করোনা ঠেকাতে শহরকে জীবাণুমুক্ত করার উদ্যোগ কলকাতা পুরসভার

করোনা ঠেকাতে শহরকে জীবাণুমুক্ত করার উদ্যোগ কলকাতা পুরসভার

লকডাউনে সচেতনতা বাড়াতে বাজারে বাজারে মাইকিং করবে কলকাতা পুরসভা।

  • Share this:

#কলকাতা: করোনা ঠেকাতে কলকাতা শহরকে জীবাণুমুক্ত করার উদ্যোগ কলকাতা পুরসভার। করোনার মৃতদের সৎকারের জন্য ধাপা ও বাগমারির নির্জন স্থান বেছে নিল কলকাতা পুরসভা। লকডাউনে সচেতনতা বাড়াতে বাজারে বাজারে মাইকিং করবে কলকাতা পুরসভা।

কলকাতা শহরে করোনা ঠেকাতে অনেক আগে থেকেই সতর্ক পুর প্রশাসন।স্বাস্থ্য ও জনস্বাস্থ্যের কাজ খতিয়ে দেখতে আগেই পথে নেমেছিলেন মেয়র নিজেই। শরীরের বিভিন্ন ওয়ার্ডের স্বাস্থ্য কেন্দ্র এবং রাস্তায় রাস্তায় জঞ্জাল সাফাই এর কাজ কেমন হচ্ছে তা খতিয়ে দেখেছিলেন ফিরহাদ হাকিম। এবার পথে নেমে সেই কাজ আরও এগিয়ে নিয়ে যাবেন মেয়র পরিষদ স্বাস্থ্য ও মেয়র পারিষদ জঞ্জাল সাফাই।

শহরের গুরুত্বপূর্ণ এলাকাগুলোতে যেমন স্প্রিং এর সাহায্যে জীবাণুনাশক ছড়ানো হবে। শহরের রাস্তায় জল দেওয়ার জন্য যেমন বেশ কিছু স্প্রিংলার কার থাকবে। তেমনি জীবাণুনাশক দিয়ে স্প্রিংলার এর সাহায্যে জীবাণুমুক্ত করা হবে শহরের গুরুত্বপূর্ণ এলাকা গুলি। দক্ষিণ কলকাতায় আগামীকাল সকাল থেকে এই কাজে নেতৃত্ব দেবেন মেয়র পারিষদ জঞ্জাল সাফাই দেবব্রত মজুমদার। অন্যদিকে মেয়র পরিষদ স্বাস্থ্য নিজে পথে নামবেন কলকাতা পৌরসভায় করোনা ঠেকাতে। মেয়র পরিষদ স্বাস্থ্য ও ডেপুটি মেয়র অতীন ঘোষপুরসভার স্বাস্থ্য কেন্দ্র গুলো সহ জীবাণুনাশক স্প্রে করার যে কাজ হবে তার তদারকি করবেন।

কলকাতা পুরসভার মেয়র ফিরহাদ হাকিম জানান,পুরসভার স্বাস্থ্য বিভাগের সঙ্গে আলোচনার পর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে এবার থেকে কর্নায় মৃতদেহ সৎকার করা হবে ধাপা এবং বাগমাড়িতে। দা পাই যে ক্রিমসন সেন্টার রয়েছে সেখানে মৃতদেহ সৎকারের ব্যবস্থা করা হবে। অন্যদিকে বাগমারি কবরস্থানের একটি পৃথক অংশে আলাদা করে গেট করা হবে। সেখানেই মৃতদেহ কবর দেওয়ার ব্যবস্থা করা হবে। যদিও মেয়র আশ্বস্ত করেছেন যে রাজ্যে আর নতুন করে করোনা আক্রান্তের মৃত্যু হবে না এটাই আশা করা যায়।

কলকাতা শহরের বাজারগুলিতে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস মজুত রয়েছে বলেও পুরসভার মেয়র ফিরহাদ হাকিম আশ্বস্ত করেন। শহরবাসীকে লক ডাউন এর নিয়ম মেনে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস বাজার করার পরামর্শ দিয়েছেন। মেয়র বলেন,মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে আগামীকাল থেকে শহরের প্রতিটি বাজারের সামনে মাইকিং করা হবে। জাতি একসঙ্গে ভিড় করে কেউ বাজার না করেন ওষুধ দুধ রুটি সবজি মুদিখানার সমস্ত নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস মজুত রয়েছে। প্রত্যেকে নিয়মমতো এসে আলাদা আলাদা ভাবে প্রয়োজনীয় জিনিস নিয়ে যান। মেয়র আরও বলেন,'করোনার খুবই 'ইগো' আছে। ও নিজে থেকে আপনার বাড়িতে যাবে না। তাই লকডাউন এ ঘরে থাকুন। এই ভাইরাসকে আমন্ত্রণ জানাতে অহেতুক বাইরে বেরোবেন না।

BISWAJIT SAHA

First published: March 24, 2020, 11:40 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर