corona virus btn
corona virus btn
Loading

কলকাতা পুলিশের ৭ অফিসার ও কর্মী করোনা আক্রান্ত, মনোবল বাড়াতে ভোকাল টনিক

কলকাতা পুলিশের ৭ অফিসার ও কর্মী করোনা আক্রান্ত, মনোবল বাড়াতে ভোকাল টনিক

যেসব থানার পুলিশ কর্মী ও অফিসারেরা করোনা আক্রান্ত হয়েছেন, সেখানে তাদের সহকর্মীরা না যাতে মনোবল না হারায় সেদিকেও বাড়তি গুরুত্ব দিচ্ছেন পুলিশ কমিশনার।

  • Share this:

#কলকাতা: করোনা মোকাবিলায় স্বাস্থ্য কর্মীদের পাশাপাশি যোদ্ধা পুলিশও। অবাধ্য মানুষকে লকডাউন মানাতে গিয়ে ও বিভিন্ন পরিষেবা দিতে গিয়ে সেই করোনা যোদ্ধারাই আক্রান্ত হচ্ছেন। লালবাজার সূত্রের খবর, এখনও পর্যন্ত কলকাতা পুলিশের মোট ৭ অফিসার ও পুলিশ কর্মী করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। তবে প্রত্যেকেই এখন চিকিৎসাধীন এবং খুব দ্রুতই তারা সুস্থ হয়ে কাজে ফিরতে পারবে বলে আশাবাদী লালবাজার।

কলকাতা পুলিশের যারা করোনা আক্রান্ত হয়েছেন তাদের মধ্যে দু'জন ইন্সপেক্টর তিন জন কনস্টেবল, একজন সার্জেন্ট ও একজন সাব-ইন্সপেক্টর রয়েছেন। এদের মধ্যে দুই থানার ওসিও রয়েছেন। আরও কয়েকজন পুলিশকর্মীকে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে বলে খবর। এছাড়া যে পুলিশকর্মীরা করোনা আক্রান্ত হয়েছেন, তাদের পরিবারের লোকেদের রাখা হয়েছে কোয়ারেনটাইনে। তাদের সংস্পর্শে আসা অন্য পুলিশ কর্মীদের কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

যে সমস্ত পুলিশকর্মীরা এখনও অবধি করোনা আক্রান্ত হয়েছেন, তাদের অনেকের সঙ্গেই সরাসরি ফোনে কথা বলছেন পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা। বাকিদের শারীরিক অবস্থা সম্পর্কেও খোঁজ রাখছেন তিনি। পাশাপাশি তিনি অন্য পুলিশ কর্মীদের সতর্ক হওয়ার ও সচেতন থাকার দিকে গুরুত্ব দিতে বলেছেন। পুলিশ কমিশনার নির্দেশ দিয়েছেন, প্রত্যেক থানা ও ট্র্যাফিক গার্ডগুলিকে নিয়মিত স্যানিটাইজ করতে হবে। এছাড়া পুলিশকর্মীরা প্রত্যেকেই যাতে গ্লাভস, ফেস শিল্ড, মাস্ক পরে ডিউটি করে তা নিশ্চিত করতেও বলা হয়েছে। প্রয়োজনে রয়েছে পিপিই।

যেসব থানার পুলিশ কর্মী ও অফিসারেরা করোনা আক্রান্ত হয়েছেন, সেখানে তাদের সহকর্মীরা না যাতে মনোবল না হারায় সেদিকেও বাড়তি গুরুত্ব দিচ্ছেন পুলিশ কমিশনার। সেজন্য বন্দর এলাকার এক থানার ওসি করোনা আক্রান্ত হওয়ার পর পুলিশ কমিশনার নিজে সেই থানায় হাজির হন এবং অন্য পুলিশ কর্মীদের মনোবল চাঙ্গা করার চেষ্টা করেন। পাশাপাশি থানার কাজেও যাতে কোনও ব্যাঘাত না ঘটে সেদিকেও জোর দিয়েছেন তিনি। পুলিশ কমিশনারের পাশাপাশি লালবাজারের অন্য এক পদস্থ আইপিএসও পুলিশকর্মীদের মনোবল চাঙ্গা রাখতে বিভিন্ন ধরনের ভোকাল টনিক দিচ্ছেন।

তবে সব কিছুর মাঝেও সাধারণ মানুষকে যাতে কোনও সমস্যায় পড়তে না হয় সেদিকেও নজর রাখতে বলা হয়েছে। মূলত কনটেইনমেন্ট জোন এলাকায় যারা বসবাস করছেন তারা যাতে কোন সমস্যায় না পড়েন বা তাদের যেকোনও প্রয়োজনে পুলিশ যেন পাশে থাকে সেদিকেও গুরুত্ব দিতে বলা হয়েছে লালবাজার তরফে।

First published: May 5, 2020, 12:03 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर