corona virus btn
corona virus btn
Loading

শহরে দুটি নিজস্ব করোনা পরীক্ষা কেন্দ্র করবে কলকাতা পুরসভা

শহরে দুটি নিজস্ব করোনা পরীক্ষা কেন্দ্র করবে কলকাতা পুরসভা

পুরসভার এই উদ্যোগে খুশি স্থানীয় বাসিন্দারাও। পরীক্ষাগারে সঙ্গে সঙ্গে আবার মাতৃ সদন চালু করার দাবি করেছেন বাসিন্দারা।

  • Share this:

#কলকাতা: নিজস্ব করোনা পরীক্ষা কেন্দ্র করতে চায় কলকাতা পুরসভা। পুরসভার ৫৮ ও ১১১ নম্বর ওয়ার্ডে দুটি পরীক্ষা কেন্দ্র। বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে কথা বলে ড্রইং ডিজাইনের কাজ চলছে। আইসিএমআর এবং রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের অনুমতি পেলে তিন মাসের মধ্যে পরীক্ষাকেন্দ্র প্রস্তুত করতে চায় পুরসভা।

কলকাতা পুরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ডে শুরু হয়েছে সোয়াব টেস্ট। ICMR এবং WHO এর পরামর্শ মতো শহরের বেশ কিছু জায়গায় হয়েছে এন্টি বডি টেস্ট (Anti Body Test)। এন্টি বডি টেস্টের জন্য রক্তের নমুনা আইসিএমআর চেন্নাই পাঠাতে হয়েছে। আর সোয়াব টেস্টের নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে এসএসকেএম ও আরজিকরে। এবার কলকাতা পুরসভা নিজের পরিকাঠামোতেই অ্যান্টিবডি ও সোয়াব টেস্ট করতে চায়। কলকাতা পুরসভার প্রশাসক মন্ডলীর সদস্য অতীন ঘোষ বলেন, অনুমতি পেলে ৩ মাসের মধ্যেই ল্যাবরেটরির কাজ শেষ করা হবে। বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে পরামর্শ করেই ল্যাবরেটরি ডিজাইন করা হচ্ছে। প্রথমে এন্টিবডি টেস্ট ও পরে সোয়াব বা লালারস পরীক্ষার পরিকাঠামো করা হবে।

পরিকাঠামো রয়েছে। কলকাতা পুরসভার ৫৮ নম্বর ওয়ার্ডের চম্পা মণি মেটারনিটি সেন্টার রয়েছে। ১৯৬৪ এই মেটারনিটি সেন্টারের উদ্বোধন করেছিলেন তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী প্রফুল্ল চন্দ্র সেন।

পুরসভার এই উদ্যোগে খুশি স্থানীয় বাসিন্দারাও। পরীক্ষাগারে সঙ্গে সঙ্গে আবার মাতৃ সদন চালু করার দাবি করেছেন বাসিন্দারা। এলাকার বাসিন্দা বাপ্পা হাজরা বলেন, আগে এখানে হাসপাতাল চলত। সেইরকম হাসপাতাল হলেই মানুষের বেশি সুবিধা। তবে ল্যাবরেটরি হলেও মানুষকে আর দূরে ছুটতে হবে না । আমরা খুশি।

চম্পা মণি মেটারনিটি সেন্টারের পরিকাঠামোকে কাজে লাগিয়ে ১০০ শয্যার হাসপাতাল এবং সঙ্গে নোবেল করোনার অ্যান্টিবডি ও লালারস পরীক্ষা কেন্দ্র করার আশ্বাস দিয়েছে পুরসভার।

৫৮ নম্বর ওয়ার্ডের কো-অর্ডিনেটর ও কলকাতা পুরসভার প্রশাসক মন্ডলীর সদস্য স্বপন সমাদ্দার বলেন, লকডাউনের আগেই পুরসভার মেয়র পারিষদ বৈঠকে ঠিক হয়েছিল চম্পা মণিতে ১০০ শয্যার হাসপাতাল হবে। সেই কাজও শুরু হবে৷ তার সঙ্গে সংযোজন হবে কোভিড স্পেশাল ল্যাবরেটরি। এতে এলাকার মানুষেরা আরও বেশি উপকৃত হবেন।

৫৮ নম্বর ওয়ার্ডের চম্পা মণি মেটারনিটি সেন্টারে বর্তমানে ওপিডি ছাড়া আর কিছুই হয়না।যদিও ১১১ নম্বর ওয়ার্ডের ওরাল মেইন রোডে টিবি হাসপাতালে রোগীরা থাকেন। তাই সবকিছু বিবেচনা করে রোগীদের স্বার্থ দেখেই পরীক্ষাকেন্দ্র করার দাবি জানিয়েছেন পুরসভার বাম মুখ্য সচেতক চয়ন ভট্টাচার্য্য।

১১১ নম্বর ওয়ার্ডের কো-অর্ডিনেটর ও কলকাতা পুরসভার বাম মুখ্য সচেতক চয়ন ভট্টাচার্য বলেন, পৌরসভা কর্তৃপক্ষ যা বলে বাস্তবে তা হয় না। বিরোধীদের সঙ্গে কোনওরকম আলাপ-আলোচনায় করে না পুর প্রশাসক মন্ডলী। রোগীদের স্বার্থ অক্ষুন্ন রেখে যদি সত্যিই কোভিড ল্যাবরেটরি হয় তাহলে ভালও। বর্তমান পরিকাঠামোয় যে সুবিধা আছে সেগুলো থেকে সাধারণ মানুষ যেন বঞ্চিত না হয়।

Published by: Pooja Basu
First published: June 19, 2020, 12:38 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर