করোনা ভাইরাস

corona virus btn
corona virus btn
Loading

লক ডাউনে বাড়ির বাইরে বেরচ্ছেন? সাবধান...নজর রাখছে পুলিশের অদৃশ্য চোখ

লক ডাউনে বাড়ির বাইরে বেরচ্ছেন? সাবধান...নজর রাখছে পুলিশের অদৃশ্য চোখ

রাস্তায় পুলিশ গাড়ির টহলদারি কখনও কম দেখলে ভাববেন না পুলিশি নজরদারি কমে গিয়েছে।

  • Share this:

#কলকাতাঃ কলকাতায় কেউ লকডাউন অমান্য করছে কিনা সেদিকে নজর রাখতে এতদিন ঘনঘন টহল দিয়েছে পুলিশের গাড়ি। কিন্তু এখন রাস্তায় পুলিশ গাড়ির টহলদারি কখনও কম দেখলে ভাববেন না পুলিশি নজরদারি কমে গিয়েছে। কারণ এখন থেকে আকাশ পথে ড্রোন উড়িয়ে মানুষের গতিবিধির ওপর নজর রাখবে লালবাজার। ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গিয়েছে ড্রোনে নজরদারির প্রক্রিয়া।

লকডাউন চলাকালীন কারা রাস্তায় বেরচ্ছেন, কোন কোন এলাকায় মানুষ লকডাউন উপেক্ষা করে রাস্তায় বের হচ্ছেন, কোথায় পুলিশি নজরদারি এড়িয়ে বিভিন্ন দোকান খোলা হচ্ছে বা জটলা তৈরি হচ্ছে সেদিকে নজর রাখতে এবার ড্রোনের উপর ভরসা রাখল লালবাজার। মূলত যে সমস্ত এলাকায় বারবার মানুষকে সতর্ক করার পরেও রাস্তায় বেরনো রোখা যাচ্ছে না, সেই এলাকাতেই ওড়ানো হচ্ছে ড্রোন। শুক্রবার থেকে শুরু হয়েছে কলকাতায় ড্রোনের মাধ্যমে নজরদারি। শুক্রবার শ্যামবাজার এলাকায় ড্রোন ওড়ানো হয়। শনিবার পোস্তা এবং বড়বাজার এলাকায় ড্রোন উড়িয়ে অলিগলিতেও নজর রাখে লালবাজার।

এই ড্রোনের সঙ্গে সংযোগ করা ছিল লালবাজার কন্ট্রোল রুমের। ড্রোনে থাকা ক্যামেরার মাধ্যমে লালবাজার কন্ট্রোল 'লাইভ' দেখেছে বড়বাজার, পোস্তার রাস্তা-অলিগলির ছবি। কোন এলাকায় মানা হচ্ছে না লকডাউন তার তালিকা তৈরি করা হচ্ছে। সুতরাং যারা ভাবছেন রাস্তায় বেরোলে কেউ কিছু দেখছে না, তারা ভুল ভাবছেন। হয়তো অজান্তেই ক্যামেরাবন্দি হচ্ছেন আপনি।

ড্রোনের মাধ্যমে পাওয়া সমস্ত ভিডিওগুলি স্টোর করে রাখা হচ্ছে লালবাজারে। সেগুলি পরীক্ষা করে এবার এলাকা চিহ্নিত করা হবে। পরবর্তীতে সেই এলাকায় আরও কড়া ব্যবস্থা নেবে পুলিশ। লালবাজার সূত্রে জানা গিয়েছে, কলকাতার বিভিন্ন এলাকায় এভাবে সবার অজান্তেই উড়বে ড্রোন। তার মাধ্যমেই চিহ্নিত করা হবে কোন এলাকায় মানুষের মধ্যে লকডাউন উপেক্ষা করার প্রবণতা বেশি। সেই মতোই 'দাওয়াই' তৈরি করবে লালবাজার। লালবাজারের এক কর্তা বলেন, "এর মাধ্যমেই আমরা বুঝিয়ে দিতে চাইছি সবদিক থেকে সবরকম ভাবেই নজর রয়েছে আমাদের। তাই লকডাউন মানুন। বাড়িতে থাকুন।"

SUJOY PAL

Published by: Shubhagata Dey
First published: April 11, 2020, 9:49 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर