corona virus btn
corona virus btn
Loading

শ্রমিকদের বকেয়া পড়লে, বা‌ড়ি ভাড়া দেবে সরকার, বললেন অরবিন্দ কেজরিওয়াল

শ্রমিকদের বকেয়া পড়লে, বা‌ড়ি ভাড়া দেবে সরকার, বললেন অরবিন্দ কেজরিওয়াল

অনুরোধ, তাঁরা যেন বাড়িতেই থাকেন

  • Share this:

#‌নয়া দিল্লি:‌ দেশের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে শ্রমিকদের যাওয়া নিয়ে পদক্ষেপ করলেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। রবিবার সন্ধ্যায় তিনি সাংবাদিক বৈঠক করে বলেন, বাইরের রাজ্য থেকে অসংখ্য শ্রমিক রাজধানী ও তাঁর পার্শ্ববর্তী এলাকায় কাজ করেন। তাঁদের অনুরোধ, তাঁরা যেন বাড়িতেই থাকেন। যদি মনে হয়, করোনার কারণে এই ক’‌দিন তাঁরা বাড়ি ভাড়া দিতে পারবেন না, তাহলে সরকার তাঁদের হয়ে বাড়ি ভাড়া দিয়ে। বাড়ির মালিকদের কাছেও তিনি আবেদন করেন, ‘‌বাড়ি ভাড়া বাকি পড়ার কারণে শ্রমিকদের বের করে দেবেন না। তাহলে তাঁরা ফিরে যেতে বাধ্য হবে এবং সেক্ষেত্রে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা দ্বিগুণ হয়ে যাবে।’‌ এভাবেই দিল্লির ঠিকানায় শ্রমিকদের থাকার অনুরোধ করলেন অরবিন্দ কেজরিওয়াল।

তিনি সাংবাদিক বৈঠকে বলেন, ‘‌বহু শ্রমিক, ঠিকামজুর, দিনমজুরকে দেখছি তাঁরা নিজেদের গ্রামে নিজেদের বাড়িতে ফিরে যাওয়ার চেষ্টা করছেন। তাদের অনুরোধ করে বলছি, কোথাও যাবেন না। এখানেই থাকুন। প্রধানমন্ত্রী আগেই বলেছিলেন, যিনি যে শহরে আছেন, তিনি যেন সে শহরেই থাকেন। এটাই তো লকডাউনে অস্ত্র। কথা না শুনলে করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে আমাদের পরাজয় কেউ রুখতে পারবে না। দেখুন, আপনারা যদি কেউ করোনা ভাইরাস আক্রান্ত হয়ে থাকেন তাহলে গ্রামে ফিরলেই আপনার শরীরের মারণ ভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে পারে গ্রামের অন্যান্য মানুষের মধ্যে। আর তখন এই রোগ আটকে দেওয়া এক কথায় অসম্ভব হয়ে দাঁড়াবে।’‌ শুধু কেজরিওয়াল, নন এর আগে প্রধানমন্ত্রীও বলেছিলেন, কোন শ্রমিক যদি বাড়ি ভাড়া দিতে না পারেন তবে আগামী একমাস তার কাছ থেকে যেন বাড়ি ভাড়া না নেন মালিকরা। এদিন কেজরিওয়াল সেই একই কথার পুনরাবৃত্তি করলেন , তবে দেখালেন সমাধানের পথও।

দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে যে ছবি উঠে এসেছে তাতে আমরা দেখেছি পরিযায়ী শ্রমিকরা পরিবারসহ মাইলের পর মাইল পায়ে হেঁটে নিজের গ্রামে ফেরার চেষ্টা করছেন। পথে ভিড়। রোগ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা। খাদ্যাভাব, কোন কিছুই তাঁদের আটকাতে পারছে না। এই পরিস্থিতিতে কেজরিওয়ালের অনুরোধে যদি অবস্থা কিছুটা ও পাল্টায় তাহলে আখেরে লাভ হবে দেশেরই।

First published: March 30, 2020, 12:38 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर