Kumbhmela in Pandemic : করোনার ‘সুপার স্প্রেডার’ হয়ে উঠতে পারে কুম্ভমেলা, দুশ্চিন্তায় সরকার!

Kumbhmela in Pandemic : করোনার ‘সুপার স্প্রেডার’ হয়ে উঠতে পারে কুম্ভমেলা, দুশ্চিন্তায় সরকার!

চিন্তা বাড়াচ্ছে কুম্ভমেলা

মেলা চত্বরে করোনা সংক্রান্ত বিধিনিষেধ মানতে যাতে মানুষ সচেতন হয়, সেই কারণে প্রচার চালানোর পরিকল্পনা করেছে সরকার৷

  • Share this:

    #হরিদ্বার : করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় পর্যায়ে ‘সুপার স্প্রেডার’ হয়ে উঠতে পারে পৃথিবীর সবথেকে বড় ধর্মীয় মিলনক্ষেত্র 'কুম্ভমেলা" ৷ কেন্দ্রীয় সরকারের সচিব পর্যায়ের বৈঠকে উঠে এসেছে এমনিই আশঙ্কার কথা৷ সোমবারের উচ্চ প্রযায়ের ওই বৈঠকে এই মেলা ও শাহী স্নানে আসা মানুষের ভিড় নিয়ে উদ্ভেগ প্রকাশ করেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ও আমলারা৷

    কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র থেকে জানা গিয়েছে বৈঠকের সময় এক সরকারি আধিকারিক জানিয়েছেন, যদি সরকারের তরফে নির্ধারিত সময়ের আগে কুম্ভমেলা শেষ করে না দেওয়া হয়, সেক্ষেত্রে তা ‘সুপার স্প্রেডার’-এ পরিণত হতে পারে। সূত্রের খবর, এই পরিস্থিতিতে সরকারের তরফে একটি দল গঠন করা হতে চলেছে ৷ ওই দলের কাজ হবে সব সাধু ও ধর্মীয় নেতাদের সাহায্য নিয়ে কুম্ভে মাস্ক পরা, শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখা এবং করোনা সংক্রান্ত অন্যান্য বিধি নিষেধ মেনে চলার আবেদন করা৷

    মেলা চত্বরে করোনা সংক্রান্ত বিধিনিষেধ মানতে যাতে মানুষ সচেতন হয়, সেই কারণে প্রচার চালানোর পরিকল্পনাও করেছে সরকার৷ এর জন্য টিভি ও রেডিও-র মতো প্রচারমাধ্যমকে ব্যবহার করা হবে৷ একই সঙ্গে জনবহুল এলাকাগুলিতে পোস্টার দিয়ে মানুষকে সচেতন করার চেষ্টা করা হবে সরকারের তরফে ৷ওই সূত্রের দাবি, এখনই সরকারি তরফে কুম্ভমেলা নির্ধারিত সময়ের আগে শেষ করে দেওয়ার পরিকল্পনা নেই ৷ তবে মেলা চলাকালীন সংক্রমণ কীভাবে কমানোর ব্যবস্থা করা যায়, তা নিয়ে আধিকারিকদের পরামর্শ চেয়েছে সরকার৷

    যদিও উত্তরাখণ্ড সরকারের তরফে কুম্ভমেলায় করোনার সংক্রমণ রুখতে একাধিক সিদ্ধান্ত নিয়েছে ৷ কিছু বিধিনিষেধও আরোপ করা হয়েছে ৷ কুম্ভে আসার ৭২ ঘণ্টা আগে আরটি-পিসিআর পরীক্ষা করানো বাধ্যতামূলক করা হয়েছে ৷ এদিকে করোনাভাইরাসের ক্রমবর্ধমান সংক্রমণের মধ্যে কুম্ভ মেলার তৃতীয় শাহী স্নানের সময় বুধবার হরিদ্বারের হার কি পিয়ারী ঘটে জড়ো হয়েছেন হাজার হাজার পূর্ণার্থী। সাধু-সন্ন্যাসী থেকে সাধারণ পূর্ণার্থীদের সেই ভিড়ে সামাজিক দূরত্বের নিয়মগুলি অনুসরণ করা প্রায় অসম্ভব বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞ মহল।

    উত্তরাখণ্ডের ডিজিপি অশোক কুমার, হরিদ্বারে মেলার ব্যবস্থাপনার তদারকি করছেন। তিনি জানান, শাহী স্নানে ইতিমধ্যেই আট থেকে দশ লক্ষ লোক নদীতে স্নান করেছে। তবে একইসঙ্গে তিনি বলেন তৃতীয় শাহী স্নানে গঙ্গার ঘাটে জনগণ প্রত্যাশার চেয়ে অনেক কম ছিল - যা অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ একটা দিক বলেই মনে করছেন তাঁরা। এটি কোভিড বিধিনিষেধের কড়াকড়ির জন্যই হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। সচেতনতা বাড়াতে মেলায় আসা দর্শনার্থীদের মধ্যে মাস্কও বিলি করছেন পুলিশ আধিকারিকরা।

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published: