অনলাইনে মাস্ক কিনতে গিয়ে প্রতারণার শিকার সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসক !

তাঁদের মধ্যে একজন কারিল্লি সিএনএন-কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেছেন, 'আমি এখানে একাই থাকি৷ যদি অসুস্থ হয়ে পড়ি তাহলে আমাকে কে দেখবে? আমার বয়স হয়েছে ঠিকই, তবু আমার ভেড়ার পাল, ফলের বাগান, মৌচাক এসব দেখেই আমি আরও বাঁচতে চাই৷ আমি আমার জীবন নিয়ে খুব সুখী৷'Representational Image

আনন্দপুর থানায় প্রতারণার অভিযোগ দায়ের করেছেন চিকিৎসক।

  • Share this:

#কলকাতাঃ কলকাতার এক সরকারি হাসপাতালের এক চিকিৎসকের একসঙ্গে বেশকিছু মাস্ক কেনার প্রয়োজন ছিল। অনলাইনে N95 মাস্ক বিক্রির বিজ্ঞাপন দেখে কিনতে উৎসাহী হয়েছিলেন কলকাতার ওই সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসক। বিজ্ঞাপনে দেওয়া নম্বরে যোগাযোগ করেন তিনি। বলা হয় মাস্ক পেতে হলে অর্ধেক টাকা অগ্রিম দিতে হবে। সেই টাকা দিয়েও দেন তিনি। কিন্তু তারপর থেকেই ওই সংস্থার আর কোনও পাত্তা নেই। তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারছিলেন না কলকাতার চিকিৎসক। অবশেষে আনন্দপুর থানায় প্রতারণার অভিযোগ দায়ের করেছেন তিনি।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, চিত্তরঞ্জন ন্যাশনাল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের গাইনোকোলজি বিভাগের ওই চিকিৎসক সম্প্রতি N95 মাস্ক বিক্রির বিজ্ঞাপন দেখে অনলাইনে সেখানে দেওয়া নম্বরে যোগাযোগ করেন। নম্বরটি মুম্বইয়ের একটি সংস্থার বলে জানানো হয় চিকিৎসককে। ওই সংস্থার সঙ্গে যোগাযোগ করে ওই চিকিৎসক জানান তাঁর এক হাজার পিস N95 মাস্ক প্রয়োজন। মুম্বইয়ের ওই সংস্থা চিকিৎসককে জানায় তাদের কাছে পর্যাপ্ত পরিমাণ মাস্কের স্টক রয়েছে। চাহিদামতো মাস্ক সরবরাহ করতে পারবে তারা। তবে অগ্রিম টাকা তাদের একাউন্টে না পাঠালে ডেলিভারি হবে না।

ওই চিকিৎসক পুলিশকে তাঁর অভিযোগে জানিয়েছেন, হাজার পিস মাস্কের দাম এক লক্ষ পাঁচ হাজার টাকার কাছাকাছি পড়বে বলে জানানো হয় মুম্বাইয়ের সংস্থার তরফে। কথামতো বাহান্ন হাজার টাকা সংস্থার একটি বেসরকারি ব্যাংকের একাউন্টে পাঠান ওই চিকিৎসক। কিন্তু টাকা পাঠানোর পর থেকেই মুম্বাইয়ের ওই সংস্থা ফোন বন্ধ করে দেয়। চিকিৎসক বুঝতে পারেন তিনি প্রতারকের খপ্পরে পড়েছেন। অবশেষে শনিবার আনন্দপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করেন তিনি। আনন্দপুর থানার এক অফিসার বলেন, "মোবাইল নম্বরে সূত্র ধরে আমরা জানার চেষ্টা করছি কোথা থেকে ফোন করা হচ্ছিল বা কারা ফোন করছিল। প্রয়োজনে মুম্বাই পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করা হবে অভিযুক্তদের গ্রেফতার করার জন্য।"

SUJOY PAL

Published by:Siddhartha Sarkar
First published: