ী শ্রমিকদের পাশে দাঁড়িয়েছেন কাশ্মীরের স্থানীয় বাসিন্দারাই৷

    শ্রীনগরে আটকে থাকা এক পরিযায়ী শ্রমিক সংবাদসংস্থাকে জানিয়েছেন, স্থানীয় বাসিন্দারাই কেউ তাঁদের চাল দিয়ে সাহায্য করেছেন, কেউ আবার অন্য কোনও খাদ্য সামগ্রী দিয়ে তাঁদের সাহায্য করেছেন৷ পাশাপাশি, স্থানীয় বেশ কিছু স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাও পরিযায়ী শ্রমিকদের সাহায্য করছে৷ সেনাবাহিনীর সাহায্য একবারই তাঁরা পাঁচ কেজি চাল পেয়েছিলেন৷ এ ছাড়া তাঁরা আর কোনও সরকারি ত্রাণ পাননি বলেই অভিযোগ ওই পরিযায়ী শ্রমিকের৷

    লকডাউন শুরু হওয়ার পর জম্নু কাশ্মীর প্রশাসনের হিসেব অনুযায়ী, সেখানে এখন প্রায় ৫৮ হাজার পরিযায়ী শ্রমিক রয়েছেন৷ আপেলের বাগান, হোটেলের মতো বিভিন্ন পেশার সঙ্গে যুক্ত তাঁরা৷ বছরভর সন্ত্রাস, অশান্তির সঙ্গে থাকতে থাকতে প্রাণের ঝুঁকি নিয়ে বাঁচাটা তাঁদের অনেকের কাছেই গা সওয়া হয়ে গিয়েছিল৷ কিন্তু করোনা সঙ্কটের জেরে লকডাউন পরিস্থিতিতে বেঁচে থাকাটাই যেন দায় হয়ে উঠেছে ওই শ্রমিকদের৷ তাই যে কোনও মূল্যে বাড়ি ফিরতে চাইছেন তাঁরা৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: